Monday, August 10th, 2020
দক্ষিণএশিয়ার যেকোন দুটি রাষ্ট্রের সম্পর্কের যোগফল শূন্য
August 10th, 2020 at 12:18 am
দক্ষিণএশিয়ার যেকোন দুটি রাষ্ট্রের সম্পর্কের যোগফল শূন্য

মাসকাওয়াথ আহসান:

গতকাল বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রী “ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের রক্তের সম্পর্ক” বলায় নাগরিকদের মধ্যে বেশ তিক্ত প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। যদিও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঠিকই বলেছেন; দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে গলাগলি-রক্তারক্তি-গলাগলি এমন লোকজ আঙ্গিকের সম্পর্ক। এই অঞ্চলে এক খণ্ড জমির জন্য রক্তীয়রা রক্তীয়দের মাথা ফাটিয়ে ফিনকি দিয়ে রক্ত বের করে দেবার যে ঐতিহ্য; ওটিকেই মাঝে মাঝে মিল মহব্বত করতে দাওয়াত দিয়ে খাওয়ানোর সময় আদর করে রক্তীয় সম্পর্ক বলে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে লুডু খেলা, বিয়েবাড়িতে তরকারিতে লবণ না হওয়া, অন্যের হাঁস গৃহে ঢুকে পড়া ইত্যাদি নানা বিষয়ে নিয়মিত সংঘর্ষ ও রক্তারক্তি হয়। এটা নিয়ে সবাই এটুকু না বুঝে রগড় করে যে, এই ব্রাহ্মণবাড়িয়া আসলে দক্ষিণ এশিয়ার মিনিয়েচার। দক্ষিণ এশিয়ার পররাষ্ট্রনীতি বুঝতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেলটিকে আপনার মাথায় রাখতে হবে। কেবল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার লোক মারকুটে, কেবল নোয়াখালির লোক স্বার্থপর, কেবল বরিশালের লোক কর্কশ, কেবল ঢাকার লোক বাটপার, কেবল পাবনার লোক পাগল, কেবল গোপালগঞ্জের লোক বুবু-পাগল, কেবল বগুড়ার লোক ম্যাডাম-পাগল; ঠিক এমন করে দেখে একটা আত্মতুষ্টি পেতে চাই আমরা।

আসলে তো তা নয়; এই পুরো দক্ষিণ এশিয়াতেই পুষ্টিহীনতার জীনগত আশ্লেষে মস্তিষ্ক বর্ধিত না হবার ব্যাপারটা; জনমানুষ, সমাজ ও রাষ্ট্রের বিকাশকে বনসাই পর্যায়ে রেখে দিয়েছে। এ কারণে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান; এগুলো বনসাই রাষ্ট্র; তা বলাই বাহুল্য।

দুর্নীতি সব দেশেই হয়; কিন্তু দক্ষিণ এশিয়ার লোকের মতো দুর্নীতির রক্তারক্তি কোথাও নেই। কত টাকা চুরি-ডাকাতি করলে ধনী হওয়া যাবে; এটা পরিমাপের ক্ষমতা নেই; দক্ষিণ এশিয়ার মানুষের। চুরি করে ধনী হয়ে ফেসবুকে সেই ধন-সম্পদ প্রদর্শনী করে জনসম্মুখে নিজের চুরি উন্মুক্ত করে দেবার পরেও নিম্ন বুদ্ধাংকের সমাজ সেখানে গিয়ে অভিনন্দন আর তেলের নহর বইয়ে দেয়। এরকম নির্বোধ চোর আর চুরিভক্ত লোকজনের দেখা মিলবে প্রধানতঃ দক্ষিণ এশিয়ায়।

১৯৯৮-৯৯ সালের দিকে হঠাত “ভারত উদয়”-এর উন্মাদনা তৈরি হয়; কল্পনায় ভারত পৃথিবীর ষষ্ঠ পরাশক্তি হয়ে উঠলো; জাতিসংঘে তাকে স্থায়ী সদস্য করা উচিত; এরকম একটি মিডিয়া-মাদকতা দেখা গেলো। এসময় প্রতিদিন ভোরে রেললাইনের ধারে প্রাতঃক্রিয়া সারতো ভারতের বিপুল জনসংখ্যা। কিন্তু বলিউডের হার্ড-বোর্ডের বিশাল সেটে নানান রঙের বাতি জ্বালিয়ে; পশ্চিমা-জগতে ভারত সম্পর্কে নতুন ধারণা তৈরির চেষ্টা করা হলো। কারণ আগে ভারত কাবাডির সর্ষের তেল মাখা পালোয়ান, নাগনাগিনীর খেলার বেদেনি, তেঁতুল গাছের নীচে মফিজ মিয়ার ধন্বন্তরী মলম বিক্রি, বড় জোর ‘কামসূত্রে’র অতিরঞ্জিত যৌন কলা কৈবল্যবহুল এক প্রায় আদিম জনপদ হিসেবে চিত্রিত হতো পশ্চিমা মিডিয়ায়।

সেটা বদলে “কাভি খুশি কাভি গাম’ ফিল্মে প্রাসাদ-হেলিকপ্টার; “দেবদাস” ফিলিম-এ পার্বতীর প্রাসাদ, বিশাল এক নাচঘরে পার্বতী-চন্দ্রমুখীর “মারডালা” নাচ দেখলেই বোঝা যায়; শরতচন্দ্রের উপন্যাস ‘দেবদাস”-এ কীরকম প্রাচুর্যের রঙ মাখানো হয়েছে। আসল ভারতের সঙ্গে কল্পনার ভারতের পার্থক্য স্পষ্ট হয়; বানিয়ে ছানিয়ে নিজেদের বড়লোকির গল্প প্রতিষ্ঠার এই চলচ্চিত্র প্রচেষ্টার মাধ্যমে।

আজ দু’হাজার বিশ সালে চীন-ভিয়েতনামের দিকে তাকালে বোঝা যায়; কোন রকম উদয়ের গল্প না করে কীভাবে সক্ষম রাষ্ট্র হয়ে ওঠা যায়। নিজের সম্পর্কে বড় ধারণা দেয়ার ধাপ্পাবাজিটা দক্ষিণ এশিয়ার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য। পুষ্টিহীনতায় মস্তিষ্ক বর্ধিত না হওয়ায় দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মানুষের কাল্পনিক সাফল্যের গল্পের সঙ্গে বাস্তব সাফল্য কোনদিনই মিলে না।

ফলে বাংলাদেশ-ভারত-পাকিস্তান এগুলো হচ্ছে কাল্পনিক রাষ্ট্র; বাস্তবে নেহাত ব্রাহ্মণবাড়িয়া। এমেরিকা-অস্ট্রেলিয়া-জাপানের নতুন বিশ্ব-অক্ষে ভারত একটি আইটেম নাম্বার মাত্র। একটি চলচ্চিত্রে জুড়ে দেয়া আইটেম নম্বরের গুরুত্ব আমরা সবাই জানি।

আবার চীন-রাশিয়া-ইরান নতুন বিশ্ব-অক্ষে পাকিস্তান নেহাতই একটি মুজরা পার্টনার। ভূ-রাজনৈতিক গুরুত্বের কারণে পাকিস্তানকে একটু প্রশ্রয় দিয়ে সমুদ্র বন্দর, সড়ক পথ এগুলোর নেহাত পাহারাদার এই পাকিস্তান। ব্যবসাটা করছে, চীন-রাশিয়া-ইরান।

সুতরাং ঘুরে ফিরে ভারতের যত মাতবরী দক্ষিণ এশিয়ায়। পাকিস্তানের যত মাতবরী তা ভারতের সঙ্গে। কাশ্মীরের জমি নিয়ে মাথা ফাটাফাটির রক্তীয় এই ভারত-পাকিস্তানের রক্তীয় সম্পর্ক। এদের সাফল্যের তুলনা-প্রতিতুলনা সব নিজেদের মধ্যে। মনে রাখা দরকার দক্ষিণ এশিয়ার মানুষ নিজেদের মধ্যে তুলনামূলক প্রতিযোগিতার জীবন যাপন ছাড়া আর কোন নির্মল জীবনের খোঁজ কখনো পায়নি।

হিন্দু-মুসলমান ছদ্ম বিভাজন দিয়ে দক্ষিণ এশিয়া বিভাগ সম্ভব হলেও; বাংলাদেশের অভ্যন্তরে নোয়াখালি-বরিশাল-উত্তরবঙ্গ-ঢাকা ইত্যাদি যেসব শ্রেষ্ঠত্বের বোধজনিত ভ্রান্তি আছে; একই জিনিস আরো বড় পরিসরে ভারত-পাকিস্তানে রাজ্য ও প্রদেশগুলোর মাঝে রয়েছে। এই সাংস্কৃতিক বিভাজনের যে প্রতিযোগিতা; সেখানে মোদ্দা কথা হচ্ছে; যা নেই; তা নিয়ে প্রতিযোগিতা। সংস্কৃতি দক্ষিণ এশিয়ার ঐ একটাই; মনোমালিন্য-ঝগড়া-মাথা ফাটাফাটি-রক্তারক্তি আবার মিটমাট গলাগলি।

ভারতের আয়তনের বিশালতা; অথচ ব্যক্তিত্বের দুর্বলতা চোখে পড়ার মতো। সে একজন হৃষ্টপুষ্ট বড় দাদা; যারা শরীরে পৃথুলতা; কিন্তু কাজে-কর্মে সক্ষমতা না থাকায় অর্থনৈতিকভাবে অসফল। ফলে এর ছোট ভাইয়েরা চীনের মতো অর্থনৈতিকভাবে সফল রাষ্ট্রের সঙ্গে ব্যবসা-অংশীদারিত্ব গড়ে তুললে; বড় দাদা গোস্বা হয়ে যায়। বিচিত্র এই ব্যর্থ মানস। এই পৃথুল অকর্মণ্য বড় দাদার ছোট ভাইগুলোরও সামর্থ্য দাদার মতোই। প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণ থেকে বড় অবকাঠামো নির্মাণ কোন কিছুর সামর্থ বাংলাদেশ-পাকিস্তান এসব রাষ্ট্রের নেই। আর বড় দাদাটি অকর্মণ্য তাকে দিয়েও এসব কাজ সুরারুরূপে হবার জো নেই। আবার বড় দাদার সাধ যে ছোট ভাইদের এই কাজগুলো সে নিজেই করে দেবে।

এইরকম জিও-পলিটিক্যাল কমেডি পৃথিবীতে আর দেখিনি। এই কারণে ফেসবুকে যখন দেশগুলোর উগ্রজাতীয়তাবাদী লিলিপুটিয়ানদের পরস্পরের তুলনায় শ্রেষ্ঠত্ব জাহির করতে দেখি; বিচিত্র অনুভূতি হয়।

পশ্চিমা দেশগুলোতে এই অপরিমিত আচার-আচরণ আর বাড়িয়ে বলার অভ্যাসের কারণে; দক্ষিণ এশীয়দের সঙ্গে অন্যদেশের লোক খুব একটা মেশেনা। কিন্তু দক্ষিণ এশিয়ার লোক আবার একজন শ্বেতাঙ্গ বন্ধু পেলে অন্যদের জানান দিতে ফেসবুকে তার-সঙ্গে একটি সেলফি পোস্ট করে দেয়। আসলে সে তার রক্তীয় দক্ষিণ এশিয়দের সঙ্গেই ফেসবুক প্রোফাইল প্রতিযোগিতায় লিপ্ত।

বাংলাদেশ-নেপাল-ভুটান-পাকিস্তান-শ্রীলংকা; এসব দেশের লোক বড় দাদা ভারতের “বাড়িয়ে বলা” গল্পের তোড়ে ছোট বেলা থেকে অন্তর্মুখী রয়ে গেছে। ফলে এরা মুখচোরা। এ কারণে পশ্চিমা বিশ্ব এদের পছন্দই করে; যেহেতু মুখ খোলেনি; তাই ইমেজটা ভালো আছে। আর ভারত সেই নেহেরুর যুগের আত্মবিশ্বাসে মুখ খুলে; সর্বত্র ভারত উদয়ের গল্প বলে ও আমার দাদা জমিদার ছিলো; এই পরিচয় দিয়ে পুরো বিশ্বেই হাস্যষ্পদ হয়েছে।

আধুনিক পৃথিবীতে দক্ষিণ এশিয়া অচল। ভারত-পাকিস্তানের কিছুটা ডেটারেন্স ও গুরুত্ব তাদের রয়েছে; এদের পারমানবিক অস্ত্র থাকার দুটি গল্প দিয়ে রাখার কারণে। কিন্তু ভারত-পাকিস্তানের যুদ্ধবিমান নিয়ম করে ভেঙ্গে পড়া ও অন্যান্য কিছু লক্ষণ দেখে সন্দেহ হয়, এগুলোও তাদের ধাপ্পাবাজি।

যা হোক; অযথা ভারতকে এতো বড় শক্তি ভেবে ফেসবুকে শক্তিক্ষয় অপ্রয়োজনীয়। পাকিস্তানের পারমানবিক বোমা থাকার ব্লাফে পাকিস্তান সীমান্তে ‘ফেলানি’ হত্যার সাহস নেই ভারতের। বাংলাদেশ পারমানবিক বোমার ব্লাফটা না দেয়ায়; এখানে সীমান্ত হত্যায় ভারতের লিলিপুট সেনারা রীতিমত বাহুবলি। ওদিকে কিছুদিন আগে চীনের সেনাদের একদিনের হাতুড়ি পিটায় রীতিমতো ঘরে ঢুকে খিল দিয়েছে বড় দাদা।

পরাশক্তি হলে ভারত কখনোই বাংলাদেশের মতো একটি ক্ষুদ্র রাষ্ট্রের কাছে প্রতিদিন সম্পর্কের নিশ্চয়তা চাইতো না। তার সময়ই থাকতো না বাংলাদেশকে নিয়ে ভাবার।

ভারতের সচেতন নাগরিক সমাজ এটা জানেন; যে ভারত সাতটি দশকেও রাষ্ট্র হয়ে উঠতে পারেনি। আর বুদ্ধিবৃত্তিক সাফল্য ও সাংস্কৃতিক উড্ডয়নের গল্পটাও যে খুব কেজো নয়; তা বোঝা গেলো সরাসরি হিন্দুত্ববাদী একটি দলকে ভোট দিয়ে ক্ষমতায় নিয়ে আসা আর গো-মূত্রের মধ্যে নানা রোগের নিদান খোঁজার প্রবণতাগুলোতে। গো-মাতাকে নিয়ে যে মিথ; ঐটিই দক্ষিণ এশীয় বাস্তবতা। তাই দক্ষিণ এশিয়া একটি গো-সভ্যতা। তাই এর রাজনীতি-ধর্ম-সংস্কৃতি-পররাষ্ট্রনীতি-লোকাচার সবকিছুই দিন শেষে গোবর ছোঁড়ার অশ্বমেধযজ্ঞ; যাকে বলা যায় লা-গোবরিনা ফেস্ট।

শূন্যের সঙ্গে শূন্য যোগ করলে শূন্যই হয়। ফলে দক্ষিণ এশিয়ার যে কোন দুটি রাষ্ট্রের সম্পর্কের যোগফল শূন্য।

মাসকাওয়াথ আহসান

সর্বশেষ

আরও খবর

কক্সবাজারের ১৩৪৭ পুলিশ সদস্য বদলি

কক্সবাজারের ১৩৪৭ পুলিশ সদস্য বদলি


করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু

করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু


অর্থনৈতিক কূটনীতি অনুসরণের নির্দেশ শেখ হাসিনার

অর্থনৈতিক কূটনীতি অনুসরণের নির্দেশ শেখ হাসিনার


করোনা সংক্রমন ঠেকাতে ব্রিটিশ সরকারের নতুন আইন লঙ্ঘন করলে সর্বোচ্চ  ১০ হাজার পাউন্ড জরমিানা

করোনা সংক্রমন ঠেকাতে ব্রিটিশ সরকারের নতুন আইন লঙ্ঘন করলে সর্বোচ্চ ১০ হাজার পাউন্ড জরমিানা


সরকারি কেনাকাটায় অস্বাভাবিক দাম নিয়ন্ত্রনে ৬ নির্দেশনা

সরকারি কেনাকাটায় অস্বাভাবিক দাম নিয়ন্ত্রনে ৬ নির্দেশনা


আপাতত লকডাউনের কথা ভাবছে না সরকার

আপাতত লকডাউনের কথা ভাবছে না সরকার


ভূরাজনৈতিক বিরোধে জাতিসংঘকে দুর্বল না করার আহবান প্রধানমন্ত্রীর

ভূরাজনৈতিক বিরোধে জাতিসংঘকে দুর্বল না করার আহবান প্রধানমন্ত্রীর


দেশে করোনায় আরও ৪০ জনের মৃত্যু

দেশে করোনায় আরও ৪০ জনের মৃত্যু


দ্বিতীয় ধাপে করোনা সংক্রমণ রোধে প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

দ্বিতীয় ধাপে করোনা সংক্রমণ রোধে প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর


প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় স্কুলছাত্রীকে হত্যা

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় স্কুলছাত্রীকে হত্যা