Thursday, April 13th, 2017
দুই বছরেও অধরা শ্লীলতাহানির আসামিরা
April 13th, 2017 at 10:41 pm
দুই বছরেও অধরা শ্লীলতাহানির আসামিরা

ঢাকা: দুই বছর পেরিয়ে গেলেও বিচার শুরু হয়নি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের  টিএসসি এলাকায় বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে শ্লীলতাহানির মামলাটির। সার্বজনীন উৎসব পহেলা বৈশাখে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিচার বিলম্বিত হওয়াকে সুস্থ সংস্কৃতির বিকাশের পথে বাধা বলে মনে করছেন অনেকেই।

কড়া নিরাপত্তার মধ্যে গত ২০১৫ সালের পহেলা বৈশাখে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে টিএসসি এলাকায় নারীদের শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় করা মামলার এক মাস পর ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরার ভিডিও থেকে ৮ জনকে শনাক্ত করার কথা জানায় পুলিশ। একই সঙ্গে তাদের ধরিয়ে দিতে এক লাখ টাকা পুরস্কারও ঘোষণা করা হয়।

এক পর্যায়ে মামলার তদন্তভার দেয়া হয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআইকে। ওই ঘটনায় আটজনজড়িত থাকার কথা বললেও মামলায় মো. কামাল নামের এক ব্যক্তিকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট দেয় পিবিআই।

পুরস্কার ঘোষিত সাত আসামির ছবি পাওয়া গেলেও তাদের নাম-ঠিকানা বা অবস্থান শনাক্ত করা বা তাদের খুঁজে বের করতে না পারায় তাদের চার্জশিটে আসামি করা হয়নি। ঘটনার দুই বছর পার হলেও তারা এখন পর্যন্ত অধরাই রয়ে গেছেন। আর মামলার চার্জশিটভুক্ত একমাত্র আসামি কামাল জামিনে আছেন।

চলতি বছরের ২ জানুয়ারি মামলার চার্জশিটটি ঢাকা সিএমএম আদালত থেকে ঢাকার তিন নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারের জন্য আসে। আগামী ২ মে ওই চার্জশিট গ্রহণের বিষয়ে দিন ধার্য রয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল-৩ এর স্পেশাল পিপি মাহমুদা আক্তার জানান, সকলেই চায় আলোচিত ওই ঘটনার বিচার হোক। তাই রাষ্ট্রপক্ষ থেকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে মামলাটি পরিচালনা করা হবে। মামলার তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি হয়েছে কিন্তু আদালত এখনো তা আমলে নেননি।

পিবিআই’র পুলিশ সুপার (এসপি) আহসান হাবিব পলাশ বলেন, ‘বর্ষবরণে শ্লীলতাহানির ঘটনায় একজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দেয়া হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত অপর সাত আসামিকে শনাক্ত করা যায়নি। তাদের শনাক্ত করতে আরো কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তাদের শনাক্ত করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

প্রতিবেদন: প্রীতম, সম্পাদনা: জাহিদ


সর্বশেষ

আরও খবর

হত্যা থামিয়ে রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা দিতে মিয়ানমারকে আইসিজের নির্দেশ

হত্যা থামিয়ে রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা দিতে মিয়ানমারকে আইসিজের নির্দেশ


সাবেক ছাত্রদল নেতা নীরু গ্রেফতার, জেলহাজতে প্রেরণ

সাবেক ছাত্রদল নেতা নীরু গ্রেফতার, জেলহাজতে প্রেরণ


নওগা সিমান্তে বিএসএফ’র গুলি, নিহত ৩ বাংলাদেশি

নওগা সিমান্তে বিএসএফ’র গুলি, নিহত ৩ বাংলাদেশি


বাজারে বেড়েছে চালের দাম

বাজারে বেড়েছে চালের দাম


দুর্নীতিতে সুমালিয়া প্রথম, বাংলাদেশ ১৪তম

দুর্নীতিতে সুমালিয়া প্রথম, বাংলাদেশ ১৪তম


দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ৩.৩ কিলোমিটার

দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ৩.৩ কিলোমিটার


ভোটে কারচুপি হলে জবাব দিবে জনগণঃ ইশরাক

ভোটে কারচুপি হলে জবাব দিবে জনগণঃ ইশরাক


ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে পুলিশ সদস্যের আত্মহত্যা

ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে পুলিশ সদস্যের আত্মহত্যা


১,২৭১ জন মুক্তিযোদ্ধার তথ্য চেয়েছে মন্ত্রণালয়

১,২৭১ জন মুক্তিযোদ্ধার তথ্য চেয়েছে মন্ত্রণালয়


বিচার দাবিতে এখনও অনশনে মুকিমুল!

বিচার দাবিতে এখনও অনশনে মুকিমুল!