Friday, December 23rd, 2016
রিহ্যাব মেলায় উপচে পড়া ভিড়
December 23rd, 2016 at 8:00 pm
রিহ্যাব মেলায় উপচে পড়া ভিড়

ঢাকা: বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত রিহ্যাব মেলায় শুক্রবার উপচে পড়া ভিড়। এদিন সকাল থেকেই মেলা প্রাঙ্গনে ক্রেতা-দর্শনার্থীদের আগমন ঘটে। দর্শনার্থীরা বিভিন্ন স্টল ঘুরে ঘুরে দেখেন। পছন্দের কোম্পানির ঠিকানা সংগ্রহ করেন অনেকেই। ধারণা নেন বিভিন্ন প্রকল্পের অবস্থা এবং মূল্য সম্পর্কে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রথম দুইদিন দর্শনার্থীরা যাচাইয়ে ব্যস্ত থাকলেও শুক্রবার অনেকে প্লট এবং ফ্ল্যাটের বুকিং দিয়েছেন।

রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) আয়োজিত পাঁচদিনের ওই মেলার তৃতীয় দিন ছিল শুক্রবার। এদিন মেলা স্থল সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, মেলায় ছাত্র থেকে শুরু করে বিভিন্ন পেশার সরকারি ও বেসরকারি চাকরিজীবীরা এসেছেন। কেউ স্টল ঘুরে ঘুরে দেখছেন আবার কেউ বুকিং দিচ্ছেন।

মেলা স্থলে দেখা হয় রাজধানীর আদাবর থেকে আসা খন্দকার রফিকুল ইসলামের সঙ্গে। জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি আমার দুই ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে এসেছি। সকালেই এসেছি। আমরা বেশ ঘুরে ঘুরে রেডি ফ্ল্যাট আছে এমন প্রতিষ্ঠানে বুকিংও দিয়েছি। এখন বাসায় ফেরার সময় হয়েছে। তিনি বলেন, অন্য সময়ের তুলনায় মেলায় অনেক যাচাইয়ের সুযোগ থাকে। আমরা সে সুযোগ কাজে লাগালাম।

একইভাবে আরিফুল ইসলাম ঝিগাতলা থেকে এসেছেন তার দুই মেয়েকে নিয়ে। কথা হয় আরিফুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি বলেন, আমরা একটি ফ্ল্যাট কিনতে চাই। এ কারণে মেলায় দেখতে এসেছি, কোন কোন কোম্পানির রেডি ফ্ল্যাট আছে। ঘুরে ঘুরে দেখছি। পরে পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফ্ল্যাট বুকিং দেব।

ক্রেতা-দর্শনার্থীদের এ আগমনে অনেকটা খুশিও হয়ে উঠেছেন মেলার আয়োজক প্রতিষ্ঠান রিহ্যাব নেতারা। তারা আশা করছেন এ মেলার মাধ্যমে আবাসন খাত কিছুটা হলেও ঘুরে দাঁড়াবে। তবে পুরোপুরি ঘুরে দাঁড়াতে সরকারের আন্তরিকতা বিশেষভাবে দরকার বলে তারা মনে করেন।

শুক্রবার দুপুর ১টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। মেলার মাধ্যমে কোম্পানির প্রচারণা করতে পেরে খুশি কোম্পানিগুলো। তাদের অভিমত, মেলায় খুব বেশি বিক্রি হয় না। তবে কোম্পানির প্রচার হয়। কেননা, একটি প্লট বা ফ্ল্যাট কেনার সিদ্ধান্ত নিতে সময় লাগে। এ কারণে মেলায় আগ্রহী ক্রেতারা প্রকল্প দেখেন, ভালো লাগলে পরে ওইসব কোম্পানি থেকে প্লট বা ফ্ল্যাট কেনেন তারা। দেশের শীর্ষ আবাসন কোম্পানির পাশাপাশি ছোট অনেক কোম্পানিও মেলায় স্টল বরাদ্দ নিয়েছেন।

কথা হয় জাপান গার্ডেন সিটির সহকারী পরিচালক খন্দকার তুহিনের সঙ্গে। তিনি জানান, মোহাম্মদপুরে তাদের একটি রেডি প্রকল্প রয়েছে। ওই প্রকল্পের ফ্ল্যাটের আয়তন ১ হাজার ৮০০ থেকে ২০০০ বর্গফুট পর্যন্ত। ১৬ তলা এ প্রকল্পের ফ্ল্যাট সংখ্যা ৬০টি। প্রতি বর্গফুট দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৭ হাজার টাকা।

তিনি আরো জানান, আবাসন খাতের মন্দাবস্থার মধ্যেও জাপান গার্ডেন সিটির ব্যবসা মোটামুটি ভালো। কেননা, মানুষের কাছে জাপান গার্ডেন সিটির একটি ইতিবাচক ইমেজ রয়েছে।

একইভাবে আমবিট বিল্ডার্স লিমিটেডের কর্মকর্তা আরিফুজ্জামান জানান, ২০১১ সালে তারা আবাসন ব্যবসা শুরু করেন। ভালো ভালো লোকেশনে ভবন নির্মাণ করায় তাদের ব্যবসা ভালো চলছে। তবে সরকার সহযোগিতা বাড়ালে আরো ভালোভাবে চলত আবাসন খাত।

তিনি আরো জানান, বর্তমানে ৫০টি রেডি ফ্ল্যাট রয়েছে তাদের। এছাড়াও কয়েকটি প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে।

মেলার সার্বিক বিষয় নিয়ে কথা হয় রিহ্যাবের পরিচালক শাকিল কামাল চৌধুরীর সঙ্গে। তিনি বলেন, কয়েক বছর ধরে আবাসন খাতে মন্দা অবস্থা চলছে। আমরা নানা ভাবে চেষ্টা করে এ খাতের সমস্যা কাটিয়ে তোলার চেষ্টা করছি। তবে টেকসই অবস্থার জন্য সরকারি সহায়তা বিশেষভাবে দরকার। তিনি জানান, বর্তমান সরকার আবাসনবান্ধব। এ কারণে আমরা আশাবাদী, তারা আবাসন খাতের মন্দা দূর করতে সহায়তা দেবে।

শাকিল কামাল আরো বলেন, আমরা সরকারের কাছে ২০ হাজার কোটি টাকার একটি বিশেষ তহবিল গঠনের দাবি জানিয়েছি। তাদের এ দাবি সরকার মেনে নেবে বলে আশা করেন তিনি।

আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, এবারের মেলায় অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলো প্লট ও ফ্ল্যাটে মূল্যছাড়, উপহারসহ নানা সুবিধা দিচ্ছে। প্রতিবছরের মতো এবারও দর্শনার্থীদের জন্য দু’ধরনের টিকিটের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। সিঙ্গেল এন্ট্রি টিকিটের মূল্য ৫০ টাকা এবং মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিটের মূল্য ধরা হয়েছে ১০০ টাকা। মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিট দিয়ে এক দর্শনার্থী সর্বোচ্চ পাঁচবার মেলায় প্রবেশ করতে পারবেন। টিকিটের র‌্যাফেল ড্রতে প্রতিদিন থাকছে আকর্ষণীয় পুরস্কার। প্রতিদিন রাত ৯টায় র‌্যাফেল ড্র হবে। ১ম পুরস্কার ৩২ ইঞ্চি এলইডি টেলিভিশন, ২য় পুরস্কার ডিপ ফ্রিজ, ৩য় পুরস্কার মোবাইল ফোন, ৪র্থ পুরস্কার ট্যাব এবং ৫ম পুরস্কার ওভেন।

গত বুধবার শুরু হওয়া ৫ দিনের রিহ্যাব ফেয়ার চলবে ২৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এবারের মেলায় ১৭৫টি স্টল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৩০টি বিল্ডিং ম্যাটেরিয়ালস ও অর্থ লগ্নিকারী প্রতিষ্ঠানকে অংশগ্রহণের সুযোগ দিয়েছে রিহ্যাব। এবারের মেলায় কো-স্পন্সর হিসেবে অংশগ্রহণ করছে ২৪টি প্রতিষ্ঠান। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলায় প্রবেশ করা যাবে।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে ব্যাংকর্ থেকে সাড়ে ৮ থেকে ১৩ শতাংশ সুদে গৃহঋণ পাওয়া যাচ্ছে। ফলে এবারের মেলায় ক্রেতাদের ভালো সাড়া মিলছে। এর আগে ২০০৮-০৯ অর্থবছর গৃহনির্মাণ খাতে ৯ শতাংশ সুদে ঋণ দেয়ায় আবাসন খাত চাঙ্গা হয়ে ওঠে। সুদ কম থাকায় এবারের  মেলায়ও কেনাবেচা বাড়ছে বলে আবাসন ব্যবসায়ী সূত্রে জানা গেছে।

মেলা সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০০১ সাল থেকে প্রতি বছর শীতকালীন আবাসন  মেলা করছে রিহ্যাব। ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামেও ৯টি মেলা করেছে সংগঠনটি। এছাড়া ২০০৪ সাল থেকে বিদেশেও মেলার আয়োজন করছে রিহ্যাব। এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ১২টি, যুক্তরাজ্য, দুবাই, ইতালি, কানাডা, সিডনি ও কাতারে একবার মেলার আয়োজন করা হয়েছে। এ পর্যন্ত আবাসন খাতে ৮০-৯০ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ হয়েছে। এতে ৩৫ হাজার উচ্চ ডিগ্রিধারী ও ৩৫ লাখ শ্রমিকের কর্মসংস্থান হয়েছে। আবাসন শিল্পের সঙ্গে রড, সিমেন্ট, ইট ও টাইলসসহ ২৬৯টি সংযোগ শিল্প জড়িত।

প্রতিবেদক: রিজাউল করিম, সম্পাদনা: জাহিদ


সর্বশেষ

আরও খবর

চকরিয়ায় লেগুনা-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ৪

চকরিয়ায় লেগুনা-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ৪


রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প


কোটা সংস্কার চেয়ে আবারও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

কোটা সংস্কার চেয়ে আবারও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ


নাইজেরিয়ায় গ্যাস ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ৩৫

নাইজেরিয়ায় গ্যাস ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ৩৫


অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের

অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের


জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম


ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ

ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ


আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন


বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক

বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক


৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব

৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব