Thursday, September 1st, 2016
অর্থনৈতিক বৈচিত্র‍্য বাংলাদেশের উন্নতি ত্বরান্বিত করবে
September 1st, 2016 at 9:12 pm
অর্থনৈতিক বৈচিত্র‍্য বাংলাদেশের উন্নতি ত্বরান্বিত করবে

ফারহানা করিম, ঢাকা: উন্নত অবকাঠামো এবং অর্থনৈতিক বৈচিত্র্য বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে, অর্থপূর্ণ কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে এবং কাঠামোগত পরিবর্তনে উন্নতিসাধনে সাহায্য করবে। এর ফলে বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হতে পারবে। এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের(এডিবি) নতুন দুটি গবেষণায় এই কথাই বলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার এডিবির ওয়েবসাইটে এই সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

এডিবির অর্থনৈতিক গবেষণা এবং আঞ্চলিক সহযোগিতা বিভাগের পরিচালক এডিমন জিনটিং জানান, বিগত দশকে পোশাক শিল্প খাত এবং প্রবাসীদের পাঠানো অর্থ বাংলাদেশে শতকরা ৬ ভাগের বেশি শক্তিশালী অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে সাহায্য করেছে।

তিনি বলেন, ‘এই প্রবৃদ্ধির গতি বজায় রাখতে হলে লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, যন্ত্রপাতি মেরামত এবং কৃষি পণ্য সংরক্ষণ ও সরবরাহের ক্ষেত্রে কোল্ড চেইন(তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রিত সরবরাহ চেইন) খাতে বিনিয়োগ করতে হবে। এক্ষেত্রে উন্নত অবকাঠামো এবং সংস্কারের নীতি গ্রহণ করার বিকল্প কিছু নেই।’

‘বাংলাদেশ : কন্সোলিডেটিং এক্সপোর্ট-লিড গ্রোথ’ নামক প্রতিবেদনে বাংলাদেশে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে সংকটপূর্ণ সীমাবদ্ধতা চিহ্নিত করে তা মোকাবেলা করতে নীতি গ্রহণ করার সুপারিশ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল অর্থনৈতিক খাতে পরিকাঠামোগত উন্নয়নে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব অবদান রাখতে পারে। বেশি বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার জন্য জমির মালিকানা এবং উন্নত নগর পরিকল্পনা এবং উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া বিদ্যুতের নিশ্চয়তা, দক্ষ শহুরে পরিবহন ব্যবস্থা, নতুন কারখানা এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা নেয়াও গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশ দ্রুত বেগে দারিদ্র্য হ্রাস করতে সক্ষম হয়েছে। ২০০০ সালে দারিদ্র্যের হার ছিল শতকরা ৪৯ ভাগ। ২০১৬ সালে তা কমে শতকরা ২৪ ভাগে নেমে এসেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশজুড়ে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা কমানোর জন্য নিম্ন আয়ের মানুষদের আর্থিক পরিষেবায় অংশ গ্রহণে সাহায্য করতে হবে। সামাজিক নিরাপত্তা জাল জোরদার করার মাধ্যমে জীবিকার উন্নতি ঘটানো এবং অর্থনৈতিক সুযোগও বাড়ানো যাবে।

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে যাওয়া ক্ষুদ্রঋণ সেবার প্রবর্তক বাংলাদেশ।বিশেষ করে মোবাইল প্রযুক্তির ক্রমবর্ধমান ব্যবহারের মাধ্যমে এই খাতকে আরো উন্নত করার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সুযোগ রয়েছে।

‘বাংলাদেশ: লুকিং বিয়ন্ড গার্মেন্টস, এমপ্লয়মেন্ট ডায়াগনস্টিক স্টাডি’ নামক দ্বিতীয় প্রতিবেদনটি ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশনের (আইএলও) সঙ্গে যৌথভাবে তৈরি করা হয়েছে। এতে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে পোশাক শিল্পের অবিচ্ছেদ্য ভূমিকার কথা বলা হয়েছে।

পোশাক শিল্প ছাড়াও বাংলাদেশে অর্থনৈতিক বৈচিত্র্যতার ক্ষেত্রে প্রতিশ্রুতিশীল খাত হলো, ওষুধ শিল্প, আইটি সেবা এবং পর্যটন। শ্রমিকদের পেশাসুলভ দক্ষতা, শিক্ষার মান উন্নয়ন, অভিবাসী শ্রমিকদের ভালোভাবে ব্যবহার করার মাধ্যমে পোশাক শিল্পের বাইরে অন্যান্য শিল্পের উন্নতি করা সম্ভব হবে। এতে নারীদের কর্মক্ষেত্রের সুযোগও বাড়বে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যথেষ্ট উৎপাদনশীল কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং উদ্বৃত্ত শ্রম কমানোর মাধ্যমে অর্থনীতি প্রতি বছর শতকরা ৮ ভাগের উপর বাড়ানো উচিত।  এডিবি-আইএলও’র এই গবেষণায় উপযুক্ত কাজের সংখ্যা বাড়ানোর সুপারিশ করা হয়েছে। বাংলাদেশের সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় ( ২০১৬-২০২০ অর্থবছর) অধীনে বিষয়টি চলমান রয়েছে।

সম্পাদনা: তুসা


সর্বশেষ

আরও খবর

প্রয়াণের ২১ বছর…

প্রয়াণের ২১ বছর…


মানুষের জন্য কিছু করতে পারাই আমাদের রাজনীতির লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী

মানুষের জন্য কিছু করতে পারাই আমাদের রাজনীতির লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী


পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি

পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি


বাস পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী রিমান্ডে

বাস পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী রিমান্ডে


মাইন্ড এইড হাসপাতালে তালা, মালিক গ্রেপ্তার

মাইন্ড এইড হাসপাতালে তালা, মালিক গ্রেপ্তার


বিরোধী নেতাদের কটাক্ষ করতেন না বঙ্গবন্ধু: রাষ্ট্রপতি

বিরোধী নেতাদের কটাক্ষ করতেন না বঙ্গবন্ধু: রাষ্ট্রপতি


দেশের ইতিহাসে প্রথম সংসদের বিশেষ অধিবেশন শুরু

দেশের ইতিহাসে প্রথম সংসদের বিশেষ অধিবেশন শুরু


আমেরিকা নির্বাচন: দুজনেরই জয় দাবি

আমেরিকা নির্বাচন: দুজনেরই জয় দাবি


বৃহস্প্রতিবার থেকে ব্রিটেনে এক মাসের  জাতীয়  লকডাউন ডিসেম্বর পর্যন্ত  ফার্লো স্কীমের সময় বৃদ্ধি

বৃহস্প্রতিবার থেকে ব্রিটেনে এক মাসের জাতীয় লকডাউন ডিসেম্বর পর্যন্ত ফার্লো স্কীমের সময় বৃদ্ধি


সামরিক ডাইজেষ্ট

সামরিক ডাইজেষ্ট