Sunday, December 31st, 2017
৬ষ্ঠ দিনের মত আমরণ অনশনে নন-এমপিও শিক্ষকরা
December 31st, 2017 at 8:00 pm
৬ষ্ঠ দিনের মত আমরণ অনশনে নন-এমপিও শিক্ষকরা

ঢাকা: নন এমপিও ভুক্তির দাবিতে রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ৬ষ্ঠ দিনের মত আমরণ অনশনে অবস্থান নিয়েছেন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীরা। এদের প্রত্যেকেই কোনো না কোনো ভাবে দেনাগ্রস্ত। কেউ জমি বন্ধক রেখেছেন কেউ আবার ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন।

মানবেতর দিন কাটানো এই মানুষগুলো একেকজন শিক্ষক। শুধুমাত্র নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করার কারণে আজ তাদের এমনভাবে দিন কাটাতে হচ্ছে।

অনশনে বসা শিক্ষকরা জানালেন, তাদের মধ্যে অধিকাংশই ঈদ বা বড় কোনো উৎসবে স্ত্রী বা সন্তানদের নতুন পোশাক কিনে দিতে পারেন না। অনেকেই পারেন না পরিবারের মুখে ঠিকমতো খাবার তুলে দিতে। এর ওপর দেনার দায় তো আছেই।

দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার দিওড় শৈলা নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খাইরুল আক্তার ফারুক বলেন, আজ ১৫ বছর ধরে শিক্ষকতা করছি কিন্তু আজও সমাজে মুখ তুলে দাঁড়াতে পারলাম না। নিজের ৯ বিঘা জমি বন্ধক রেখে স্কুল চালাচ্ছি! এভাবে আর কত?

ফারুক আরো বলেন, সরকারি বেতন পাওয়া তো দুরের কথা শিক্ষকেরা নিজের পকেটের টাকা দিয়ে স্কুল চালাচ্ছে। মানুষ গড়তে গিয়ে, শিক্ষকতা করতে গিয়ে জীবন শেষ করে দিলাম কিন্তু আজও সরকার তথা দেশ বুঝলো না।

অনশনে অংশ নিয়েছেন ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার চৌরাঙ্গী দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক মো. তরিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘১৭ বছর ধরে শিক্ষকতা করছি কিন্তু আজও কোনো দিন বেতন পেলাম না। গ্রামের মানুষের অনুদানের টাকায় মাদ্রাসা চলে কিন্তু আমাদের কে চালায়? বউ ছেলে-মেয়ের জামা কাপড় দিতে পারি না। ঠিক ঠাক মতো খেতে দিতে পারি না। এই জীবন রেখে লাভ কী? তাই দাবি আদায় না হলে মরে যাব তবুও অনশন থেকে সরে যাবো না।‘

রাজশাহীর তানোর উপজেলার মোহাম্মদপুর মুক্তিযোদ্ধা মেমোরিয়াল কলেজে ১৮ বছর ধরে শিক্ষকতা করছেন মো. রায়হান হক। তিনি এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘প্রথম যখন কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয় তখন আমরাই (শিক্ষকেরা) নিজের পকেটের টাকা দিয়ে জমি কিনেছিলাম কলেজের জন্য। তারপর থেকে আজও পর্যন্ত নিজের টাকা দিয়ে চলছে সব কিছু। সরকার হয় আমাদের মেরে ফেলুক নতুবা এমপিওভুক্ত করে নিক।‘

নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী (ডলার) বলেন, ‘শিক্ষকেরা তাদের জীবনধারন ঠিকমতো করতে পারে না বলে কোচিং বাণিজ্যে জড়িয়ে পড়েন। সংসার তো তাদের চালাতে হয় না কি? না হলে তারা কী না খেয়ে মরবে? এতে করে শিক্ষার্থীদেরই ক্ষতি হচ্ছে।‘ তিনি জানান, নন-এমপিও প্রতিষ্ঠানগুলো সাধারণত প্রত্যন্ত অঞ্চলে হওয়ায় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বেতন, পরীক্ষার ফি বা সেশন চার্জ বেশি করে নেওয়া সম্ভব হয় না। তিনি আরো বলেন, ‘যার ফলে শিক্ষকেরাও খুব খারাপ অবস্থার ভেতর দিয়ে যান। আমরা প্রধানমন্ত্রী বরাবর প্রতিষ্ঠাগুলোকে এমপিওভুক্ত করার আবেদন জানিয়েছি। আমরা আশা করছি প্রধানমন্ত্রী আমাদের দিকে নজর দেবেন।‘

ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বিনয় ভূষণ রায় বলেন, ‘একজন এমপিওভুক্ত শিক্ষক যা যা করেন প্রতিষ্ঠান বা শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য একজন নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকও তাই করেন। কিন্তু নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের সঙ্গে বৈষম্য করা হচ্ছে। এতে করে পুরো শিক্ষা ব্যবস্থায় ক্ষতি হচ্ছে। শিক্ষকেরা ঠিক মতো পারে না শিক্ষকতায় মন দিতে। বৈষম্য দূর হয়ে গেলে শিক্ষকদের জন্য যেমন ভালো তেমনি পুরো শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতি হবে।‘

যে সব প্রতিষ্ঠানে বেতনের সরকারি অংশ শিক্ষক-কর্মচারীদের দেওয়া হয় সে সকল প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বলা হয়। আর যে প্রতিষ্ঠানে সরকার আর্থিক সুবিধা দেয় না তাদের নন-এমপিও প্রতিষ্ঠান হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। গোটা বাংলাদেশে এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে প্রায় সাড়ে ২৬ হাজার। যার শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা চার লাখের বেশি। আর নন-এমপিও প্রতিষ্ঠান আছে পাঁচ হাজার ২৪২টি। যার শিক্ষক কর্মচারী আছে ৭৫ থেকে ৮০ হাজার। সর্বশেষ ২০১০ সালে এমপিওভুক্ত করা হয় ১ হাজার ৬২৪টি প্রতিষ্ঠান।

প্রকাশ: ওয়াইএ


সর্বশেষ

আরও খবর

চকরিয়ায় লেগুনা-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ৪

চকরিয়ায় লেগুনা-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ৪


রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প


কোটা সংস্কার চেয়ে আবারও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

কোটা সংস্কার চেয়ে আবারও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ


নাইজেরিয়ায় গ্যাস ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ৩৫

নাইজেরিয়ায় গ্যাস ট্যাংকার বিস্ফোরণে নিহত ৩৫


অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের

অক্টোবরের মাঝামাঝি নির্বাচনকালীন সরকার: কাদের


জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

জামিন পেলেন না আলোকচিত্রী শহিদুল আলম


ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ

ঢাকা; মৃত জোনাকির থমথমে চোখ


আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন


বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক

বিএনপির মানববন্ধন থেকে ফেরার পথে আটক অর্ধশতাধিক


৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব

৩০ অক্টোবরের পর যে কোনো দিন তফসিল: ইসি সচিব