Friday, January 12th, 2018
অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী শাসক আমাদের দেশে আসতে দেয়নি: শেখ হাসিনা
January 12th, 2018 at 8:24 pm
অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী শাসক আমাদের দেশে আসতে দেয়নি: শেখ হাসিনা

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘‘বিদেশের মাটিতে ছিলাম বলে দুই বোন বেঁচে যাই। কিন্তু দেশে ফিরতে পারিনি আমরা। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী শাসক আমাদের দেশে আসতে দেয়নি। সর্বহারা, নিঃস্ব ও রিক্ত হয়ে স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে ছয়টি বছর বিদেশে কাটাতে হয়েছিল। ১৯৮১ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যখন আমাকে দলের সভাপতি নির্বাচিত করে, তখন সব বাধা অতিক্রম করে প্রিয় দেশবাসী আপনাদের সমর্থনে আমি দেশে ফিরতে সক্ষম হই। রিফিউজি হিসেবে আমাদের অমানবিক জীবনের অবসান ঘটে।’’

শুক্রবার সন্ধ্যায় সরকারের চার বছরপূর্তি উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেয়া এক ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘‘দেশে ফিরে একদিকে যেমন দলকে সংগঠিত করার কাজে মনোনিবেশ করি, অন্যদিকে দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য জনগণের ক্ষমতা ক্যান্টনমেন্ট থেকে উদ্ধার করে জনগণের হাতে ফিরিয়ে দিতে চেষ্টা চালাই। চারণের বেশে সমগ্র বাংলাদেশের গ্রামগঞ্জে ঘুরে বেড়িয়েছি। আপনাদের জীবনমান উন্নয়নে কী কী কাজ করতে হবে তারও পরিকল্পনা তৈরি করি।’’

সেই সময়কার স্মৃতিচারণ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘‘স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে যখন আপনাদের কাছে গিয়েছি, পেয়েছি অপার স্নেহ, ভালোবাসা, পেয়েছি আত্মবিশ্বাস। অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে, বন্ধুর পথ অতিক্রম করে ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে আমরা সরকার গঠন করে দেশবাসীর সেবা করার সুযোগ পাই। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর এই প্রথম আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের সুযোগ পেলো। বাংলাদেশের মানুষ সরকারি সেবা পেলো। আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো উন্নয়নসহ ব্যাপক উন্নতির পথে এগিয়ে গেলো বাংলাদেশ। অপার সম্ভাবনা দৃশ্যমান হতে থাকলো। বাসস্থান, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, কর্মসংস্থান, সামাজিক নিরাপত্তা, প্রতিবন্ধীদের সেবাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন জনজীবনে আস্থা সৃষ্টি করেছিল।’’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা, ৩০ লাখ শহীদ, দুই লাখ নির্যাতিত মা-বোন, মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সহায়তাকারীদের প্রতি শ্রদ্ধা এবং সালাম জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির জন্য একটি কলঙ্কময় দিন। মাত্র সাড়ে তিন বছর জাতির পিতা সময় পেয়েছিলেন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তোলার জন্য। একটা প্রদেশকে রাষ্ট্রে উন্নীত করে যুদ্ধবিধ্বস্ত ও ধ্বংসপ্রাপ্ত দেশটিকে যখন গড়ে তুলছিলেন এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিচ্ছিলেন, তখনই চরম আঘাত এলো। ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে আমি ও রেহানা হারালাম প্রাণপ্রিয় মা, বাবা, তিন ভাই, ভ্রাতৃবধূদের এবং অন্যান্য আত্মীয় স্বজনসহ ১৮ জন সদস্যকে।’’

নিজস্ব প্রতিবেদক, সম্পাদনা: এম কে রায়হান


সর্বশেষ

আরও খবর

সুন্দরবন থেকে লোকালয়ে বাঘ, পিটিয়ে হত্যা

সুন্দরবন থেকে লোকালয়ে বাঘ, পিটিয়ে হত্যা


আইপিএল এর ১১তম আসর শুরু ৭ এপ্রিল

আইপিএল এর ১১তম আসর শুরু ৭ এপ্রিল


নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার ম্যাচের টসে জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার ম্যাচের টসে জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ


২০১৯ সালে জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তরিত হবে

২০১৯ সালে জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তরিত হবে


বিলম্বিত হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

বিলম্বিত হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন


নায়করাজ রাজ্জাকের ৭৭তম জন্মদিন মঙ্গলবার

নায়করাজ রাজ্জাকের ৭৭তম জন্মদিন মঙ্গলবার


স্থানীয় সাংসদের আশ্বাসে ব্যবসায়ীদের অবরোধ প্রত্যাহার

স্থানীয় সাংসদের আশ্বাসে ব্যবসায়ীদের অবরোধ প্রত্যাহার


হাতীবান্ধায় চাদাঁবাজি করতে গিয়ে হাতীর মৃত্যু

হাতীবান্ধায় চাদাঁবাজি করতে গিয়ে হাতীর মৃত্যু


বরিশালে সরস্বতী পূজায় নানা আয়োজন

বরিশালে সরস্বতী পূজায় নানা আয়োজন


সাংবাদিক নেতা আলতাফ মাহমুদের স্মরণ সভা বুধবার

সাংবাদিক নেতা আলতাফ মাহমুদের স্মরণ সভা বুধবার