Tuesday, July 5th, 2016
গুলশান হামলা: যেভাবে পালালেন বিওনি
July 5th, 2016 at 11:35 am
গুলশান হামলা: যেভাবে পালালেন বিওনি

ডেস্ক: গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে জিম্মি সংকটে নিহত বিদেশি নাগরিকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ইতালির নাগরিক। ১৭ জনের মধ্যে ৯ জনই ইতালীয়। জীবিত উদ্ধার হয়েছেন ইতালির দুই নাগরিক।

এর মাঝে ইতালির একজন নাগরিক শোনালেন জিম্মি করার সময় পালিয়ে বেঁচে যাওয়ার কথা। ৩৪ বছর বয়সী জ্যাকোপো বিওনি পেশায় একজন রাধুনী। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম স্কাই টিভিকে দেয়া সাক্ষাতকারে তিনি জানিয়েছেন কিভাবে ছাদ থেকে লাফিয়ে পাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিলেন –

তিার কথায় ‘ততক্ষণে পুলিশ আমাদের রেস্তোরাঁটাকে পুরোপুরি ঘিরে ফেলেছে। ওরাও তখন বুঝে গিয়েছিল, এ বার লড়তে হবে শেষ যুদ্ধটা। সেই সময় ওরা এ দিক ও দিক ছুটোছুটি করতে করতে এলোপাথাড়ি গুলি ছুড়ছিল। দেখলাম, ডিনার টেবিলে বসা এক ইতালীয়ের দিকে বন্দুক তাক করে রেখেছে এক জঙ্গি। গুলি ছুটে আসছে নানা দিক থেকে। একটা গুলি তো আমার মাথার ঠিক ওপর দিয়ে বেরিয়ে গেল।

মেঝেতে শুয়ে পড়লাম প্রথমে, বাঁচতে। কিন্তু শুয়ে শুয়েই ভাবলাম, এ ভাবে কতক্ষণই বা বাঁচতে পারব! কারণ, ওরা মেঝেতে মরার মতো পড়ে থাকলেও তো ছেড়ে দেবে না। কাছে এসে গায়ে হাত দিয়ে দেখবে, বেঁচে আছে কি না। তার পর যদি দেখে, কেউ বেঁচে আছে, তা হলে তাকে গুলি করে বা তুলে নিয়ে গিয়ে কুপিয়ে মারবে।’

তখনও উত্তেজনায় কাঁপতে কাঁপতে গড়গড়িয়ে গুলশানের ঘটনা বলে যাচ্ছিলেন জ্যাকোপো বিওনি। ওই রেস্তোরাঁর যে দুই ইতালীয় শেফ পালিয়ে বেঁচে গিয়েছিলেন, তাদের একজন এই বিওনি।

তার কথায়, ‘বাঁচার জন্য আমাদের রেস্তোরাঁর পিছনের সিঁড়ি দিয়ে ছুটে তার ছাদে উঠে গিয়েছিলাম। ছাদে উঠে দেখলাম, নীচে রেস্তোরাঁর সামনে পুলিশের সঙ্গে কার্যত, খণ্ডযুদ্ধ চলছে জঙ্গিদের। গুলি, গ্রেনেড ছুড়ছে জঙ্গিরা। পাল্টা গুলি চালাচ্ছে পুলিশ। ছাদে উঠে ভাবছিলাম, কোন দিকে যাব? ছাদ থেকে কোন দিকে লাফ মারব? দেখলাম, রেস্তোরাঁর পিছন দিকে গলির মধ্যে একটা বাড়ি আছে। তার ছাদে লাফিয়ে পড়া যায়। কিন্তু ওই বাড়িটা ছিল প্রায় ২০/২৫ ফুট নীচে। মানে, ঝাঁপ দিয়ে দু’টো তলা নীচে নামতে হবে। কয়েক মিনিট ভাবলাম। যদি কোমরের হাড়গোড় ভেঙে যায়! পরে ভাবলাম, গেলে যাবে। গুলি বা চাপাতির কোপ খেয়ে তো মরতে হবে না! এই ভেবেই ঝাঁপ দিয়ে নামলাম রেস্তোরাঁর পিছনের দিককার ওই বাড়িটার ছাদে।

সেখানেই ছিলাম বহুক্ষণ। গুলিযুদ্ধ শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও বেশ কিছুক্ষণ লুকিয়ে ছিলাম ওই বাড়িটাতে, ভয়ে। যদি পরে চোরাগোপ্তা রেস্তোরাঁ থেকে কেউ বেরিয়ে এসে আমার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে! আমাকে তো লাফিয়ে বাড়িটার ছাদে নামতে দেখে খুব হকচকিয়ে গিয়েছিলেন বাড়িটার লোকজন। ভয় পেয়ে ওই বাড়ির দু’টি ছোট ছোট ছেলেমেয়ে চেঁচিয়ে উঠেছিল। তার পর ওরা সব কিছু বুঝতে পেরেছিলেন। তখন ওরাই আমাকে ওদের ঘরে নিয়ে গিয়ে লুকিয়ে রেখেছিলেন। পরে যত্ন করে আমাকে খাইয়েওছিলেন। শনিবার বিকেল পর্যন্ত ওই বাড়িতেই ছিলাম। একবার পুলিশ এসে ওই বাড়িতেই আমার খোঁজখবর নিয়ে গেল।

আর তখনই ঠিক করে ফেললাম, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ওই বাড়ি ছেড়ে আমাকে বেরিয়ে যেতে হবে। না হলে আরও কত পুলিশি ঝামেলা পোহাতে হবে আমাকে, কে জানে! আর আমার জন্য ওই বাড়ির লোকজনকেও থাকতে হবে দারুণ দুশ্চিন্তায়।’

‘যেই ভাবা, সেই কাজ। আমার সঙ্গে ছিল দু’টো ব্যাগ আর একটা পাসপোর্ট। তাই নিয়েই পড়িমড়ি করে ছুটলাম এয়ারপোর্টের দিকে। দেরি না করে চেপে বসলাম ব্যাংককগামী প্রথম ফ্লাইটেই।’ বাড়ি ফেরার জন্য আর তর সয়নি বিওনির। সোমবারই ব্যাংকক থেকে রওনা হয়ে গিয়েছেন ইতালিতে। সূত্র: এবিপি।

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/এমএস/এসআই


সর্বশেষ

আরও খবর

করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, ৭৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত

করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, ৭৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত


ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড


আনিসুল হত্যা: মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের রেজিস্ট্রার গ্রেপ্তার

আনিসুল হত্যা: মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের রেজিস্ট্রার গ্রেপ্তার


পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি

পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি


দুইদিনের বিক্ষোভের ডাক বিএনপির

দুইদিনের বিক্ষোভের ডাক বিএনপির


অবশেষে পাঁচ বছর পর নেপালকে হারালো বাংলাদেশ

অবশেষে পাঁচ বছর পর নেপালকে হারালো বাংলাদেশ


অবশেষে গ্রেফতার হলো এসআই আকবর

অবশেষে গ্রেফতার হলো এসআই আকবর


থাইল্যান্ডে সেলিম প্রধানের ৭টি কোম্পানির খোঁজ পেয়েছে দুদক

থাইল্যান্ডে সেলিম প্রধানের ৭টি কোম্পানির খোঁজ পেয়েছে দুদক


মসজিদ-মন্দিরে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করলো সরকার

মসজিদ-মন্দিরে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করলো সরকার


করোনায় একদিনে আরও ১৮ প্রাণহানি

করোনায় একদিনে আরও ১৮ প্রাণহানি