Thursday, December 21st, 2017
খালেদার পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপন ২৬-২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর
December 21st, 2017 at 5:34 pm
খালেদার পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপন ২৬-২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর

ঢাকা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য আগামী ২৬, ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর দিন ধার্য করছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দিনের মত খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন তার আইনজীবীরা। এদিন যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য এ দিন ধার্য করেন।

এদিন জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের লিখিত বক্তব্য গ্রহণ করেছেন আদালত। আদালত তা গ্রহণ করে তাকে জিজ্ঞেস করেন আপনি সাফাই সাক্ষী দেবেন কি না?

আদলতকে বিএনপি চেয়ারপারসন জানান, তিনি সাফাই সাক্ষী দেবেন না। এরপর আদালত মামলাটির যুক্তি উপস্থাপনের জন্য ২৬, ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর দিন নির্ধারণ করেন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি দুটি মামলারই যুক্তি উপস্থাপনের জন্য ওই দিনগুলো দিন ধার্য করেন আদালত।

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় একটি মামলা করে দুদক।

২০১০ সালের ৫ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশীদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

মামলায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ছাড়া বাকি আসামিরা হলেন- মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

এছাড়া জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগে খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে ২০১০ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় আরো একটি মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশীদ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী (পলাতক), হারিছের তখনকার সহকারী একান্ত সচিব ও বিআইডব্লিউটিএর সাবেক নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।

প্রতিবেদক: এসআর, সম্পাদনা: জাই


সর্বশেষ

আরও খবর

কাল দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

কাল দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


ভারত অন্য দেশের রাজনৈতিক বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না: কাদের

ভারত অন্য দেশের রাজনৈতিক বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না: কাদের


স্বাধীনতাবিরোধীদের সন্তানদের চাকরিতে অযোগ্য ঘোষণার দাবি

স্বাধীনতাবিরোধীদের সন্তানদের চাকরিতে অযোগ্য ঘোষণার দাবি


ছাত্রলীগকে নিয়ে আমরা নতুন করে ভাবছি: ওবায়দুল কাদের

ছাত্রলীগকে নিয়ে আমরা নতুন করে ভাবছি: ওবায়দুল কাদের


ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ফের রানওয়ে থেকে ছিটকে গেল বিমান

ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ফের রানওয়ে থেকে ছিটকে গেল বিমান


খালেদার সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি পাননি ফখরুলরা

খালেদার সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি পাননি ফখরুলরা


লক্ষ্মীপুরে ছাত্র হত্যায় ১৪ জনের যাবজ্জীবন

লক্ষ্মীপুরে ছাত্র হত্যায় ১৪ জনের যাবজ্জীবন


নানা-নানীর কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত রাজীব

নানা-নানীর কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত রাজীব


খালেদা জিয়া ভালো আছেন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

খালেদা জিয়া ভালো আছেন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


আন্দোলনের ভয় দেখিয়ে লাভ নেই

আন্দোলনের ভয় দেখিয়ে লাভ নেই