Wednesday, February 22nd, 2017
অভিজিৎ হত্যার তদন্ত প্রতিবেদন ২৭ মার্চ
February 22nd, 2017 at 3:18 pm
অভিজিৎ হত্যার তদন্ত প্রতিবেদন ২৭ মার্চ

ঢাকা: মুক্তমনা ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যা মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ২৭ মার্চ দিন ধার্য করেছেন আদালত।

বুধবার মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক ফজলুর রহমান প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেননি। এ জন্য ঢাকা মহানগর হাকিম খুরশীদ আলম প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ২৭ মার্চ নতুন দিন ঠিক করেন।

যদিও গত ৩১ জানুয়ারি বইমেলার নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছিলেন, অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবাইকে শনাক্ত করা হয়েছে। জড়িতদের মধ্যে আটজনকে বিভিন্ন সময় গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের মধ্যে একজন পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছে। মামলার তদন্ত কাজ শেষের দিকে। শিগগিরই এ মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হবে।

২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে অমর একুশে বইমেলা থেকে বের হওয়ার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক অভিজিৎ রায় ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যাকে কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন অভিজিৎ। ওই ঘটনায় শাহবাগ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন অভিজিতের বাবা অধ্যাপক ড. অজয় রায়।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, অভিজিৎ হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত আটজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তাদের মধ্যে আবুল বাশার পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। বাকি সাতজন কারাগারে রয়েছেন। তারা হলেন- ব্রিটিশ নাগরিক তৌহিদুর রহমান, শফিউর রহমান ফারাবী, সাদেক আলী মিঠু, আমিনুল মল্লিক, জুলহাস বিশ্বাস, জাফরান হাসান ও সিলেটে ব্লগার অনন্ত বিজয় দাস খুনের আসামি মান্নান ইয়াহিয়া ওরফে মান্নান রাহী।

তারা জানান, নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সাত সদস্যের কিলিং স্কোয়াড এক সপ্তাহ অনুসরণের পর অভিজিৎ রায়কে হত্যা করে। গত বছর (২০১৬) সন্দেহভাজন ছয় আসামির গতিবিধির সাতটি ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করে পুলিশ। এতে ঘটনার দিন সন্দেহভাজনদের বইমেলায় প্রবেশ, বের হওয়া এবং অভিজিৎ রায়কে অনুসরণ করতে দেখা যায়।

সূত্র আরো জানায়, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের তিন নীতিনির্ধারক চাকরিচ্যুত মেজর সৈয়দ জিয়াউল হক, শরীফুল ইসলাম ওরফে মুকুল রানা এবং সেলিম ওরফে ইকবাল ওরফে মামুনের সিদ্ধান্তেই অভিজিৎকে হত্যা করা হয়। তাদের তিনজনের মধ্যে শরীফুল খুনের সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল। গত জুনে শরীফুল পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়।

প্রতিবেদন: প্রীতম সাহা সুদীপ, সম্পাদনা: জাহিদ


সর্বশেষ

আরও খবর

উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে শাবি শিক্ষার্থীদের আমরণ অনশন

উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে শাবি শিক্ষার্থীদের আমরণ অনশন


দেশে আরও ৯৫০০ জনের করোনা শনাক্ত, হার ২৫ ছাড়াল

দেশে আরও ৯৫০০ জনের করোনা শনাক্ত, হার ২৫ ছাড়াল


টানা তৃতীয়বারের মতো নির্বাচিত হলেন আইভী

টানা তৃতীয়বারের মতো নির্বাচিত হলেন আইভী


অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে বাস চলার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন

অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে বাস চলার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন


আগুনে পুড়ল রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১২০০ ঘর

আগুনে পুড়ল রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১২০০ ঘর


এবারের বিজয় দিবসে দেশবাসীকে শপথ পড়াবেন প্রধানমন্ত্রী

এবারের বিজয় দিবসে দেশবাসীকে শপথ পড়াবেন প্রধানমন্ত্রী


কমলো এলপিজির দাম

কমলো এলপিজির দাম


উন্নয়নশীল দেশ নিয়ে খুশি না হয়ে, উন্নত দেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

উন্নয়নশীল দেশ নিয়ে খুশি না হয়ে, উন্নত দেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির


জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম মারা গেছেন

জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম মারা গেছেন


ডিআরইউর নতুন সভাপতি মিঠু, সাধারণ সম্পাদক হাসিব

ডিআরইউর নতুন সভাপতি মিঠু, সাধারণ সম্পাদক হাসিব