Monday, October 24th, 2016
অল্প কাপড়ে নারীবাদ হয় না
October 24th, 2016 at 7:35 pm
অল্প কাপড়ে নারীবাদ হয় না

কাজি ফৌজিয়া: আমি আমার কাজের সাথে সম্পর্কযুক্ত বিষয় নিয়ে বেশি লিখি কিন্তু আমার এক বান্ধবীর শখ আমি যেন নারীবাদ বা নারী স্বাধীনতা নিয়ে লিখি।আমার ছোটবেলার লিখা একটি কবিতার কথা মনে পরে গেল যদিও পুরোটা মনে নেই কিছুটা এই রকম ছিল ‘আমি মানুষ নই মেয়ে মানুষ’। সারাটা জীবন আমরা একটাই লড়াই লড়ে গিয়েছি পুরুষ শাসিত সমাজে নিজেদের সম্মানের সাথে প্রতিষ্ঠিত করার লড়াই। আমার ও অন্য মেয়েদের জন্য সম্মানজনক জায়গা তৈরি করার লড়াই। এই লড়াইয়ে আমি ছোট বেলায় পাশে পেয়েছিলাম আমার বান্ধবী নুপুরকে, বড় বেলায় আরো অনেককে।আমার আর নুপুরের একটা বিষয়ে খুব মিল ছিল, আমরা নারীবাদ বা নারী স্বাধীনতা বলতে কম কাপড় পরা বা ছেলেদের সাথে অবাধ মেলা মেশা কে বুঝতাম না। আমাদের চোখে নারীবাদ ছিল আমাদের আত্মমর্যাদা নিয়ে নিজের ইচ্ছামত কাজ করা ও নিজেদের ইচ্ছামত চলাফেরা করার স্বাধীনতা।

জীবনের এই লম্বা সফরে আমি দুনিয়া অনেক দেখেছি, বাংলাদেশ আর আমেরিকার নারীবাদ আর নারীবাদীদের তফাৎ দেখেছি, আমেরিকার নারীবাদ দেখেছি। আমাদের দেশের অনেক মেয়েকে দেখি নারীবাদ মানে খোলামেলা পোশাক নিজের নিজের ইচ্ছামত সাথী নিয়ে থাকা কে বুঝে, তাই যদি হবে তো পশ্চিমা বিশ্বে বয়ফ্রেন্ড জায়েজ, কম পোশাকও চলে তবে এখানে নারীবাদ মানে কি? আমেরিকার নারীবাদীদের বেশির ভাগ আন্দোলন করতে হচ্ছে সিস্টেমের বিরুদ্ধে। এখানে গর্ভপাত করাতে গেলে বেশির ভাগ শহরে গভর্মেন্টের অনুমতি লাগে যা তারা দেয় না। অনিচ্ছাসত্তেও অনেক মেয়েকে মা হতে হয়, কোন কোন ক্ষেত্রে রাষ্ট্র অবশ্য বাচ্চার দায়িত্ব নেয়।

আমার নিজের কথাই আজ বলব আমি কিভাবে দেখি নারীবাদ কে, পরিবর্তনের বা পরিবর্তিত জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে। আমার নিজের জীবনের কথায় আসি আমি আমার স্বামীকে পাগলের মত ভালবাসতাম কিন্তু প্রতারণা ছাড়া সে আর কিছুই আমার জন্য চিন্তা করত না। সে ভাবত আমি দুর্বল অসহায়, তাকে ভালবাসি তাই সাত খুন মাফ। সে শেষ পর্যন্ত একটা বিয়েই করে ফেলল। আমার আত্মীয় ভাই বোনেরা ভাবল আমি খুব নরম মনের মানুষ, স্বামীকে মাফ করে দিব, আবার ফিরে যাব তার জীবনে, আমি শুধু ভাবলাম আমার আত্মমর্যাদার কথা। আমার মর্যাদাবোধ আমাকে অনুমতি দিল না তার জীবনে ফিরে যেতে। যত প্রিয় হোক সম্মান নিয়ে খেলা করার সুযোগ কাউকে দিবনা, তালাক দিয়ে একলা জীবন বেছে নিলাম। একবারও মনে হয়নি ভুল করেছি। অনেক মানুষ আমার পোশাক দেখে বলে আপনি আমেরিকায় থেকে এত কভার করে চলেন? অনেকে বলে আপনার একলা জীবন বয়ফ্রেন্ড নেই? আমি অবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করি আমার আমেরিকার জীবনের সাথে এসবের সম্পর্ক কি? আমি কভার করে চললে আধুনিক বা প্রগতিশিল হব না? বয়ফ্রেন্ড না থাকলে আমেরিকার থাকা বিফল এমন ভাবনার কারণ কি? আধুনিকতা কি কম কাপড়ে?

প্রগতিশিলতা কি বয়ফ্রেন্ডে? অনেক পুরুষ সামাজিক মাধ্যমে পরিচয় এর সূত্র ধরে আমাকে জিজ্ঞাসা করে আপনি একলা কি করে থাকেন? আপনার শারীরিক চাহিদা কিভাবে পূরণ করেন? আমি জবাব দেই দরজা খুলে দারিয়ে থাকি রাস্তা দিয়ে কেউ গেলে ডেকে নিয়ে আসি! হিজাবি মহিলার মুখে এমন কঠিন জবাব! পুরুষ মানুষটি আর কখনো আমাকে নক করে না। অনেকে আমাকে বলে আপনি একজন পুরুষের চেয়েও বেশী কাজ করেন, মনে হয় যেন পুরুষ বেশি কাজ করার ঠিকাদারি নিয়া আসছে আর আমি সেটা কেড়ে নিয়েছি।

অনেক টিভি সিরিয়ালে দেখি স্বামীকে মালিক বা সাহেব বলে ডাকে। বাস্তবেও দেখি গৃহিণীরা গল্প করে সাহেবের জন্য এটা বানিয়েছি, সাহেব বাসায় নেই! সাহেব কে জিজ্ঞাসা না করে কিছু বলতে পারব না। সাহেব বা মালিক মানে কি? আপনারা কি তার কেনা বা চাকুরি করেন তার অধীনে? মানুষ হিসাবে আমি যদি কাউকে ভালবাসি বিয়ে করি তার মানে তো এই নয় যে আমার সত্তা কে বিকিয়ে দিয়েছি! তবে কেন এই সাহেব মালিক বা কর্তা নামে স্বামীকে ডাকা? পরাধীনতার শেকল যদি মেয়েরা নিজেই পরে তবে তা একদিন ফাঁস হয়ে গলায় আটকে যাবে। আপারা সময় থাকতে নিজের সম্মান প্রতিষ্ঠিত করেন নইলে আজ স্বামী আপনার মালিক আর কাল সন্তান হবে আপনার মালিক।

অনেক মেয়েদের দেখি স্বামীকে খুশী রেখে পরকীয়া প্রেম করছে আবার ছেলেরাও বউকে খুশী রেখে আরেক মেয়ের সাথে সম্পর্ক চালিয়ে যাচ্ছে। আমার এক বন্ধুর মতে প্রেম তো প্রেম ই, আপন-কিয়া কি আর পরকিয়া কি? ঠিক কথা আমি বন্ধুর সাথে একমত, তবে ভান ভনিতার আশ্রয় না নিয়ে একে অপরকে না ঠকিয়ে বলে কয়ে চলে যান। তবেই আমি তাকে আধুনিকতা বা সততা বলে বাহবা দিব।

অনেক পুরুষ মানুষ দেখি ঘরের বউ এর সাথে কাজের বুয়ার মত আচরণ করে কারণ বউ কামাই করে না সে করে! বউ বাচ্চার জন্ম দিয়ে প্রতিপালন করে বুড়ি হয়ে গেছে। পুরুষ মানুষগুলি যদি সংসারের কাজের জন্য আলাদা আলাদা বেতনভুক্ত কাজের বুয়া রাখত তবে বুঝত কত ধানে কত চাল।যে সব বউরা বুঝতে পারে স্বামী গুনে না রূপে আসক্ত, মনে না শরীরে সুখ খুঁজে, সেই সব বউদের বাচ্চা নেওয়াই উচিৎ না। মেয়েদের ভাবার জন্য বলছি কি দরকার ঐ পুরুষকে বাবা হওয়ার সুখ দিয়ে? আয়ার কাজও করবেন আবার ঐ লোক অন্য মেয়ের পিছনে দৌঁড়াবে আর আপনি কাঁদবেন!আরেকটা সত্য না বললেই নয় যত রকম নারী নিপীড়নের গল্প আছে তার পিছনে দেখা যাবে পুরুষ লোকটির জীবনে আরেকটি নারীর সম্পর্কও আছে। সে হয়ত তার স্বামীর প্রেমিকা নয় শাশুড়ি নয় ননদ না হয় সতীন, তাই মেয়েরা যদি আত্মসম্মান বোধ সম্পন্ন না হয় একে অপরের সহায়ক না হয় তাহলে এক মেয়ের দুঃখের কারণ আরেক মেয়েই হবে।

নারীবাদীরা কম কাপড় পড়ার অধিকারে যতটা সোচ্চার মেয়েদের সচেনতা তৈরিতে ততটা সোচ্চার হলে অনেক নারী নির্যাতন কমে যেত। আধুনিক সমাজের সুফল হল লিভিং টুগেদার। শুনেছি বাংলাদেশেও তা অনেক বেড়েছে। ভাল কথা, আপনাদের বিবাহ প্রথার উপর আস্থা নেই কিন্তু এই সম্পর্কে কমিটমেন্টও নেই। আপনারা হয়ত বলবেন বিবাহ প্রথায়ও নেই, থাকলে আমার মত ডিভোর্সি মেয়ে কেন? হ্যাঁ তাতো বটেই কিন্তু তুলনামুলক ভাবে বিবাহসম্পর্ক টিকে থাকার হার বেশি, তাই নারীবাদীরা মানে আমাদের মত মানুষেরা সমাজে বিবাহ প্রথার মত ভাল ব্যবস্থা কে নিজেদের জীবনের সাথে তুলনা না করে সাপোর্ট করা উচিত। আমি সফল না বলে আর কেউ সফল হবে না এমন তো নয়।

আমার মতে নারীবাদ মানে কম কাপড় নয় আমাকে মানায় এমন কাপড়। নারীবাদ মানে সমাজ ভাঙ্গা নয় সমাজে নারী নেতৃত্ব তৈরি করা। নারীবাদ মানে সমঅধিকার নয়, অধিকার আমি জন্ম থেকে নিয়েই এসেছি তাই অধিকার প্রতিষ্ঠা করা। নারীবাদ মানে অত্যাচারী পুরুষ ছেড়ে আরেক পুরুষের করুণার পাত্রি হওয়া নয়, নারী পুরুষের চেয়ে কম মানুষ নয় সেটা প্রমাণ করা। নারীবাদ মানেই মুষ্টিবদ্ধ হাত উপরে তুলে শ্লোগান দেওয়া নয়, সম্পত্তিতে নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা করা।

একজন মানুষ হিসাবে নারী যতক্ষণ নিজেকে কম মানুষ বা দুর্বল ভাববে, নিজের স্বাধীনতার জন্য হাত পাতবে ততদিন নারীমুক্তি আসবে না। জন্ম থেকে স্বাধীন মানুষ, সমান মানুষ হয়ে জন্ম নেওয়া মানুষ যদি নিজেকে কম মানুষ ভাবে, কেউ বা কোনো মতবাদ তাকে মুক্তি বা স্বাধীনতা দিতে পারবে না। তাই মাথায় কাপড় দেওয়া বা না দেওয়ার উপর নারীর মুক্তি বা নারীবাদ নির্ভর করে না। নারীবাদ তো আর পেয়াজ রসুন নয় যে ঢাকা থাকবে না খোলা থাকবে তার উপর ভাল খারাপ নির্ভর করবে। মাওলানা ভাসানীর একটি উক্তি দিয়ে শেষ করব, তো্মাকে যদি কেউ থাপ্পড় মেরে তোমার স্বাধীনতা ক্ষুন্ন করে, তবে লাথি মেরে তা আদায় করে নাও।

প্রকাশ: তুহিন সাইফুল


সর্বশেষ

আরও খবর

জনগণ ভোট দিলে আসবো, নাহলে আসবো না: প্রধানমন্ত্রী

জনগণ ভোট দিলে আসবো, নাহলে আসবো না: প্রধানমন্ত্রী


টেকনাফে ৯ লাখ পিছ ইয়াবা উদ্ধার

টেকনাফে ৯ লাখ পিছ ইয়াবা উদ্ধার


বিচার করার এখতিয়ার নেই আইসিসি’র: মিয়ানমার

বিচার করার এখতিয়ার নেই আইসিসি’র: মিয়ানমার


ট্রেনে ‘নির্বাচন যাত্রা’য় আওয়ামী লীগ

ট্রেনে ‘নির্বাচন যাত্রা’য় আওয়ামী লীগ


খালেদা জিয়াকে হত্যার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল

খালেদা জিয়াকে হত্যার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল


শ্রীনগরে পুলিশের ‘চেকপোস্টে হামলা’, ২ জন নিহত

শ্রীনগরে পুলিশের ‘চেকপোস্টে হামলা’, ২ জন নিহত


আইসিসিতে মিয়ানমারের বিচারের পথ খুলল

আইসিসিতে মিয়ানমারের বিচারের পথ খুলল


আকাশবীণা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আকাশবীণা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


জেনে নিন কলার গুণাগুণ

জেনে নিন কলার গুণাগুণ


দুর্নীতি করলে যে দলেরই হন রেহাই পাবেন না: শেখ হাসিনা

দুর্নীতি করলে যে দলেরই হন রেহাই পাবেন না: শেখ হাসিনা