Tuesday, January 2nd, 2018
প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ ছাড়া ফিরবেন না শিক্ষকরা
January 2nd, 2018 at 5:58 pm
প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ ছাড়া ফিরবেন না শিক্ষকরা

ঢাকা: এমপিওভুক্তির দাবিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এ নিয়ে আশ্বাস দিলেও তা প্রত্যাখান করেছেন তারা।

শিক্ষকরা বলছেন, অনেকবার আমাদেরকে আশ্বাস দেওয়া ও সময় নেওয়া হয়েছে। কিন্তু কাজ হয়নি। আমরা এখন আর শিক্ষামন্ত্রী বা কারও আশ্বাস নয়, সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনশনরত নন-এমপিও শিক্ষকরা এসব কথা বলেন।

নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ ডা. বিনয়ভূষণ রায় অসুস্থ থাকায় অনশনের কর্মসূচি সমন্বয় করছেন সংগঠনটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. শফিকুল ইসলাম।

শফিকুল ইসলাম বলেন, ২০১২ সালে আমরা শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছিলাম। কিন্তু তা ফলপ্রসূ হয়নি। ২০১২ সালের ১১ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। আমরা ঢাকায়ও এসেছিলাম। কিন্তু তখন নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে বৈঠক হবে না বলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে জানানো হয়। এরপর ২০১৩ সালে আবারও আন্দোলন শুরু করলে আমাদের এমপিওভুক্তির আশ্বাস দেওয়া হয়। ২০১৩ সালের ১৭ জানুয়ারি শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছিলাম। তখন আমাদের কাছ থেকে তিন মাস সময় নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ২০১৭ সাল পেরিয়ে গেলেও এমপিওভুক্ত করা হয়নি। এরপর আমরা ২০১৫ সালে এই প্রেসক্লাবের সামনে ২৮ দিন অনশন করেছিলাম। তখন প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে সাবেক মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ ঘোষণা দিয়েছিলেন, ২০১৬ সাল থেকে আমাদের এমপিওভুক্ত করা হবে। কিন্তু তা ঘোষণাতেই সীমাবদ্ধ ছিল

২০১৬ সালে জাতীয় প্রেসক্লাব, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সামনে অনশন করেছিলেন বলে জানান নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি।

তিনি বলেন, তখন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের পক্ষ থেকে দলটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী ও শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাঁপা আবারও আমাদের আশ্বাস দিয়েছিলেন। তখন তারা বলেছিলেন, ২০১৭-১৮ সালের বাজেটে আমাদের এমপিওভুক্ত করা হবে। কিন্তু করা হয়নি। এখন আমরা আর কারও আশ্বাস নয়, সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই।

এর আগে মঙ্গলবার সকাল ১১টা ১০ মিনিটে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ জাতীয় প্রেসক্লাবে গিয়ে নন-এমপিও শিক্ষকদের আশ্বাস দেন। তিনি বলেন, ‘নীতিমালা তৈরির কাজ চলছে। অর্থ মন্ত্রণালয় ও আইন মন্ত্রণালয়সহ বসে আমরা আপনাদের এমপিওভুক্ত করবো।’

তখন এমপিওভুক্তির নির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণার দাবির পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত দেশের বাইরে আছেন। তবে যাওয়ার আগে তিনি অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে এমপিওভুক্তির বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছেন। আমরা সেই অনুযায়ী কাজ করছি।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, শিক্ষকরা আমাদের শিক্ষা পরিবারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ। তারা আমাদের নয়নের মণি। আমি এই পরিবারের একজন কর্মী। আমাদের সম্পদের সীমাবদ্ধতা আছে। আশা করি, আপনারা বিষয়টা বুঝবেন। আপনাদের এমপিওভুক্ত করা হবে।

কিন্তু শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাস প্রত্যাখ্যান করে এমপিওভুক্তির দাবিতে অনশন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা। সুনির্দিষ্ট ঘোষণা ছাড়া অনশন না ভাঙার সিদ্ধান্ত নেন তারা। এ কারণে শিক্ষামন্ত্রীসহ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধি দলকে নিরাশ হয়েই ফিরতে হয়েছে।

প্রকাশ: ওয়াইএ


সর্বশেষ

আরও খবর

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প


কোটা সংস্কার চেয়ে আবারও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

কোটা সংস্কার চেয়ে আবারও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ


অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের

অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের


জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম


আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন


বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক

বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক


৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব

৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব


খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় বিশেষ মেডিক্যাল বোর্ড বসবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় বিশেষ মেডিক্যাল বোর্ড বসবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী


২০২১’র মধ্যে ২৪০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করব: প্রধানমন্ত্রী

২০২১’র মধ্যে ২৪০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করব: প্রধানমন্ত্রী


জনগণ ভোট দিলে আসবো, নাহলে আসবো না: প্রধানমন্ত্রী

জনগণ ভোট দিলে আসবো, নাহলে আসবো না: প্রধানমন্ত্রী