Friday, July 13th, 2018
‘আপনি হয় আওয়ামী লীগ অথবা জামাত-শিবির-রাজাকার’
July 13th, 2018 at 10:24 pm
‘আপনি হয় আওয়ামী লীগ অথবা জামাত-শিবির-রাজাকার’

মাসকাওয়াথ আহসান:বাংলাদেশের সরকারি চাকরিতে ৪৫ শতাংশ মেধা ও ৫৫ শতাংশ কোটার ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হয়। এই বৈষম্যের বিরুদ্ধে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা সরকারি চাকরিতে “কোটা সংস্কার” আন্দোলন করেছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেত্রী এই কোটা সংস্কার আন্দোলনের তীব্রতা প্রশমনের জন্য জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে “কোটা বাতিলে”-র ঘোষণা দেন ১১ এপ্রিল ২০১৮। আওয়ামী লীগ সমর্থকেরা তখন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের “কোটা বাতিল” আন্দোলনকারী হিসেবে চিহ্নিত করে। অথচ আন্দোলনটি কোটা সংস্কারের ন্যায্য আন্দোলন।

এরপর প্রায় আড়াইমাস সময় নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতা-সমর্থক-সাংবাদিক সম্মিলিতভাবে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের জামায়াত-শিবির-রাজাকার হিসেবে প্রমাণে মরিয়া হয়ে ওঠে।

উল্লেখ্য যে আওয়ামী লীগ তার সাড়ে নয় বছরের শাসনামলে বিপুল সংখ্যক জামায়াত কর্মীকে আওয়ামী লীগে যোগদান করায়। এই যোগদানেও মাথাপিছু অর্থমূল্য রয়েছে; অর্থাৎ এটি ধারাবাহিক যোগদান বানিজ্য।

এ ছাড়া জামায়াত একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচারের প্রেক্ষিতে রাজনৈতিক দল হিসেবে নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন হারালে ইসলাম ধর্ম ভিত্তিক রাজনীতির বি-টিম হিসেবে হেফাজতে ইসলাম ক্রমশ শক্তিশালী হয়ে ওঠে। আওয়ামী লীগ এই হেফাজতে ইসলামকে খাসজমি ও চাকরি সুবিধা দেয় এবং আওয়ামী লীগ নেতারা যে কোন নির্বাচনের আগে হেফাজত প্রধানের কাছে কথিত দোয়া নেয়া বা পলিটিক্যাল ব্যাপ্টিজমের প্রথা চালু করে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হেফাজত প্রধানের কাছে গিয়ে কথিত দোয়া নেয়া ও হেফাজত প্রধান ঢাকায় এসে প্রধানমন্ত্রীকে কথিত “দোয়া” করে যাবার প্রথা প্রচলিত হয়। ধর্ম নিয়ে রাজনীতির এইসব স্পষ্ট দৃষ্টান্ত স্থাপনের পরেও আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা বাংলাদেশ সমাজের সাধারণ মানুষ এমনকী কোটা-সংস্কার আন্দোলনের ছাত্র-ছাত্রীদের অত্যন্ত অশ্লীল ভঙ্গিতে “জামায়াত-শিবির” বলে দমিয়ে রাখার চেষ্টা করে।

আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা জামাতকে নিয়ে নব্বুই-এর এরশাদবিরোধী আন্দোলন করেছেন, জামাতের সঙ্গে লিয়াজো রেখে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবীতে আন্দোলন করেছেন ১৯৯৬ সালে, বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রথমবারের মত মাথায় কালো ফেটি বেঁধে ধর্মীয় চিহ্ন নিয়ে ৯৬ সালের নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন। ধর্ম নিয়ে রাজনীতির ক্ষেত্রে জিয়া-এরশাদ-খালেদার মতো একই শঠতার পথে হেঁটেছেন; আজো হাঁটছেন শেখ হাসিনা। সুতরাং আওয়ামী লীগের সমর্থকদের মুখে সাধারণ মানুষকে জামাত-শিবির বলে গালি দেয়া মন্থরার মুখে বেমানান শব্দাবলী।

আওয়ামী লীগ এবং তার রাজনীতি ব্যবসার পেশীজীবীদের মুখে সাধারণ মানুষকে জামাত-শিবির-রাজাকার বলে গালি দেয়া আসলে একদলীয় শাসনব্যবস্থা কায়েমের কৌশল। যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধবাজ নেতা জর্জ ডব্লিউ বুশের মুখে, “ইউ আর আইদার উইথ আস অর এগেইন্সট আস”–এর আওয়ামী লীগিয় অনুবাদ হচ্ছে, ‘আপনি হয় আওয়ামী লীগ অথবা জামাত-শিবির-রাজাকার।’

কোটা-সংস্কার আন্দোলনকারী ছাত্রছাত্রীদের জামাত-শিবির-রাজাকার বলে ও পুলিশ দিয়ে পিটিয়েও দমাতে না পারায় শেখ হাসিনা সংসদে দাঁড়িয়ে “কোটা বাতিলে”-র অবাস্তব ঘোষণা দেন। এরপর আড়াই মাস সময় নেন আন্দোলন স্তিমিত হয়ে আসার। তাতেও কাজ না হলে; পুলিশের পরিবর্তে ছাত্রলীগের পেটোয়া বাহিনীকে লেলিয়ে দেয়া হয় আন্দোলনকারী ছাত্রদের লাথি দিয়ে, লাঠি দিয়ে পেটাতে। হাতুড়ি দিয়ে আন্দোলনকারীদের হাড়গোড় ভেঙ্গে দিতে। ছাত্রীদের লাঞ্ছিত করতে। কিন্তু তাতেও আন্দোলন দমবে এমনটা মনে না হওয়ায় ২ জুলাই ২০১৮ কোটা সংস্কার বাস্তবায়নের একটি সরকারি কমিটি গঠন করা হয়। পাশাপাশি চলতে থাকে কোটা-সংস্কার আন্দোলনের সমন্বায়ক নেতাদের গ্রেফতার ও রিমান্ড।

অবশেষে গ্রেফতারকৃত একজন ছাত্রের মা যখন আর্তনাদ করে বলেন, আমার ছেলের চাকরি লাগবে না; ওকে আর নির্যাতন করবেন না; শেখ হাসিনা বুঝতে পারেন আন্দোলন আত্মসমর্পণ করেছে। তখন আবার তিনি বলেন, আদালতের আদেশ আছে কোটা বাতিল করা যাবেনা; তাতে আদালত অবমাননায় পড়ে যাবো।

শেখ হাসিনা একজন প্রবীন নেত্রী হয়েও সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের বিশ্ববিদ্যালয় হলের কথিত “১৫ টাকা সিট ভাড়া আর ৩৮টাকায় খাবার খেয়ে তারা লাফালাফি করে” বলে যে কটাক্ষ করেছেন; তাতে স্পষ্টতই বোঝা যায় মানবিক ও সাংস্কৃতিক রুচির কোন পর্যায়ে রয়েছে শেখ হাসিনা প্রশাসন।

মাসকাওয়াথ আহসান

মাসকাওয়াথ আহসান: ব্লগার ও প্রবাসী সাংবাদিক


সর্বশেষ

আরও খবর

আকাশবীণা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আকাশবীণা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


জেনে নিন কলার গুণাগুণ

জেনে নিন কলার গুণাগুণ


দুর্নীতি করলে যে দলেরই হন রেহাই পাবেন না: শেখ হাসিনা

দুর্নীতি করলে যে দলেরই হন রেহাই পাবেন না: শেখ হাসিনা


যা ইচ্ছে সাজা দেন, বারবার আদালতে আসতে পারব না: খালেদা জিয়া

যা ইচ্ছে সাজা দেন, বারবার আদালতে আসতে পারব না: খালেদা জিয়া


পাকিস্তানের ১৩তম রাষ্ট্রপতি হলেন আরিফুর রেহমান আলভি

পাকিস্তানের ১৩তম রাষ্ট্রপতি হলেন আরিফুর রেহমান আলভি


ভুটানকে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা বাংলাদেশের

ভুটানকে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা বাংলাদেশের


ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে আরও ১১ মামলা

ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে আরও ১১ মামলা


ওয়েডিং ফটোগ্রাফার এলেন খান, যার শিডিউল পাবার পর ঠিক হয় বিয়ের তারিখ

ওয়েডিং ফটোগ্রাফার এলেন খান, যার শিডিউল পাবার পর ঠিক হয় বিয়ের তারিখ


বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু


কারাগারেই হবে খালেদার দুর্নীতি মামলার শুনানি

কারাগারেই হবে খালেদার দুর্নীতি মামলার শুনানি