Tuesday, August 23rd, 2016
‘চাল বেচে সিমেন্ট দিনু, তাহো কামখান ভাল করলে নাই’
August 23rd, 2016 at 2:20 pm
‘চাল বেচে সিমেন্ট দিনু, তাহো কামখান ভাল করলে নাই’

পঞ্চগড়: ‘খাবার চাল বেচে ঠিকাদারকে পাথর সিমেন্ট কিনে দিনু তাহো কামখান ভাল করলে নাই’ নতুন বাংলাদেশি হিসেবে জীবনের প্রথম পাওয়া সরকারি অনুদানে স্বাস্থ্য পায়খানার জন্য খাবার চাল বিক্রি করে সিমেন্ট, পাথর ও পাইপ কিনে দিলেও নিম্নমানের কাজ করায় তা দু’দিনেই ভেঙে পড়ায় ক্ষোভে কথাগুলো বলছিলেন পঞ্চগড়ের সাবেক পুটিমারী ও বর্তমান বীরমুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম নগরের বাসিন্দা মিন্টু মিয়া (৩৮)। সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা নির্মাণ করে দেয়ার কথা থাকলেও মিন্টুর মতো বিলুপ্ত ছিটমহলের বাসিন্দাদের কাছে ইট, পাথর, সিমেন্ট, বালি ও পাইপ কিনে নিয়েও ঠিকাদার অত্যন্ত নিম্নমানের কাজ করেছে বলে অভিযোগ করেছে বিলুপ্ত ওই ছিটমহলের বাসিন্দারা।

স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানাগুলো নির্মাণের সাথে সাথেই ভেঙে পড়ছে। এ বিষয়ে ওই ছিটমহলের নতুন বাংলাদেশি বাসিন্দারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগও দাখিল করেছে।

নতুন বাংলাদেশিরা জানান, ছিটমহল বাংলাদেশের অন্তর্ভূক্ত হওয়ার পর স্থানীয় কিছু নেতারা দৌরাত্ম বেড়ে গেছে। সরকারি কোন সহায়তা আসলে তারা নিজেদের আত্মীয় স্বজন এমনকি টাকার বিনিময়ে বাংলাদেশিদেরও তা প্রদান করে। সরকারি সহায়তায় প্রত্যেক ছিটমহলে স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা বরাদ্দ হলে বিলুপ্ত পুটিমারী ছিটমহলের চেয়ারম্যান তসলিম উদ্দিন ও সেক্রেটারি হবিবর রহমান নাম অন্তর্ভূক্ত করার নামে নতুন বাংলাদেশিদের কাছ থেকে ৫’শ করে টাকা নেয়। যারা টাকা দিতে পারেনি তাদের নামে স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা বরাদ্দ  দেয়া হয়নি।

টাকার বিনিময়ে তসলিম উদ্দিন ও হবিবর তাদের আত্মীয় স্বজন ও কিছু বাংলাদেশীদের নামে ছিটমহলের নামে আসা স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা বরাদ্দ দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছে নতুন বাংলাদেশিরা। আবার যেসব নতুন বাংলাদেশিদের নামে স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে তাদের কাছ থেকেই ইট, পাথর, বালি, পাইপ ও মজুরি নিয়েও অত্যন্ত নিম্নমানের কাজ করেছে ঠিকাদার। ওই ছিটমহলে ৪০ টি স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা নির্মাণের কয়েক দিনের মাথায় পায়খানাগুলোর ইট, বালু ধ্বসে পড়তে শুরু করেছে। এমনিতেই ভেঙে পড়েছে পিলারগুলো। এ ঘটনায় এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি  হয়েছে।

জানা যায়, ছিটমহলবাসিদের জন্য এডিবির বিশেষ বরাদ্দ ও জন স্বাস্থ্য ও প্রকৌশল অধিদপ্তরে মাধ্যমে  প্রায় ৬ লক্ষ টাকায় ওই বিলুপ্ত ছিটমহলে স্যানিটেশনের জন্য ৪০টি স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা নির্মাণের কাজ শুরু হয়। এর মধ্যে এলজিইডির এডিবির বিশেষ টেন্ডারের মাধ্যমে ৩০টি ও জনস্বাস্থ্য ও প্রকৌশল অধিদপ্তর ১০টি  প্রকল্প অনুযায়ী প্রতিটি স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানায় ১১ হাজার থেকে ১৪ হাজার টাকা পর্যন্ত  বরাদ্দ থাকলেও কোন নির্মানেই তা খরচ করা হয়নি। ঠিকাদার তাদের শুধুমাত্র ১টি প্যান, ৪টি রিং এবং  ৪টি খুঁটি দিয়েছে। যেসব স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা  তৈরি করা হয়েছে তাতে ২ হাজারের বেশি খরচ করা হয়নি বলে জানিয়েছে বাসিন্দারা। আশরাফুল ইসলাম নামে ঠাকুরগাঁয়ের এক ঠিকাদার কাজটি বাস্তবায়ন করছেন বলে জানা গেছে। তবে তার বিভিন্নভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

সাবেক ওই ছিটমহলের বানু আক্তার (২৫) জানান, আমি মিলে কাজ করে খাই। নেতাদের ৫’শ টাকা দিয়ে জীবনের প্রথম একটা সরকারি অনুদান পেলাম। সেখানে আমরাই আবার সবকিছু কিনে দিলাম। তারপরও ঠিকাদার এতো নিম্নমানের কাজ করেছে যে নির্মাণের দিনই খুঁটি ও পলেস্তারা  ভেঙে গেছে। আমরা গরিব মানুষ তাই ওরা আমাদের ঠকিয়েছে।

ছিটমহল আন্দোলনের নেতা আলিমুল ইসলাম (৬০) জানান, ছিটমহলের সাবেক চেয়ারম্যান তসলিম উদ্দিন ও সেক্রেটারি হবিবর রহমান সরকারি অনুদান আসলেই প্রকৃত ছিটমহলের বাসিন্দাদের বাদ দিয়ে নিজেদের আত্মীয় স্বজন ও বাংলাদেশীদের নামে বরাদ্দ দিচ্ছে। শুনেছি প্রতিটি স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা নির্মাণে বরাদ্দ রয়েছে ১৪ হাজার টাকা। কিন্তু এগুলোতে ঠিকাদার ২ হাজার টাকাও খরচ করেনি। তাই বাতাসেই ভেঙে পড়ছে।

ক্ষোভ প্রকাশ করে ওই ছিটমহলের বাসিন্দা ইয়াকুব আলী (৪৫) জানান, আমার নামে একটি পায়খানা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। কিন্তু ঠিকাদার  বললো সরকারি বিধি মোতাবেক আমাকে ইট, পাথর, বালি, সিমেন্ট ও পাইপ কিনে দিতে হবে। আমি গরিব মানুষ তাদের কথামতো জিনিসগুলো কিনে দিতে পারিনি বলে আমার পায়খানার কাজ করেনি ঠিকাদার। ৬৮ বছরে প্রথম এই সরকারি সহায়তায় আবার আমাদেরকেই ইট সুরকি কিনে দিতে হবে। এটা আমাদের সাহায্য করা না উপহাস করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওই ছিটমহলের চেয়ারম্যান তসলিম উদ্দিন কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

বোদা উপজেলা এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল মালেক মন্ডল বিলুপ্ত পুটিমারী ছিটমহলের বিশেষ টেন্ডারের ফাইলগুলো দেখাতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এমনকি বরাদ্দের কোন তথ্য নিজের কাছে নেই বলে জানান।

বোদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু আউয়াল জানান, স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা নির্মাণে ত্রুটির বিষয়ে নতুন বাংলাদেশিরা আমাকে একটি অভিযোগ দিয়েছে। আমি বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো। যদি কাজের মান খারাপ হয় তবে তাদের দ্বারা পুনরায় কাজ করে নেয়া হবে। তবে স্থানীয় চেয়ারম্যান যদি ছিটমহলবাসিদের জন্য আসা সরকারি বরাদ্দ যদি বিলুপ্ত ছিটমহলের বাসিন্দাদের বাদ দিয়ে অন্য কারো নামে বরাদ্দ দিয়ে থাকে সে দায় আমরা নিবো না।

প্রতিবেদন: মো. লুৎফর রহমান, সম্পাদনা: মাহতাব শফি


সর্বশেষ

আরও খবর

অতিরিক্ত মূল্যে আলু বিক্রির দায়ে বরিশালে চার ব্যবসায়ীকে জরিমানা

অতিরিক্ত মূল্যে আলু বিক্রির দায়ে বরিশালে চার ব্যবসায়ীকে জরিমানা


শিশু ধর্ষণের মামলায় দ্রুততম রায়ে আসামির যাবজ্জীবন

শিশু ধর্ষণের মামলায় দ্রুততম রায়ে আসামির যাবজ্জীবন


জাতীয় পার্টির ‘ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন’ বিরোধী সমাবেশ

জাতীয় পার্টির ‘ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন’ বিরোধী সমাবেশ


চোরের চিরকুট!

চোরের চিরকুট!


সিলেটে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান হত্যার প্রতিবাদে লন্ডনে ‘আমরা সিলেট বাসীর’ মানব বন্ধন

সিলেটে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান হত্যার প্রতিবাদে লন্ডনে ‘আমরা সিলেট বাসীর’ মানব বন্ধন


গালিগালাজের ভয়েস নিজের না দাবি নিক্সন চৌধুরীর

গালিগালাজের ভয়েস নিজের না দাবি নিক্সন চৌধুরীর


এমসি কলেজে ধর্ষণের ঘটনায় চারজনের ছাত্রত্ব বাতিল

এমসি কলেজে ধর্ষণের ঘটনায় চারজনের ছাত্রত্ব বাতিল


মধ্যরাতে গৃহিণীকে তুলে নিয়ে দলবেঁধে ধর্ষণ, আটক ৮

মধ্যরাতে গৃহিণীকে তুলে নিয়ে দলবেঁধে ধর্ষণ, আটক ৮


নোয়াখালীতে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৪

নোয়াখালীতে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৪


কিশোরগঞ্জে রিভলবারসহ আ.লীগ নেতার ছেলে আটক

কিশোরগঞ্জে রিভলবারসহ আ.লীগ নেতার ছেলে আটক