Saturday, January 13th, 2018
প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে জনগণ হতাশ হয়েছে: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল
January 13th, 2018 at 11:43 am
প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে জনগণ হতাশ হয়েছে: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ভাষণে জনগণ হতাশ হয়েছে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, “প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সমঝোতার কোনো ইঙ্গিত আমরা দেখতে পেলাম না। তার বক্তব্যে সংকট নিরসনের কোনো লক্ষণ খুঁজে পাইনি। যার ফলে আমি বলছি যে, এ বিষয়টা একটা বড় হতাশার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা মনে করি, তার বক্তব্য কোনো সমস্যা সমাধান করতে পারেনি, বরং দেশকে আরেক দফা সংকট দিকে নিয়ে যাচ্ছে নিঃসন্দেহে।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণের ঘণ্টা খানেক পর শুক্রবার রাতে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের সামনে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ কথা বলেন। আজ বিকাল ৩টায় এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দেবে বিএনপি।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, দেশে এখন রাজনৈতিক সংকট চলছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে কীভাবে নির্বাচন অর্থবহ করা যায় তা নিয়ে কিছু বলেননি। দুঃখজনকভাবে তার বক্তব্যের সংকট নিরসনের কোনো লক্ষণও খুঁজে পায়নি। তার বক্তব্যের সঙ্গে সত্যতার মিল নেই।

তিনি বলেন, “আমরা বিশ্বাস করি যে, এদেশের মানুষ কখনও অন্যায়কে সহ্য করবে না। তারা সত্যিকার অর্থে একটা অর্থবহ সুষ্ঠু নির্বাচন দেখতে চায়।”

তিনি বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে ৫ শতাংশের কম ভোট পড়েছে। এ পরিণতি আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে যে সুষ্ঠু নির্বাচন দরকার, তার আয়োজনে সরকার আন্তরিক নয়। বর্তমান পরিণতি এ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য জনগণ আশাহত হয়েছে।

এই সরকারের আমলে উন্নয়নের বিবরণ প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন তার সঙ্গে দ্বিমত জানিয়ে তিনি বলেন, “তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বক্তব্যে উন্নয়নের একটা ফিরিস্তি দিয়েছেন এবং সেই সঙ্গে বলেছেন যে, উন্নয়নের মহাসড়কে অগ্রযাত্রা। আমরা সেটাকে মনে করি যে, দুর্নীতির মহাসড়কে তাদের অগ্রযাত্রা। উন্নয়নের যে কথা তারা বলছেন, সেখানে দুর্নীতি সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করছে।”

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশের মানুষের অবস্থার পরিবর্তনের কথা বলেছেন। কিন্ত বিদ্যমান সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের কথা বলায় সে সংকট রয়ে গেল। দেশের মানুষ অর্থবহ নির্বাচন দেখতে চায়। তার বক্তব্যের মধ্যে সমঝোতার ইঙ্গিত দেখা গেল না। এটা হতাশাজনক। মানুষ এ অন্যায় সহ্য করবে না।

নির্বাচন নিয়ে কোনো রকম নৈরাজ্য সহ্য হবে না, প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যকে হুমকি আক্ষা দিয়ে ফখরুল বলেন, তিনি হুমকির সুরে এ কথা বলেছেন। আমরা বলতে চাই, নৈরাজ্য বিরোধীদল সৃষ্টি করে না। নৈরাজ্য সরকার করে। বিগত সময়ে তারাই নৈরাজ্য করেছিল যাতে নির্বাচন প্রক্রিয়া ব্যাহত হয়। তার বক্তব্য জাতিকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।

উল্লেখ্য যে, ২০০৭ সালে সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বসহ অনেক রাজনীতিক গ্রেপ্তার হন। পরের বছর নির্বাচনে জয়ী হয়ে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর ২০১১ সালে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে। আর তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহালের দাবিতে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে বছরখানেক বিএনপির আন্দোলনে সহিংসতায় অনেকে প্রাণ হারান। শেখ হাসিনার অধীনে হওয়ায় ওই নির্বাচন বর্জন করে তা প্রতিহতের ডাক দেয় বিএনপি, সে সময়ও সহিংসতায় অনেকে প্রাণ হারিয়েছিলেন। এখন একাদশ সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে নির্দলীয় সরকারের অধীনে ভোটের দাবি জানিয়ে আসছে বিএনপি।

নিজস্ব প্রতিবেদক, সম্পাদনা: এম কে রায়হান


সর্বশেষ

আরও খবর

চকরিয়ায় লেগুনা-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ৪

চকরিয়ায় লেগুনা-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ৪


রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প


কোটা সংস্কার চেয়ে আবারও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

কোটা সংস্কার চেয়ে আবারও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ


নাইজেরিয়ায় গ্যাস ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ৩৫

নাইজেরিয়ায় গ্যাস ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ৩৫


অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের

অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের


জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম


ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ

ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ


আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন


বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক

বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক


৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব

৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব