Saturday, March 25th, 2017
স্বাধীন দেশের পূর্ণ সুফল পায়নি জনগণ
March 25th, 2017 at 10:23 pm
স্বাধীন দেশের পূর্ণ সুফল পায়নি জনগণ

শেখ রিয়াল, ঢাকা:

দেশে স্বাধীন হলেও সত্যিকারের স্বাধীনতার স্বাধ পায়নি জনগণ। এখনও অর্জিত হয়নি গণতন্ত্রের সুফল। পাকিস্তান কর্তৃক রাজনৈতিক নির্যাতন, অর্থনৈতিক, সামাজিক ও গণতান্ত্রিক অধিকার হননের প্রতিবাদে সকল জাতি-গোষ্ঠি এক হয়ে মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম। কিন্তু সেদিনের লক্ষ্যের সবটুকু অর্জন হয়নি। স্বাধীনতা দিবসকে কেন্দ্র করে নিউজনেক্সবিডি ডটকমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এভাবেই নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক।


মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কিছু বলুন …

রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে বলতে চাই, ৯ মাসব্যাপী মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল ঠিক, কিন্তু এর প্রস্তুতি গ্রহণ হচ্ছিল দু’দশক ধরে। ১৯৭১ সালে যদি মুক্তিযুদ্ধ না হতো তাহলে পরে কোনো না কোনো সময় হতোই। এছাড়া, স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগের ভূমিকা ছিলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই দলের নেতা হিসেবে বঙ্গবন্ধুর অবদান অতুলনীয়। একজন রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অন্যান্য ব্যাক্তিবর্গের মতো জিয়াউর রহমানের অনেক বড় অবদান রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েই তিনি রণাঙ্গনের যাত্রা সূচনা করেন।

চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আপনার মূল্যায়ন?

একটি খেলায় দুটি দল থাকে। একজন থাকে রেফারি। তার দায়িত্ব থাকে সুষ্ঠুভাবে খেলা পরিচালনা করা। বর্তমানে রাজনৈতিক খেলার মাঠে খেলোয়াড় ও রেফারি দুটিই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এই দলের প্রধানই ১৯৯৬ সালে সবাইকে সতর্ক করে বলেছিলেন, সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার নেই। এটি যুক্ত করতে হবে। আবার ২০১১ সালে এসে প্রয়োজন নেই প্রচার চালিয়ে সংবিধান থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিলও করে দিলেন। একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে বলব, বর্তমান সরকার বিরোধীদলের বাকস্বাধীনতা হরণ করছে। নাগরিক অধিকার হরণ ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা থেকেও জনগণকে বঞ্চিত করছে।

এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের উপায় কি?

উদারভাবে সকলকে রাজনীতি করার সুযোগ দিতে হবে। নির্বাচনের স্বাভাবিক পরিবেশ গড়ে তুলতে হবে। সেই নির্বাচনে সুষ্ঠু ভোটগ্রহণও নিশ্চিত করতে হবে। নির্বাচনের ফলাফল যাই হোক তা সবার মেনে নিতে হবে। যদিও এসব কাজে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ভূমিকা থাকতে হবে সবচেয়ে বেশী। বর্তমানে পরিস্থিতি থেকে জাতিকে উত্তরণ করতে হলে আওয়ামী লীগকে সাহসী ভূমিকা পালন করতে হবে। যদিও আওয়ামী লীগের জন্য এটি অনেক কঠিন একটা কাজ হবে। তবে এর বাইরে মুক্তির আর কোনো পথ নেই বলে আমার মনে হয়।

সাম্প্রতি জঙ্গিবাদ বিষয়টি রাজনৈতিক অঙ্গনে বিশেষভাবে আলোচিত হচ্ছে। আসলে কি বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের কোনো অস্তিত আছে?

দেশে মত প্রকাশের স্বাধীনতা না থাকলে সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদের উৎথান হয়। আমি অবশ্যেই জঙ্গিবাদের প্রতিবাদ জানাই। একই সঙ্গে এসব দিক ও পথভ্রান্তদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, সন্ত্রাসের মাধ্যমে কোনো দিন শান্তি প্রতিষ্ঠা হয় না। তবে বর্তমান সরকার জঙ্গিবাদ ইস্যুকে বিরোধীদল দমনের প্রধান হাতিয়ার বানিয়ে ফেলেছে। কোনো কিছু হলেই বলেন, এটি বিএনপি-জামাত করছে। একদিকে যেমন এসব অচেনা তরুণদের বলব তোমরা এই পথ থেকে ফিরে আসো। তেমনি সরকারকে বলব এমন অসৎ আচরণ পরিহার করুন।

আপনার মতে, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে তরুণদের করনীয় কী?

বর্তমান তরুণরা মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস পাচ্ছে না। তাদের সামনে দেয়া হচ্ছে বিশেষভাবে সৃষ্টি করা ইতিহাস। বর্তমান তরুণদের এতো সময় নেই যে, অন্য কোনো ইতিহাস আছে কি না তা জানার। মুক্তিযুদ্ধের সময় তৎকালীন সরকার ও সংগঠক যেমন ভূমিকা পালন করেছিল, রণাঙ্গণের মুক্তিযোদ্ধারাও তেমনই অধিকতর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের মূল্যায়ন না করে রাজনৈতিক ও সহায়ক মুক্তিযোদ্ধাদের বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে। এটা কোনো ভাবেই কাম্য নয়।

তরুণদের জন্য আপনার বার্তা?

তরুণদের প্রতি আমার বিশেষ বার্তা হচ্ছে লেখাপড়ায় ভাল করবেন। এই উপদেশ দিচ্ছি সৎ সঙ্গ অনুসরণ করবেন। প্রত্যক্ষভাবে রাজনীতি করেন বা না করেন অবশ্যই রাজনীতি সম্পর্কে সচেতন থাকবেন। কারণ চূড়ান্ত পর্যায়ে দেশের সার্বিক ব্যবস্থাপনা রাজনীতিবিদদের হাতেই থাকে।

সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ …

নিউজনেক্সটবিডি ডটকমের পাঠকদের জানাই আমার শুভেচ্ছা।

সম্পাদনা: সজিব ঘোষ


সর্বশেষ

আরও খবর

প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরলে ‘দ্রুত’ প্রজ্ঞাপনের আশ্বাস নানকের

প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরলে ‘দ্রুত’ প্রজ্ঞাপনের আশ্বাস নানকের


গাজা বিক্ষোভ: ৩ ফিলিস্তিনি নিহত, আহত ৩৫০

গাজা বিক্ষোভ: ৩ ফিলিস্তিনি নিহত, আহত ৩৫০


গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


মিয়ানমারকে চাপে রাখতে অস্ট্রেলিয়ার প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান

মিয়ানমারকে চাপে রাখতে অস্ট্রেলিয়ার প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান


শুক্রবার ঐতিহাসিক বৈঠকে কিমকে স্বাগত জানাবেন মুন    

শুক্রবার ঐতিহাসিক বৈঠকে কিমকে স্বাগত জানাবেন মুন    


ইসরায়েলি সেনার গুলিতে আহত ফিলিস্তিনি সাংবাদিকের মৃত্যু

ইসরায়েলি সেনার গুলিতে আহত ফিলিস্তিনি সাংবাদিকের মৃত্যু


রাজস্ব জালে সোয়া ৫ লাখ নতুন করদাতা

রাজস্ব জালে সোয়া ৫ লাখ নতুন করদাতা


মৌলভীবাজারে আগুনে পুড়ে ঘুমন্ত মা-মেয়ের মৃত্যু

মৌলভীবাজারে আগুনে পুড়ে ঘুমন্ত মা-মেয়ের মৃত্যু


স্ত্রী-সন্তানের পর চলে গেলেন বাবাও

স্ত্রী-সন্তানের পর চলে গেলেন বাবাও


এস কে সিনহার অ্যাকাউন্টে’ ৪ কোটি টাকা জমা দেয়া দু’জনকে দুদকে তলব

এস কে সিনহার অ্যাকাউন্টে’ ৪ কোটি টাকা জমা দেয়া দু’জনকে দুদকে তলব