Friday, October 21st, 2016
আজকের সম্পাদকীয়
October 21st, 2016 at 8:39 am
আজকের সম্পাদকীয়

ডেস্ক: কালের কণ্ঠ বন্ড সুবিধায় অর্থপাচারের বিষয়টি তুলে ধরে প্রতিরোধ করুন শিরোনামে লিখেছে, “দেশের প্রধান রপ্তানি খাত হওয়ায় তৈরি পোশাকশিল্পকে সরকার নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা দিয়ে আসছে। শতভাগ রপ্তানিমুখী গার্মেন্ট প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া তেমনি একটি সুবিধা হচ্ছে বিনা শুল্কে কাঁচামাল আমদানি। উদ্দেশ্য রপ্তানিকে উৎসাহিত করা। দেশবাসীও তা মেনে নিয়েছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানগুলো কী করছে? এনবিআরের টাস্কফোর্স এসব প্রতিষ্ঠানের কারখানা, বন্ডেড ওয়্যারহাউস, ব্যাংক, বন্দরসহ আমদানিসংশ্লিষ্ট তথ্যাদি পর্যালোচনা করে যেসব তথ্য পেয়েছে, তা রীতিমতো উদ্বেগজনক। প্রায় শতভাগ কারখানাই আর্থিক অনিয়মের সঙ্গে জড়িত। সুনির্দিষ্টভাবে ৫৬২টি প্রতিষ্ঠান পাওয়া গেছে, যেগুলো বিভিন্ন সময়ে এক হাজার ৮৩৮ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। শতভাগ রপ্তানিমুখী প্রতিষ্ঠান হিসেবে মোট চার হাজার ৫৮টি প্রতিষ্ঠান এনবিআরের বন্ড সুবিধা বা শুল্কমুক্তভাবে আমদানির সুবিধা পেয়ে থাকে। তবে এই সুবিধা ভোগ করার জন্য কিছু শর্ত প্রযোজ্য থাকে। এর মধ্যে আছে প্রতিষ্ঠানটি উৎপাদনে থাকতে হবে, বিনা শুল্কে আমদানি করা কাঁচামালের পুরোটাই কারখানায় ব্যবহার করতে হবে এবং অন্যত্র বিক্রি করা যাবে না, কোনো ধরনের মিথ্যা তথ্য দেওয়া যাবে না এবং হিসাব অনুযায়ী রপ্তানি পণ্যের রাজস্ব পরিশোধ করতে হবে। টাস্কফোর্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী বেশির ভাগ কারখানাই এসব শর্ত পূরণ করছে না। তার পরও কি প্রতিষ্ঠানগুলোকে বন্ড সুবিধা দেওয়া ঠিক হবে?”

প্রথম আলো তার সম্পাদকীয়তে সড়ক আটকে ব্যবসা শিরোনামে লিখেছে, “রাজধানীর নিউ ইস্কাটন সড়ক ও সি আর দত্ত সড়কের দুর্দশার প্রধান কারণ ব্যবসায়ীদের দ্বারা ফুটপাত ও রাস্তার অর্ধেকটাই দখলে রাখা। বাংলামোটর থেকে মগবাজার পর্যন্ত নিউ ইস্কাটন সড়কের অর্ধেক জায়গাজুড়ে কেবল গাড়ি আর গাড়ি। এই সড়কে রয়েছে গাড়ি ও মোটরসাইকেলের যন্ত্রাংশের দোকান। এসব দোকান যন্ত্রাংশ বিক্রির পাশাপাশি গাড়ি মেরামতের কাজও করে। এ জন্য প্রতিদিন অসংখ্য গাড়ি ও মোটরসাইকেল এখানে আসে। মেরামতের জন্য আসা এসব যানবাহনই সড়কের প্রায় অর্ধেক দখল করে থাকে। ফলে এই সড়কে প্রতিনিয়ত যানজটের সৃষ্টি হয়।

একই অবস্থা হাতিরপুল এলাকার সি আর দত্ত সড়কেরও। এই সড়কের অর্ধেকটা অবৈধ পার্কিংয়ের দখলে। ফুটপাতজুড়ে টাইলসের দোকানের মালপত্র রাখা। সঙ্গে আছে ছাপরা দোকান। ফলে সারাক্ষণ যানজট লেগে থাকে। কিন্তু রাজধানীর দুটি ব্যস্ত সড়কে এ রকম তো দিনের পর দিন চলতে পারে না ”

আঞ্চলিক সহযোগিতার আরেক ধাপ অগ্রগতি শিরোনামে ইত্তেফাক লিখেছে, “দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা সার্কের কার্যকারিতা লইয়া প্রশ্ন অনেক। সর্বশেষ ভারতের গোয়ায় যখন ব্রিকস সম্মেলন অনুষ্ঠিত হইয়া গেল, তখনি সার্কের বদলে বিমসটেকের বিষয়টি গুরুত্ব লইয়া আলোচনায় প্রাধান্য পায়। ভারতের একজন কূটনীতিক যিনি ঢাকায়ও কর্মরত ছিলেন, বলিয়াছেন, সার্ককে বাদ দিয়া বিমসটেককেই বাংলাদেশের গুরুত্ব দেওয়া উচিত। কারণ, বিমসটেক হইতে বাংলাদেশের লাভবান হইবার ব্যাপক সুযোগ রহিয়াছে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির আঞ্চলিক সহযোগিতার চাইতে পূর্ব এশিয়ার দেশগুলির সহিত সহযোগিতার দিকে বেশি ঝুঁকিয়াছে এ অঞ্চলের সরকারগুলি। বিশেষত, বিমসটেকের কথা বাদ দিলেও এ অঞ্চলের শীর্ষ অর্থনীতির দেশ ভারত ব্রিকসের সক্রিয় সদস্য। বিমসটেকেও ভারত যেমন রহিয়াছে, ব্রিকসেও আছে। ইহার মানে আঞ্চলিক সহযোগিতার ক্ষেত্রেও এ অঞ্চলের ব্যাপ্তি ঘটিয়াছে। অর্থাত্ কোনো কোনো রাষ্ট্র দক্ষিণের সঙ্গেও সহযোগিতা চুক্তিতে সম্মত হইয়াছে। সাউথ সাউথ কো-অপারেশনের যে স্লোগানটি প্রায়শই শোনা যায়, ব্রিকস এবং বিমসটেকের মাধ্যমে কার্যত সেই সহযোগিতা জোরদারের পথ সুগম হইয়াছে।”

বণিক বার্তা রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বিষয়ে ইউনেস্কোর প্রতিবেদন নিয়ে সংস্থাটির উদ্বেগ আমলে নিন শিরোনামে লিখেছে, “সুন্দরবনের নিকটবর্তী হওয়ায় রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্প বাতিলের আহ্বান জানিয়ে জাতিসংঘের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বিজ্ঞান-বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রস্তাবিত ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট সক্ষমতার রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্পটির নির্মাণ বিশ্ব ঐতিহ্যের জন্য চারটি হুমকির কারণ হতে পারে বলে উল্লেখ করা হয় প্রতিবেদনে। চার হুমকি হচ্ছে— কয়লার ছাইয়ের কারণে বায়ুদূষণ, বর্জ্য হিসেবে অবমুক্ত ছাই ও পানি থেকে দূষণ, ড্রেজিং ও জাহাজ চলাচল বৃদ্ধিজনিত হুমকি, শিল্প-কারখানা স্থাপন এবং এ-সংক্রান্ত অবকাঠামো তৈরির কারণে সৃষ্ট সমন্বিত নেতিবাচক প্রভাব। আলোচ্য প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ যদি সুন্দরবনের বিশ্ব ঐতিহ্যের সম্মান ধরে রাখতে চায়, তাহলে তিনটি উদ্যোগ নিতে হবে— ১. রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প সুন্দরবন থেকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে হবে। ২. গঙ্গা চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন না হওয়ায় সুন্দরবনে মিষ্টি পানির প্রবাহ কমে গেছে। ফলে ভারতের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সুন্দরবনে মিষ্টি পানির প্রবাহ বাড়াতে হবে। ৩. সুন্দরবন ঘিরে বেসরকারি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রসহ যেসব শিল্প-কারখানা গড়ে উঠছে, সে সম্পর্কে একটি পূর্ণাঙ্গ ও সমন্বিত পরিবেশগত প্রভাব সমীক্ষা করতে হবে। এ কাজগুলো সরকার কতটুকু করতে পারল, তার একটি অগ্রগতি প্রতিবেদন আগামী ১ ডিসেম্বর ইউনেস্কোর কাছে জমা দিতে হবে। এদিকে সুন্দরবনের আরো কাছে মংলার বুড়িরডাঙ্গায় ৬৩০ মেগাওয়াটের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করতে যাচ্ছে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ওরিয়ন। তাদের বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে সরকারের কাছে স্পষ্ট জবাব চেয়েছে ইউনেস্কো। শুধু বিদ্যুৎকেন্দ্র নয়, সংশ্লিষ্ট এলাকাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন শিল্প-কারখানা গড়ে ওঠার আশঙ্কাজনক খবর মিলছে। এ বিষয়েও কর্তৃপক্ষ একেবারেই নিরুদ্বেগ।”

গ্রন্থনা: প্রণব


সর্বশেষ

আরও খবর

করোনায় ৩৭ জনের মৃত্যু

করোনায় ৩৭ জনের মৃত্যু


শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে যাত্রী ও গাড়ির প্রচণ্ড চাপ, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে যাত্রী ও গাড়ির প্রচণ্ড চাপ, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি


দাম বাড়ল মুরগি ও চিনির

দাম বাড়ল মুরগি ও চিনির


ভারতে আবার সংক্রমণের রেকর্ড, একদিনে মৃত্যু প্রায় ৪০০০

ভারতে আবার সংক্রমণের রেকর্ড, একদিনে মৃত্যু প্রায় ৪০০০


দেশে করোনায় আরও ৪১ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৮২২

দেশে করোনায় আরও ৪১ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৮২২


খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়া প্রসঙ্গে সিদ্ধান্ত শিগগিরই: আইনমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়া প্রসঙ্গে সিদ্ধান্ত শিগগিরই: আইনমন্ত্রী


যে যেখানে আছেন সেখানেই সবাইকে ঈদ উদযাপন করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

যে যেখানে আছেন সেখানেই সবাইকে ঈদ উদযাপন করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর


করোনায় কমলো মৃত্যু ও শনাক্তের হার; মৃত্যু ৫০ আর শনাক্ত ১ হাজার ৭৪২

করোনায় কমলো মৃত্যু ও শনাক্তের হার; মৃত্যু ৫০ আর শনাক্ত ১ হাজার ৭৪২


১৬ মে পর্যন্ত লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি

১৬ মে পর্যন্ত লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি


২১ দিন পর বৃহস্পতিবার থেকে সড়কে গণপরিবহন

২১ দিন পর বৃহস্পতিবার থেকে সড়কে গণপরিবহন