Monday, October 9th, 2017
জনসম্মুখে বাদুড়ের বসবাস 
October 9th, 2017 at 8:29 pm
জনসম্মুখে বাদুড়ের বসবাস 

লালমনিরহাট: পৃথিবীতে উড়তে সক্ষম একমাত্র স্তন্যপায়ী প্রাণী বাদুড়। নিশাচর এই প্রাণী নির্জন পাহাড় এবং বনে জঙ্গলে থাকতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। অবাধে পাহাড় এবং জঙ্গল কেটে ফেলার ফলে খাদ্য সংকটের মুখে পড়া এই প্রাণী বর্তমানে লোকালয়েও বাস করতে শুরু করেছে।

প্রাণী বিশেষজ্ঞদের মতে, বাদুড় গুহায় কিংবা অন্ধকার জায়গায় থাকার ফলে সচরাচর তাদের দেখা পাওয়া যায় না। কিন্তু লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা ইউনিয়ন পরিষদের বাজারের একটি রেইনট্রি গাছে শতাধিক বাদুড় বাস করতে দেখা গেছে।

লোকজনের ভিড়ের মধ্যেও প্রায় এক যুগ ধরে উক্ত এলাকায় বাদুড়গুলো বসবাস করে আসছে। সন্ধ্যা হলে এরা খাবারের সন্ধানে দলে দলে বেরিয়ে পড়ে। আবার ভোর রাতে ফিরে আসে একই স্থানে। দুপুরবেলায় গাছের নীচে গিয়ে দাঁড়ালে দেখা যায়, শত শত বাদুড় গাছে ঝুলে স্থির হয়ে আছে।

কাকিনা ইউনিয়ন পরিষদ এলাকার বসিন্দা রফিকুল ইসলাম, আমিনুল ইসলাম, ও রানু মিয়া জানান, বাদুড় অবলা প্রাণী। এদের জীবনযাত্রা বড়ই উদ্ভট। নিজের খাদ্যের অভাব মেটানো ছাড়া কোন ক্ষতি করে না। সন্ধ্যার আধাঁর নেমে আসার সাথে সাথে খাবারের জন্য ওরা দল বেঁধে ছুটে যায় বিভিন্ন দিকে। ভোর রাতে সোজা চলে আসে রেইনট্রি গাছটিতে। দীর্ঘদিন ধরেই ব্যাপারটি এমনি ভাবেই চলে আসছে।

ওই এলাকার স্কুল শিক্ষক শহীদুর রহমান জানান, এতোগুলো বাদুড় একসঙ্গে দেখার জন্য লোক জনের ভীড় লেগেই থাকে।

বাজারের প্রবীণ ব্যক্তিরা উল্লেখ করেন, এক সময় গ্রামের বিভিন্ন বাড়ির গাছে পাখি বাসা বেঁধে নির্বিঘ্নে বসবাস করতো। কালের আবর্তে যেন হারিয়ে গেছে সবকিছু। গ্রামে এখন আর পাখির তেমন অস্তিত্ব নেই বললেই চলে। এক সময় প্রতিদিন ভোরে গ্রামের গাছে গাছে পাখির কিচির মিচির শব্দ আর কলরবে ঘুম ভাঙ্গতো গ্রামবাসীর। আবার সন্ধ্যায় পাখির কল কাকলিতে ভরে উঠত চারপাশ।

কাকিনা গ্রাম থেকে পাখির কলতান হারিয়ে গেলেও বাদুড়গুলো কিন্তু অনেকদিন ধরেই গাছটিতে বসবাস করছে।

কাকিনা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সহিদুল ইসলাম শহিদ বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে বাদুড়গুলো এখানে বাস করছে। এদের কোন ক্ষতি হোক কিংবা এখান থেকে চলে যাক তা আমরা চাই না। কেউ যাতে বাদুড়ের ক্ষতি করতে না পারে সেদিকে আমি সব সময় নজর রাখি। আমি চাই এখানে আরো বাদুড় আসুক। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটক এসে এ দৃশ্য উপভোগ করুক।’

প্রতিবেদক, সম্পাদনা: ফারহানা করিম


সর্বশেষ

আরও খবর

নাইজেরিয়ায় গ্যাস ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ৩৫

নাইজেরিয়ায় গ্যাস ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ৩৫


অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের

অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের


জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম


ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ

ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ


আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন


বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক

বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক


৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব

৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব


খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় বিশেষ মেডিক্যাল বোর্ড বসবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় বিশেষ মেডিক্যাল বোর্ড বসবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী


২০২১’র মধ্যে ২৪০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করব: প্রধানমন্ত্রী

২০২১’র মধ্যে ২৪০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করব: প্রধানমন্ত্রী


ইন্দোনেশিয়ায় বাস দুর্ঘটনায় ২১ পর্যটক নিহত

ইন্দোনেশিয়ায় বাস দুর্ঘটনায় ২১ পর্যটক নিহত