Saturday, December 17th, 2016
যেখানে খালেদা ও পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একই সুর
December 17th, 2016 at 5:16 pm
যেখানে খালেদা ও পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একই সুর

সানাউল কবীর সিদ্দিকী, ঢাকা:

ইতিহাস লেখার দায়িত্বটা সবসময়ই বিজয়ী’র। তারপরও, নত শির ভবিষ্যত প্রজন্মের কথা মাথায় রেখে পরাজিত জাতি’র কোন কোন সদস্য তাদের নিজস্ব অভিমত রেখে যাওয়ার চেষ্টা করে ইতিহাসের বুকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এসব ভাষ্য হয়ে ওঠে ‘হেইট স্পীচ’ কিন্তু ভাষ্য প্রদানের সময় সেটিকে ‘কাউন্টার প্রোপাগান্ডা’ হিসেবে গড়ে তুলতে গিয়ে অনেকেই করে ফেলেন হাস্যকর কাজ।

‘পাকিস্তান ডিফেন্স’ থেকে প্রকাশিত একটি ভিডিওতে নিজ বইয়ের বিজ্ঞাপন প্রচার করতে গিয়ে তেমন কৌতুকটাই করে ফেললেন ডক্টরেট ডিগ্রীধারী জুনায়েদ আহমদ নামক জনৈক পাকিস্তানি। ‘দ্য ফরগটেন চ্যাপ্টার: স্টোরি অফ ইস্ট পাকিস্তান’ নামক ঐ ভিডিও চিত্রে বাংলাদেশের বিরোধী দলীয় নেত্রী’র মতো তারাও মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তোলে। এছাড়া, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকার্য সম্পর্কে কটূক্তি করার পাশাপাশি বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ভারতীয় এজেন্ট হিসেবে দেখানো হয়েছে।

পাকিস্তানি সেনাবাহিনী কর্তৃক সংগঠিত গণহত্যাকে বৈধতা দিতে ভিডিও চিত্রে প্রকাশিত হয়েছে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য। এতে রয়েছে নওয়াজ শরীফের জমজ ভাই খ্যাত নরেন্দ্র মোদি’র বক্তব্যের অংশ, যা সম্পূর্ণ অস্পষ্ট করে তুলে ধরা হয়েছে। এই ভিডিও চিত্রে যে সব মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য প্রকাশিত হয়েছে, সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো-

  •  মুক্তিবাহিনী গড়ে উঠেছিলো ৫০,০০০ ভারতীয় সেনা সদস্য, সোভিয়েত বিমান বাহিনী ও অস্ত্রের সহায়তায়। গুটিকয়েক আওয়ামী লীগ সদস্য সে বাহিনীতে যোগ দিয়েছিলো, যারা মস্কো ও ভারতে প্রশিক্ষণ নিয়েছিলো।
  • মুক্তিযুদ্ধে নিহতদের ৯০ শতাংশ বিহারী ও অবাঙালি।
  • ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোন হত্যাযজ্ঞ চলেনি। কারণ, তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছুটি চলছিলো। সেনাবাহিনী কতিপয় রাজনৈতিক ‘গুন্ডার’ আক্রমণের পাল্টা জবাব দিয়েছিলো কেবল। (এ সময় নিহত বা হত্যার প্রতিশব্দ হিসেবে উর্দূতে ‘কতল’ শব্দটি ব্যবহৃত হয় ভিডিও চিত্রে। পরবর্তীতে লেখকের এহেন বক্তব্যের সাথে একমত প্রকাশ করেন তৎকালীন ৩২ পাঞ্জাব কমান্ডার ও অপারেশান সার্চ লাইটে নেতৃত্ব প্রদানকারীদের মধ্যে অন্যতম ব্রিগেডিয়ার তাজ।)
  • ‘মুক্তিবাহিনীর অত্যাচারের স্বীকার’ ট্যাগ সমৃদ্ধ খিজরুল ইসলাম নামক জনৈক বৃদ্ধের ব্যক্তিগত মন্তব্যের অংশ বিশেষে বলা হয়- নিজামী’র একমাত্র দোষ ছিলো বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর পাকিস্তান সফরে যাওয়া। এছাড়া কাদের মোল্লাকে ফেরেশতার সাথেও তুলনা করা হয় সে অংশে।
  • মিস ফাতেমা হাসান নামে জনৈক উর্দুভাষী মহিলা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ‘হাসিনা ওয়াজেদ’ বলে সম্বোধন করে বলেন, যে সকল বাংলাদেশি নাগরিক পাকিস্তানের সাথে সু-সম্পর্ক বজায় রাখার ইচ্ছা পোষণ করতো, তারাও আওয়ামী সরকারের আগমনকে হুমকি হিসেবেই দেখতো।
  • কুমিল্লা’র জনৈক নাগরিক খুরশীদ আলম নিজেকে মুক্তিবাহিনীর অত্যাচারের শিকার হিসেবে পরিচয় দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ‘তুমি’ সম্বোধন করে বলেন- ‘তুমি ইন্ডিয়ার গোলাম, তুমি বাংলাদেশের মুসলমানদের সাথে যা কিছু করতেছো, এইটা বহুতই অন্যায়।’
    তাছাড়া, পূর্বে বর্ণিত খিজরুল ইসলামের উর্দূ ভাষার দূর্বলতা ও ভিডিও চিত্রের আলোক সম্পাদনা ও লোকেশান দেখে বোদ্ধারা ধারণা করছেন, খিজরুল ইসলামও একই কুমিল্লা জেলার বাসিন্দা।

উল্লেখ্য, গত বছর ঠিক এমন সময়েই, ডিসেম্বর মাসের ২১ তারিখ, বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ ও আলোচনা সভায় বিতর্কিত মন্তব্য করেন ‘বলা হয়, এত লক্ষ লোক শহীদ হয়েছে। আসলে কত শহীদ হয়েছে মুক্তিযুদ্ধে, তা নিয়ে বিতর্ক আছে।’ পরবর্তীতে এ উক্তি’র অংশবিশেষ শিরোনাম করে প্রথম আলো একটি সংবাদও প্রচার করে।

অন্যদিকে, খালেদার এই উক্তিকে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী’র সুদূরপ্রসারী ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে সন্দেহ করছেন দেশের মুক্তচিন্তা চর্চাকারী জনতা। ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক জসিম আহমেদ তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘খালেদার সাথে সুর মেলালো পাকিস্তান সেনাবাহিনী’। ভিডিওটির কমেন্ট অংশে সত্য তথ্য প্রমাণ তুলে ধরা হলে সেগুলো সাথে সাথে মুছে দেয়া হয়। সে রকম মুছে দেয়া একটি মন্তব্য তুলে ধরে আজকের প্রতিবেদনের সমাপ্তি ঘোষণা করা হলো।

‘Actually if you think deeply this post is not meant for us the Bangladeshis. It is meant for Pakistani people to cover up army’s crime in 1971 which lead to the disintegration of Pakistan. If people of Pakistan know the actual truth, army’s image in the eye of their own people will be shattered & their monopoly privileges may go. This is a brain washing documentary to fool their own people & probably they will succeed as Pakistani people are not very enlightened, who always believe army’s words as next to Quran.’


সর্বশেষ

আরও খবর

ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ

ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ


পেটমোটা ঠগীর কবলে নবীন কিশোরেরা

পেটমোটা ঠগীর কবলে নবীন কিশোরেরা


‘আপনি হয় আওয়ামী লীগ অথবা জামাত-শিবির-রাজাকার’

‘আপনি হয় আওয়ামী লীগ অথবা জামাত-শিবির-রাজাকার’


মানুষের স্বাধীনতাহরণই দেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা

মানুষের স্বাধীনতাহরণই দেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা


দক্ষিণ এশিয়ার ভাটিয়ালি গণতন্ত্রেরা

দক্ষিণ এশিয়ার ভাটিয়ালি গণতন্ত্রেরা


বদি থেকে মাশরাফি; একই স্বপ্নের দৈর্ঘ্য

বদি থেকে মাশরাফি; একই স্বপ্নের দৈর্ঘ্য


পেডোফিলিক রাজনীতিকদের নিয়ে আমরা কী করবো!

পেডোফিলিক রাজনীতিকদের নিয়ে আমরা কী করবো!


হ্যাশট্যাগ স্ট্যান্ড ফর রিচ কিড গ্যাং

হ্যাশট্যাগ স্ট্যান্ড ফর রিচ কিড গ্যাং


আত্মপ্রবঞ্চনা নয় বরং আত্মসমালোচনা

আত্মপ্রবঞ্চনা নয় বরং আত্মসমালোচনা


কোটা সংস্কার আন্দোলনে কেউ হারেনি; কেউ জিতেনি

কোটা সংস্কার আন্দোলনে কেউ হারেনি; কেউ জিতেনি