Thursday, September 8th, 2016
‘জিয়া আর্মি রুলস ভঙ্গকারী অবৈধ দখলদার’
September 8th, 2016 at 7:13 pm
‘জিয়া আর্মি রুলস ভঙ্গকারী অবৈধ দখলদার’

ঢাকা: বিচারক অপসারণ সংক্রান্ত সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণার রায়ে হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চের কনিষ্ঠ বিচারক মোহম্মদ আশরাফুল কামাল দুই বিচারপতির রায়ের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে যে অভিমত দিয়েছিলেন তা বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়েছে।

এর আগে গত ১১ আগস্ট বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারক বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী  ও বিচারপতি কাজী রেজাউল হকের দেয়া পূর্ণাঙ্গ রায়টি প্রকাশ করা হয়।

রায়ে বলা হয়েছে, বলতে দ্বিধা নেই, ষোড়শ সংশোধনী একটি কালারেবল লেজিসলেশন (কোনো কাজ সংবিধানের মধ্যে থেকে করার সুযোগ না থাকলে আইনসভা যখন ছদ্ম আবরণে ভিন্ন প্রয়োজনের যুক্তি দেখিয়ে একটি আইন তৈরি করে), যা রাষ্ট্রের নির্বাহী বিভাগ, আইন সভা থেকে বিচার বিভাগের পৃথকীকরণ নীতির লংঘন।

এটা সংবিধানের দুটি মূল কাঠামো ৯৪(৪) ও ১৪৭(২) অনুচ্ছেদেরও লংঘন। একইসঙ্গে সংবিধানের ৭(বি) অনুচ্ছেদকেও আঘাত করে। রায়ে বলা হয়, ষোড়শ সংশোধনী আইন-২০১৪ কালারেবল, এটি বাতিল এবং সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ঘোষণা করা হলো।

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ঘোষণা করা রায়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি মরহুম জিয়াউর রহমানকে ‘একজন আর্মি রুলস ভঙ্গকারী অবৈধ দখলদার রাষ্ট্রপতি’ বলে উল্লেখ করেছেন হাই কোর্টের একজন বিচারপতি।

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপিতে দ্বিমত পোষণকারী বিচারপতি মো. আশরাফুল কামাল এমন মতামত উল্লেখ করে রায় লিখেছেন।

গত ৫ মে হাই কোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী, বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত বিশেষ বৃহত্তর বেঞ্চের সংখ্যাগরিষ্ঠ মতের ভিত্তিতে এই রায় ঘোষণা করেন। এতে বিচারপতি আশরাফুল কামাল ভিন্নমত পোষণ করেন।

গত ১১ আগস্ট দুই বিচারপতির পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর বাকি বিচারপতির রায় প্রকাশ হলে একসঙ্গে দেখে এই রায়ের বিরুদ্ধে নিয়মিত আপিলের সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা জানিয়েছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর বিচারপতি অপসারণের ক্ষমতা সংসদের কাছে ফিরিয়ে নিতে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আনা হয়। বিলটি পাসের পর ২২ সেপ্টেম্বর তা গেজেট আকারে প্রকাশিত হয়।

সংবিধানের এ সংশোধনীর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ওই বছরের ৫ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের নয়জন আইনজীবী হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। এ রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০১৪ সালের ৯ নভেম্বর এ সংশোধনী কেন অবৈধ, বাতিল ও সংবিধান পরিপন্থী ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

গত বছরের ১০ মার্চ এ রুলের শুনানি শেষে ০৫ মে রায় দেন হাইকোর্ট। এর মধ্যে ২৫ এপ্রিল অসদাচারণের জন্য সুপ্রিম কোর্টের কোনো বিচারকের বিরুদ্ধে তদন্ত ও তাকে অপসারণের প্রক্রিয়া নির্ধারণ করে ‘বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বিচারক (তদন্ত) আইন’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। আদালতে রিট আবেদনকারীদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

এছাড়া অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে শুনানি করেছেন শীর্ষ আইনজীবী ড. কামাল হোসেন, এম আমীর-উল ইসলাম, রোকনউদ্দিন মাহমুদ ও আজমালুল হোসেন কিউসি।

১৯৭২ সালে প্রণীত মূল সংবিধানে উচ্চ আদালতের বিচারপতিদের অপসারণের ক্ষমতা জাতীয় সংসদের কাছে ছিল। ১৯৭৫ সালের ২৪ জানুয়ারি সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনীর মাধ্যমে এ ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির হাতে অর্পণ করা হয়। পরে জিয়াউর রহমানের শাসনামলে সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা দেয়া হয় সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের কাছে।

এই রায়ের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে কনিষ্ঠ বিচারপতি মোহম্মদ আশরাফুল কামাল তার অভিমতে বলেছেন, জাতীয় সংসদ সংবিধানসম্মতভাবেই ষোড়শ সংশোধনী প্রণয়ন করেছে। সংসদ কর্তৃক বিচারপতি অপসারণ প্রক্রিয়া সম্বলিত সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ বিদ্যমান থাকাকালে বিচার বিভাগের সত্যিকার স্বাধীনতা সমুন্নত থাকবে। কারণ ঐ অনুচ্ছেদটি হলো আমাদের মূল সংবিধানের অংশ তথা সংবিধানের মূল কাঠামো।

প্রতিবেদক-  ফজলুল হক, সম্পাদনা- জাহিদুল ইসলাম


সর্বশেষ

আরও খবর

৪২ ও ৪৩তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

৪২ ও ৪৩তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ


করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, ৭৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত

করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, ৭৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত


ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড


মানুষের জন্য কিছু করতে পারাই আমাদের রাজনীতির লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী

মানুষের জন্য কিছু করতে পারাই আমাদের রাজনীতির লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী


আনিসুল হত্যা: মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের রেজিস্ট্রার গ্রেপ্তার

আনিসুল হত্যা: মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের রেজিস্ট্রার গ্রেপ্তার


পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি

পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি


দুইদিনের বিক্ষোভের ডাক বিএনপির

দুইদিনের বিক্ষোভের ডাক বিএনপির


বাস পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী রিমান্ডে

বাস পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী রিমান্ডে


অবশেষে পাঁচ বছর পর নেপালকে হারালো বাংলাদেশ

অবশেষে পাঁচ বছর পর নেপালকে হারালো বাংলাদেশ


মাইন্ড এইড হাসপাতালে তালা, মালিক গ্রেপ্তার

মাইন্ড এইড হাসপাতালে তালা, মালিক গ্রেপ্তার