Saturday, March 18th, 2017
হঠাৎ কেন আত্মঘাতীদের মাথাচাড়া?
March 18th, 2017 at 10:33 pm
হঠাৎ কেন আত্মঘাতীদের মাথাচাড়া?

প্রীতম সাহা সুদীপ ও সজিব ঘোষ, ঢাকা: গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁ ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় হামলার পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একের পর এক অভিযানে কোনঠাসা হয়ে পড়েছিল জঙ্গিরা। সম্প্রতি হঠাৎ করেই আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে তাদের কার্যক্রম।

গত তিনদিন ধরে একের পর এক জঙ্গি বিরোধী অভিযান ও জঙ্গিদের আত্মঘাতী হওয়ার ঘটনায় জনমনে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ছায়ানীড় নামের একটি বাড়িতে জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে নারী ও শিশুসহ পাঁচ জঙ্গি নিহত হন।

পরদিন শুক্রবার রাজধানীর আশকোনায় র‌্যাবের অস্থায়ী ক্যাম্পে আত্মঘাতী বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। এতে বোমা বহনকারী নিহত হন। ওই দুই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই শনিবার ভোরে রাজধানীর খিলগাঁও এলাকায় আবার র‌্যাবের চেকপোস্টে বিস্ফোরক নিয়ে হামলার চেষ্টা চালায় এক যুবক। পরে র‌্যাব সদস্যদের গুলিতে তার মৃত্যু হয়। ওই যুবকের কাছ থেকে হাতে বানানো গ্রেনেড ও সুইসাইডাল ভেস্ট উদ্ধার করা হয়।

এসব ঘটনা দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় হুমকি বলে মনে করছেন অপরাধ বিশ্লেষকরা। এ ধরনের আত্মঘাতী হামলাসহ যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীকে আরো তৎপর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। সেইসঙ্গে জঙ্গিদের কারা মদদ দিচ্ছে তা খুঁজে বের করতে না পারলে জঙ্গি তৎপরতা থামানো সম্ভব নয় বলেও মত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। আবার কেউ কেউ বলেছেন আত্মঘাতী হামলা উদ্বেগেজনক হলেও এটি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক ইশফাক এলাহী চৌধুরী নিউজনেক্সটবিডি ডটকমকে বলেন, ‘আমরা কিন্তু এখনো জঙ্গিবাদের গোড়ায় যেতে পারিনি। কারা অস্ত্রের সরবরাহ করছে, বিস্ফোরকগুলো তারা কিভাবে পাচ্ছে, কারা তাদের মোটিভেট করছে? আমরা কিন্তু সেকেন্ড লাইন থার্ড লাইনে যেতে পারছিনা। সেটা কিন্তু আমাদের খুঁজে বের করতে হবে। জঙ্গিদের কারা মদদ দিচ্ছে তা খুঁজে বের করতে না পারলে জঙ্গি তৎপরতা থামানো সম্ভব নয়।’

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আবদুর রশিদ বলেন, ‘সম্প্রতি কিছু ঘটনায় মনে হচ্ছে, জঙ্গিরা পুনরায় ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। তাদের ঘাঁটিগুলো ঢাকার বাইরে নিয়ে গিয়ে সেখান থেকে হামলা করার চেষ্টা চলছে। হামলার নতুন ধরন থেকে মনে হচ্ছে তাদের কেউ নির্দেশ দিয়েছে, আত্মহননই জিহাদের সঠিক পথ। এই ভুল নির্দেশনায় চালিত হচ্ছে তারা।’

তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি জঙ্গিরা অস্তিত্বের সংকটে পড়েছে। তাদের সংগঠনের নেতাকর্মীরা মনস্তাত্তি্বকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছে। হয়তো তাই তাদের ভাষায় কিছু ‘সার্থক হামলা’ চালিয়ে সংগঠনের নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করার চেষ্টা করা হচ্ছে। ‘জঙ্গিরা সবশেষ হামলা করেছে র‌্যাবের উপর। তারা এটাও জানে পুলিশের একটি এলিট ব্যাটালিয়ন হচ্ছে র‌্যাব। তাদের উপর হামলা করলে সারা বিশ্বে এর প্রচার পাওয়া যাবে। এজন্যই হয়তো এ হামলা চালানো হয়েছে।’

জঙ্গিদের সাম্প্রতিক আত্মঘাতী হয়ে উঠা উদ্বেগজনক হলেও এটা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হবে না বলেও মনে করেন আবদুর রশিদ। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এখনো পাকিস্তান, সিরিয়া কিংবা আফগানিস্তানের মতো হয়ে যায়নি। কারণ দেশের রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণ সরকারের উপর আছে, জঙ্গিদের উপর নয়। তাই এ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক সৈয়দ মাহফুজুল হক মারজান নিউজনেক্সটবিডি ডটকমকে বলেন, ‘জঙ্গিদের আত্মঘাতী হওয়ার কৌশল নতুন নয়। এর আগেও তারা এমন কৌশল অবলম্বন করেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একের পর এক অভিযানের কারণে জঙ্গিদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। তাই তারা সামনে এগিয়ে যেতে আত্মঘাতী হামলার পথ বেছে নিয়েছে।’

আগে পরে অনেক জঙ্গি হামলা হলেও দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ জঙ্গি হামলাটি ঘটেছিলো গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয়। এতে নিরাপত্তা রক্ষাবাহিনীর সদস্যসহ ২২ জন নিহত হন যাদের বেশীর ভাগই বিদেশী নাগরিক। এরপর শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলা হয়, এতেও এক নিরাপত্তা রক্ষা বাহিনীর সদস্যসহ নিহত হন এক নারী।

এরপরই রাজধানী ও আশেপাশের বেশ কয়েকটি এলাকায় জঙ্গি বিরোধী অভিযান চালানো হয়। স্পেশাল হুইপন্স অ্যান্ড ট্যাক্টিকস (সোয়াট), অ্যান্টি টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটি), র‌্যাব ও পুলিশ যৌথভাবে এ অভিযানগুলো পরিচালনা করে।

কল্যাণপুরে অপারেশন স্টর্ম-২৬ এ ৯ জন, নারায়ণগঞ্জে অপারেশন হিট স্ট্রং-২৭ এ ৩ জন, মিরপুরে মেজর মুরাদ, আজিমপুরে জঙ্গি-পুলিশ গোলাগুলিতে ১ জঙ্গি, গাজীপুর, টাঙ্গাইল ও সাভারের অভিযানে মোট ১২ জন, আশকোনায় অভিযানে ২ জন, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ৫ জন, আশকোনায় র‌্যাবের অস্থায়ী ক্যাম্পে আত্মঘাতী বোমা হামলায় একজন ও সর্বশেষ খিলগাঁওয়ে র‌্যাবের চেকপোস্টে একজন নিহত হন।

সম্পাদনা- জাহিদ


সর্বশেষ

আরও খবর

ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের আরিচা ঘাটে রাত্রি যাপন

ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের আরিচা ঘাটে রাত্রি যাপন


বর্ষা না আসতেই ধরলায় ভাঙ্গন

বর্ষা না আসতেই ধরলায় ভাঙ্গন


সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য দৃষ্টান্ত সবুজবাগ বৌদ্ধ বিহার (ভিডিও)

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য দৃষ্টান্ত সবুজবাগ বৌদ্ধ বিহার (ভিডিও)


বিএনপিতে গোপনে চলছে নির্বাচনের প্রস্তুতি

বিএনপিতে গোপনে চলছে নির্বাচনের প্রস্তুতি


৩০ এতিমের ভরসা প্রতিবন্ধী মাসুম

৩০ এতিমের ভরসা প্রতিবন্ধী মাসুম


ঈদ যাত্রা: প্রস্তুত হচ্ছে শতাধিক ফিটনেসবিহীন লঞ্চ (ভিডিও)

ঈদ যাত্রা: প্রস্তুত হচ্ছে শতাধিক ফিটনেসবিহীন লঞ্চ (ভিডিও)


স্বপ্নের দেশে পাড়ি দিতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরল যুবক (ভিডিও)

স্বপ্নের দেশে পাড়ি দিতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরল যুবক (ভিডিও)


বৃষ্টি মানেই রাজধানীবাসির চরম ভোগান্তি (ভিডিও)

বৃষ্টি মানেই রাজধানীবাসির চরম ভোগান্তি (ভিডিও)


প্রথমেই কথা রাখতে পারলো না মহানগর বিএনপি

প্রথমেই কথা রাখতে পারলো না মহানগর বিএনপি


অর্ধশত পরিবার ও পথ শিশুকে ঈদ সামগ্রী দিল শিক্ষার্থীরা

অর্ধশত পরিবার ও পথ শিশুকে ঈদ সামগ্রী দিল শিক্ষার্থীরা