Friday, June 28th, 2019
চাটা লিমিটেড কোম্পানি
June 28th, 2019 at 9:34 pm
চাটা লিমিটেড কোম্পানি

মাসকাওয়াথআহসান: একটি ভয়াবহ রেল দুর্ঘটনার পর দেখা যায়, যে ব্রিজ ভেঙ্গে ট্রেনের কয়েকটি বগি ধানক্ষেতে লুটিয়ে পড়েছে; সেই ব্রিজের ওপরের রেল লাইনে বেশ কিছু স্লিপার আর তাতে নাট লাগানো নেই।

রেলমন্ত্রী এই দুর্ঘটনার খবর শুনে বলেন, সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকায় সব যাত্রী হুড়মুড় করে ট্রেনে চড়েছে। অতিরিক্ত যাত্রীর চাপেই এই দুর্ঘটনা।

চাটা লিমিটেড কোম্পানি (সিএলসি)-র জাস্টিফিকেশান মার্কেটিং প্রধান রেলমন্ত্রীকে ফোন করেন, মন্ত্রী মহোদয়, ভীড়ের চাপে ট্রেন দুর্ঘটনা ব্যাপারটা জাস্টিফিকেশান হিসেবে ঠিক মানাচ্ছে না। আপনি এক কাজ করুন, আপনি বলটা বৃটিশদের কোটে ছুঁড়ে দিন।

রেলমন্ত্রী মিডিয়াকে জানান, আসলে ওটা বৃটিশ আমলের অনেক প্রাচীন কালভার্ট;ব্রিজ বলা চলে না ঠিক।

সিএলসি’র সোশাল মিডিয়া উইং-এর লোকেরা সুর তোলে, বৃটিশদের কারণেই এই দুর্ঘটনা।

সিএলসি’র টাইম মেশিন ইউনিটের প্রধান রেল মন্ত্রীকে ফোন করে বলেন, পাবলিককে টাইম মেশিনে চড়িয়ে অতীতেই যখন নিয়ে যাচ্ছেন; তখন বিএনপির আমলে নিয়ে যান না কেন।

রেলমন্ত্রী তখন মিডিয়াকে বলেন, বিএনপি রেল সেক্টরটা একেবারে ধসিয়ে দিয়েছে।

সিএলসির সোশাল মিডিয়া উইং-এর লোকেরা সুর তোলে, এইটা পাকি ষড়যন্ত্র। পরাজিত শত্রুরা রেল সেক্টরটাকে ঘুণপোকার মতো খেয়েছে ভেতর থেকে।

এমন সময় নির্দেশ আসে, উদ্ধার কাজ বিকেল পাঁচটার মধ্যে শেষ করুন। খেলা আছে না!

সিএলসির সোশাল মিডিয়া উইং তখন বালিশ মাথায় দিয়ে ক্রিকেট খেলার ধারাভাষ্য দিতে শুরু করে।

সাধারণ মানুষ প্রশ্ন তোলে, রেল সেক্টরের উন্নতির জন্য যে ৫৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছিলো; তা কোথায় গেলো!

সিএলসির সোশাল মিডিয়া উইং তখন বলে, আপনার গর্ব হয়না যে আমরা অলরাউন্ডার সাকিবের যুগে বেঁচেছিলাম।

সিএলসির চাড্ডি উইং এর প্রধান বলে, এদের যত গর্ব পাকি ক্রিকেটারদের নিয়ে। বাংলাদেশের শুভাকাংক্ষী তো এরা নয়। অরণ্যে রোদন করে লাভ নেই। এদের পাকিস্তান পাঠিয়ে দিন।

সাধারণ মানুষ বিভিন্ন দেশের রেলপথ নির্মাণের খরচের তুলনামূলক আলোচনা করে। ভারত-পাকিস্তান এমনকী ইউরোপের তুলনায় রেলপথ নির্মাণ ব্যয় অস্বাভাবিক রকমের বেশি এই দেশে। সব খেয়ে নিচ্ছে চাটার দল।

সিএলসির ছাগু উইং-এর প্রধান ধমক দিয়ে বলে, ভালো আছেন, আল্লাহর শোকর গোজার করেন। বেসবর লোকেরা। সবুর করুন। এগো বকবকানিতে মুশফিক ভাইয়ার ব্যাটিং দেখতে অসুবিধা হচ্ছে। খামোশ।

লোকজন আলোচনা করে, খালি রেললাইনে নাট বল্টু খোলা না; এদের মাথার নাট-বল্টুও হারিয়ে গেছে।

বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ মোশাররফ করিম বলেন, ফইন্নির ঘরের ফইন্নির অর্থনীতিতে ঠিক কত টাকা হলে একজন মানুষের জীবন চলে যায়; এটা বুঝতে পারে না সিএলসির ফইন্নির পুতেরা। এরা বুফেতে খেতে গিয়েও প্লেট উঁচু করে খাবার নেয়। কতটুকু খেতে পারবে তা ঠিক বুঝতে না পারায় এটা ঘটে।

রেল-দুর্ঘটনায় নিহত লাশগুলো আর আহতদের আর্তনাদ চাপা পড়ে যায়; ক্রিকেটের জশনে জুলুছের হৈ চৈ-এর নীচে।

সাধারণ মানুষ অপেক্ষা করে, খেলাটা শেষ হলে নিশ্চয়ই সবাই একটু মনোযোগ দেবে রেল দুর্ঘটনার ভাগ্যহতদের দিকে।

কিন্তু খেলা শেষ হবার পর চাড্ডি উইং শুরু করে একটি ছবি বিশ্লেষণ। লন্ডনে খেলার মাঠের পাশে জাতীয় পতাকাকে জায়নামাজ বানিয়ে নামাজ পড়ার ছবিটি ভাইরাল করে তারা বলে, প্রাণের পতাকা-অনুভূতিতে এ আঘাত সহনীয় নয়।

ছাগু উইং এসে বলে, মানুষ পতাকাকে নামাজের জায়নামাজ বানালে; পতাকার মর্যাদা বাড়ে। অযথা ক্রিকেটের বিজয় মিছিলে বাগড়া দেবেন না।

সিএলসি-র প্রশমন বিভাগের লোকেরা বলে, ছবিটা ফটোশপ; লাল রঙ পরে লাগাইছে দেখেন ভাই।

কে একজন বলে, বিভিন্ন উন্নত দেশে পতাকার ডিজাইনে ব্রা-স্যান্ডেলও বানায়। তাদের এতো পতাকা-অনুভূতি নাই। কিন্তু সেইখানে একটা রেল-দুর্ঘটনা হলে রেল-মন্ত্রী পদত্যাগ করে।

সিএলসির মূল্যবোধ ও ঐতিহ্য বিভাগের প্রধান বলেন, ওদের মূল্যবোধ আর ঐতিহ্যের মতো এতোটা অশ্লীল আমরা কিছুতেই হতে পারি না। পদ ও পতাকা নিয়ে আমাদের অনুভূতি জগত সেরা।

একটি অস্ফুট কন্ঠস্বর ভেসে আসে ব্রিজ ভেঙ্গে পড়ে যাওয়া ট্রেনের 
ধ্বংসাবশেষ থেকে। একটি শিশু জিজ্ঞেস করছে, আমার মায়ের শরীরটা খুঁজে পেয়েছি; আপনারা কেউ আমার মায়ের মাথাটা খুঁজে দিতে পারেন?

মাসকাওয়াথ আহসান
মাসকাওয়াথ আহসান: ব্লগার ও প্রবাসী সাংবাদিক

সর্বশেষ

আরও খবর

কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের জামিন মঞ্জুর

কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের জামিন মঞ্জুর


নাচ ধারাপাত নাচ!

নাচ ধারাপাত নাচ!


একদিনেই সড়কে ঝড়ল ১৯ প্রাণ

একদিনেই সড়কে ঝড়ল ১৯ প্রাণ


শাহবাগে মশাল মিছিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, আটক ৩

শাহবাগে মশাল মিছিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, আটক ৩


ক্রোকোডাইল ফার্ম

ক্রোকোডাইল ফার্ম


সৈয়দ আবুল মকসুদঃ মৃত জোনাকির থমথমে চোখ

সৈয়দ আবুল মকসুদঃ মৃত জোনাকির থমথমে চোখ


গুলিবিদ্ধ সাংবাদিক মারা যাওয়ার ৬০ ঘন্টা পরে পরিবারের মামলা

গুলিবিদ্ধ সাংবাদিক মারা যাওয়ার ৬০ ঘন্টা পরে পরিবারের মামলা


করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩২৭

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩২৭


নামাজ পড়ানোর সময় সিজদারত অবস্থায় ইমামের মৃত্যু

নামাজ পড়ানোর সময় সিজদারত অবস্থায় ইমামের মৃত্যু


ভাষার বৈচিত্র্য ধরে রাখার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ভাষার বৈচিত্র্য ধরে রাখার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর