Saturday, March 30th, 2019
গুলিতে নিহত রোহিঙ্গা নেতা, ছিলেন অপরাধীদের ‘চক্ষুশূল’
March 30th, 2019 at 10:34 pm
গুলিতে নিহত রোহিঙ্গা নেতা, ছিলেন অপরাধীদের ‘চক্ষুশূল’

শরীফ খিয়াম, ঢাকা: “শরনার্থী শিবিরে রোহিঙ্গা খুনের চেয়ে স্থানীয় খুনের ঘটনা বেশী ঘটেছে। খুনগুলো এই এলাকায় সংগঠিত হয় বলে বার বার লেদা ক্যাম্পের নাম আলোচনায় আসে,” গত বছরের ২৭ আগস্ট নিউজনেক্সটবিডি’র সঙ্গে আলাপে বলেছিলেন রোহিঙ্গা নেতা আবদুল মোতালেব ওরফে মতলব। অথচ বছর না ঘুরতে তাকেও খুন হতে হলো।

লেদা ক্যাম্পের ডেভলপমেন্ট কমিটির  চেয়ারম্যান মোতালেব  গত ২৪ মার্চ দিবাগত রাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবারের প্রথম প্রহরে (শুক্রবার দিবাগত রাত একটায়) মারা গেছেন।  তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর।

মিয়ানমার থেকে ২০০২ সালে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া এই রোহিঙ্গা নেতা মাদক ব্যবসা, মানবপাচার এবং নারী নিপীড়ণের বিরুদ্ধে সদা সোচ্চার ছিলেন।  মোতালেব রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে বাংলাদেশী সন্ত্রাসীদের অত্যাচার নিয়েও প্রকাশ্যে কথা বলতেন। 

পাচার হয়ে যাওয়া অনেক নারী-শিশু পরিবারের কাছে ফিরে এসেছে শুধু তাঁর তৎপরতায়। বহুবার ধরিয়ে দিয়েছেন মাদকের চালান। যার জেরে তাকে বহুবার প্রাণনাশের হুমকী দেওয়া হয়েছে।  তবুও তা তোয়াক্কা না করে আমৃত্যু পরোপকার করে গেছেন।

টেকনাফ পুলিশের ধারণা, স্থানীয় বা শরনার্থী অপরাধীরা গুলি করেছিল প্রভাবশালী এই রোহিঙ্গা নেতাকে। তবে তারা কাউকে চিহ্নিত করতে পারেনি।

সর্বশেষ আলাপে মোতালেব নিউজনেক্সটবিডি’কে সাথে বলেন, “এই ক্যাম্পটি (লেদা, টেকনাফের সবচেয়ে বড় শরণার্থী শিবির) ১১ বছর আগে স্থাপন করা হয়েছে। আর ১১ বছর ধরেই স্থানীয়রা অনেক ঝামেলা করছে। ইয়াবা পাচার, মানবপাচার, ইয়াবা সেবন এবং নারী ধর্ষন; এগুলো নিয়ে সবচেয়ে বেশী ঝামেলা হয়।”

“এটা (ক্যাম্প) নিরাপত্তাহীন জায়গা। আমরা সাধারণ রোহিঙ্গাদে সুরক্ষা দিতে বা প্রতিরোধ করতে পারি না,” যোগ করেন প্রভাবশালী এই রোহিঙ্গা নেতা। 


নিউজনেক্সবিডি’র সাথে আলাপ করছেন আবদুল মোতালেব ওরফে মতলব। ২৭ আগস্ট ২০১৯।

“গত ১১ বছরে ১৭ বার ডাকাতি, ৩৩ জন নারী ধর্ষনের শিকার হয়েছে। তবে এখানে এখানে আইএমও এবং আর্মি সক্রিয় হওয়ার পর স্থানীয়দের ধর্ষন প্রবণতা কিছুটা কমে কমে গেছে। তবে ইয়াবা পাচার বেড়েছে। এটাই এখন অধিকাংশ সহিংসতার কারন।”

মোতালেব  বলেন,  “আর্মির সহায়তায় বেশ কিছু ইয়াবা পাচারকারীকে আটক করেছি আমরা (রোহিঙ্গা নেতা ও সেচ্ছাসেবী)। তবে যারা গডফাদার, তাদের আমরা ধরতে পারি না। যারা ‘বহনকারী’, শুধু তারাই ধরা পরে।”

তাঁর দাবি,  “অপরাধীদের বস এবং লিডার হচ্ছে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা, যারা রোহিঙ্গাদের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে তাদের ব্যবহার করে। রোহিঙ্গাও কিছু টাকার আশায় অপরাধে জড়ায়।”

“এই রোহিঙ্গা নেতা দাবি, আমরা ডাকলে পুলিশ আসে। ডাকাতি বা ধর্ষন করে অপরাধীরা যখন নিরাপদে চলে যায়, তারপর পুলিশ আসে। তারা তদন্ত বা তথ্য যাচাইবাছাই করে চলে যায়। কখনো যার কোনো সুফল আমরা পাইনি।”

আরসা (আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি) প্রসঙ্গ মোতালেব বলেন, “আরসার ব্যাপারে আমি আগেও বলেছি, তাদের ব্যানার ছাড়া বাস্তবিক কোনো মানুষ আমরা (লেদা ক্যাম্পের বাসিন্দারা) কখনো দেখিনি। অন্য এলাকা থেকে মংডুতে আসা বার্মিজ সেনারা রোহিঙ্গা মনে করে হিন্দুদেরও মেরে ফেলেছে। পরে যখন জেনেছে তারা হিন্দু, তখন এই হত্যার দায়্ও আরসার ওপর চাপিয়েছে।”

“এ জাতীয় ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে একটি মগ রাজ্য প্রতিষ্ঠার জন্য মিয়ানমারের রাখাইন থেকে রোহিঙ্গাদের বিতাড়িত করা হয়েছে.” দাবি তাঁর। 

মোতালেব বলেন, “ওখানে জুলুম এখনও (আগস্ট, ২০১৮) কমে নাই। তারা (বার্মিজ সেনাবাহিনী) বড় আকারে জুলুম না করলেও ভিতরে ভিতরে কৌশলগত জুলুম চলছে।”

প্রায় ১৭ বছর আগে বাংলাদেশে আসা এই রোহিঙ্গা নেতার অনেক আত্বীয় এখনো মিয়ানমারে আছেন। তাঁর মতে, রাখাইনের রাজধানী শিত্তুই বা আকিয়াব, রাথিডং, মংডুসহ পুরো রাজ্যের ১৭টি ‘টাউনশিপে’ এখনও চার লক্ষাধিক রোহিঙ্গা আছে। তবে এর সংখ্যা পাঁচ লাখের কম।

২০১২ সাল থেকে এখন অবধি শুধুমাত্র বাংলাদেশেই এসেছে ১২ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা। এছাড়া মালয়শিয়া, ভারত এবং পাকিস্তানেও পাড়ি জমিয়েছে অনেকে, জানান তিনি। 


সর্বশেষ

আরও খবর

২০৪১ সালের মধ্যে শাসন ব্যবস্থা বিকেন্দ্রায়িত হবে: প্রধানমন্ত্রী

২০৪১ সালের মধ্যে শাসন ব্যবস্থা বিকেন্দ্রায়িত হবে: প্রধানমন্ত্রী


কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত থেকে ৬ জনের মরদেহ উদ্ধার

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত থেকে ৬ জনের মরদেহ উদ্ধার


৩ হত্যা মামলার আসামি আ.লিগের সাবেক এমপি রানা জামিনে মুক্ত

৩ হত্যা মামলার আসামি আ.লিগের সাবেক এমপি রানা জামিনে মুক্ত


খিলগাঁও-প্রগতি সরণিতে রিকশাচালকদের বিক্ষোভ, চরম দুর্ভোগ

খিলগাঁও-প্রগতি সরণিতে রিকশাচালকদের বিক্ষোভ, চরম দুর্ভোগ


রাজধানীতে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১

রাজধানীতে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১


সায়মাকে ধর্ষণ ও হত্যার দায় স্বীকার করে হারুনের জবানবন্দি

সায়মাকে ধর্ষণ ও হত্যার দায় স্বীকার করে হারুনের জবানবন্দি


উন্নয়ন চাইলে গ্যাসের দাম মেনে নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

উন্নয়ন চাইলে গ্যাসের দাম মেনে নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী


রিকশা বন্ধের প্রতিবাদে রিকশাচালকদের অবরোধ

রিকশা বন্ধের প্রতিবাদে রিকশাচালকদের অবরোধ


সায়মাকে ধর্ষণের রোমহর্ষক বর্ণনা

সায়মাকে ধর্ষণের রোমহর্ষক বর্ণনা


চট্টগ্রামে ধর্ষণ মামলার আসামির মরদেহ উদ্ধার

চট্টগ্রামে ধর্ষণ মামলার আসামির মরদেহ উদ্ধার