Monday, January 22nd, 2018
বিলম্বিত হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন
January 22nd, 2018 at 9:09 pm
বিলম্বিত হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

ডেস্ক: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সংঘটিত সহিংসতার কবল থেকে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবাসনে আরো সময় লাগবে বলে জানা গেছে। ফলে ২৩ জানুয়ারির মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের যে খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছিল তা আপাতত স্থগিত করা হয়েছে।

সোমবার বাংলাদেশের কর্মকর্তারা জানান, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য এখনো অনেক প্রস্তুতি বাকী আছে।

দুই বছরের মধ্যে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে মিয়ানমারের সঙ্গে চুক্তি করার পর বাংলাদেশ ২৩ জানুয়ারিতে এই প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু করার পরিকল্পনা করেছিল। কিন্তু শরণার্থী প্রত্যাবাসন বিষয়ক কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ সোমবার জানান, এখনো অনেক কিছুই করার আছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা যদি প্রত্যাবাসনকে একটি প্রক্রিয়া হিসেবে দেখি তাহলে এটিকে ৩ ভাগে ভাগ করা যায়। প্রথমে ফ্রেমওয়ার্ক তৈরি করতে হবে যার ভিত্তিতে প্রত্যাবাসন সম্পন্ন হবে। দ্বিতীয়ত কাঠামোগত প্রস্তুতি এবং সবশেষে শারীরিক কিংবা মাঠ পর্যায়ে প্রকৃত প্রত্যাবাসন শুরু করা।’

তিনি উল্লেখ করেন, এক্ষেত্রে প্রথম ধাপটি শেষ হয়েছে। কেন না একটি ফ্রেমওয়ার্ক হয়েছে এবং ১৯ ডিসেম্বর জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটিও হয়েছে। পরবর্তীকালে জানুয়ারিতে মিয়ানমারের রাজধানী নেপিডোতে এই কমিটির বৈঠকে প্রত্যাবাসন সম্পর্কিত চুক্তিও স্বাক্ষরিত হয়েছে।

আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমরা বর্তমানে দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রবেশ করেছি। প্রত্যাবাসনের জন্য যেসব প্রস্তুতিমূলক্ কাজ করা দরকার তা হাতে নিয়েছি। এটি শেষ হলে প্রকৃত প্রত্যাবাসন শুরু হবে বলে আশা করছি।’

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সংখ্যার কোন তালিকা বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ মিয়ানমারকে দিয়েছে কি না এই প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মিয়ানমারের সব অভিবাসীই প্রত্যাবাসনের তালিকায় থাকবে। মিয়ানমারের এই অভিবাসীর সংখ্যা ৭ লাখ ৬০ হাজার।

তিনি বলেন, ‘তালিকা তৈরির কাজ চলছে। এই তালিকা পরিবার এবং গ্রামভিত্তিক হবে। তবে এখনো পর্যন্ত মিয়ানমারকে কোন তালিকা দেয়া হয়নি।’

শরণার্থী প্রত্যাবাসন বিষয়ক এই কমিশনার বলেন, ‘মিয়ানমারের যেসব অভিবাসী প্রত্যাবাসিত হবেন তারা সেখানে গিয়ে কি অবস্থায় থাকবেন তাদের নিরাপত্তার বিষয়টিও আমাদের দেখতে হবে। জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ এই কাজ তত্ত্বাবধান করবে।’

তিনি উল্লেখ করেন, প্রত্যাবাসনকে একটি প্রক্রিয়া হিসেবে দেখলে সেটি শুরু হয়েছে এবং এটি অনেকদূর অগ্রসর হয়েছে।

তিনি জানান, যার ভিত্তিতে প্রকৃত প্রত্যাবাসন শুরু হবে সেই ফ্রেমওয়ার্ক তৈরি করাটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। চুক্তিতে দুই মাসের মধ্যে এই প্রক্রিয়া শুরুর কথা ছিল। এক্ষেত্রে ভেরিফিকেশনসহ অনেক কিছুই ঠিক হয়েছে।

তিনি আরো জানান, এখনো অনেক কাজ বাকী আছে। যেমন ট্রানজিট ক্যাম্প তৈরি, প্রত্যাবাসনের আগে পরে তাদের খাদ্য সরবরাহ করা ইত্যাদি। এসব বিষয় সম্পন্ন হলেই প্রকৃত প্রত্যাবাসন শুরু হবে।

এদিকে বাংলাদেশের বিভিন্ন শিবিরে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীরা প্রত্যাবাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছেন। তাদের আশংকা, রাখাইনে এখনো সেনাবাহিনীর নৃশংসতা চলছে। যার কারণে এখনো পর্যন্ত রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়ার জন্য সীমান্তে ভিড় করছেন। এই অবস্থায় নিজের প্রাণ বিপন্ন করে মিয়ানমারে ফেরত যেতে তারা আগ্রহী নন। তবে মিয়ানমার সরকার যদি তাদের নাগরিকত্ব, নিরাপত্তা দেয় এবং তাদের উপর যে ভয়াবহ নির্যাতন হয়েছে তার বিচার করে তাহলে প্রত্যাবাসনে তাদের কোন আপত্তি নেই।

গ্রন্থনা: ফারহানা করিম

 


সর্বশেষ

আরও খবর

খালেদার সাজা দেশের দুর্নীতিবাজদের জন্য সতর্ক বার্তা

খালেদার সাজা দেশের দুর্নীতিবাজদের জন্য সতর্ক বার্তা


মানববন্ধন-অবস্থান ও অনশন করবে বিএনপি

মানববন্ধন-অবস্থান ও অনশন করবে বিএনপি


সন্ধ্যায় বৈঠকে বসছেন বিএনপি নেতারা

সন্ধ্যায় বৈঠকে বসছেন বিএনপি নেতারা


শাহজালালে বিপুল পরিমাণ ভায়াগ্রা ও সিগারেট জব্দ

শাহজালালে বিপুল পরিমাণ ভায়াগ্রা ও সিগারেট জব্দ


বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান


বিকেলে দু’দিনের সফরে ঢাকা আসছেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বিকেলে দু’দিনের সফরে ঢাকা আসছেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী


শাহজালালে তিন কোটি টাকার স্বর্ণসহ যাত্রী আটক

শাহজালালে তিন কোটি টাকার স্বর্ণসহ যাত্রী আটক


১১০ রানে থামল বাংলাদেশ

১১০ রানে থামল বাংলাদেশ


খালেদার ৫, তারেকের ১০ বছর কারাদণ্ড

খালেদার ৫, তারেকের ১০ বছর কারাদণ্ড


রায়ে প্রমাণ হলো কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়

রায়ে প্রমাণ হলো কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়