Saturday, February 25th, 2017
দেশটাকে পৈত্রিক সম্পত্তি ভাবছে সরকার
February 25th, 2017 at 6:20 pm
দেশটাকে পৈত্রিক সম্পত্তি ভাবছে সরকার

ঢাকা: দেশটাকে পৈত্রিক সম্পত্তি ভাবছে সরকার বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শুক্রবার রাতে নেত্রকোণা জেলাধীন কেন্দুয়া উপজেলা বিএনপির ২৭ নেতাকর্মীর উপর হামলার প্রতিবাদে শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘গায়ের জোরে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসীন হওয়ার পর থেকেই বর্তমান শাসকগোষ্ঠী বিএনপিসহ দেশের সকল বিরোধী দল ও দলীয় নেতাকর্মীদের নিশ্চিহ্ন করতে ধারাবাহিকভাবে হামলা, মামলা, অপহরণ, হত্যা, গুম, খুন এবং নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। দুর্বিনীত দু:শাসনের এক কলঙ্কময় ইতিহাস রচনা করেছে বর্তমান সরকার। দেশটাকে পৈত্রিক সম্পত্তি ভেবে মানুষের বাক-ব্যক্তি স্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক সকল অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা দায়ের করে গ্রেফতারের মাধ্যমে কারান্তরীণ করার নিরন্তর কর্মসূচি বাস্তবায়নই হচ্ছে আওয়ামী সরকারের মূল লক্ষ্য। পাশাপাশি রিমান্ডে নিয়ে অবর্ণনীয় পুলিশি নির্যাতন তো এখন নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। শুক্রবার রাতে নেত্রকোণা জেলাধীন কলমাকান্দা ও কেন্দুয়া উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদেরকে গ্রেফতার এবং স্থানীয় বিএনপি কার্যালয়সহ তিনজন ছাত্রদল নেতার বাসভবন ভাংচুরের ঘটনায় নিন্দা জানানোর ভাষা আমার জানা নেই।’

উল্লেখ্য, শুক্রবার রাতে নেত্রকোণা জেলাধীন কেন্দুয়া উপজেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আউয়াল খান, নেত্রকোণা জেলা ছাত্রদল সাংগঠনিক সম্পাদক ফরিদ আহমেদ, নেত্রকোণা জেলাধীন কলমাকান্দা উপজেলা যুবদল নেতা দিদারুল ইসলাম দিদার, নজরুল ইসলাম, কাউছার আহমেদ, বাবুল আহমেদ, কেন্দুয়া থানা যুবদল যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাসির খন্দকার, যুবদল নেতা মাহবুব হোসেন, ছাত্রদল নেতা মো: ইউসুফ, মো: হীরা, কাঞ্চন, নীরব, সৌরভ, ইলিয়াস, নেত্রকোণা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা সবুজ, বাহারউদ্দিন ও শ্রমিক দল কেন্দুয়া উপজেলা নেতা শামিম হোসেনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এছাড়া পুলিশের সহায়তায় যুবলীগ-ছাত্রলীগের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা কলমাকান্দা ও কেন্দুয়া উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ে ব্যাপক ভাংচুর চালায়। নেত্রকোণা জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ফরিদ হোসেন বাবু, সাধারণ সম্পাদক অনীক মাহবুব চৌধুরী ও কেন্দুয়া উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি শফিকুল ইসলামের বাসভবনে পুলিশ তল্লাশীর নামে ভাংচুর চালায় এবং পরিবারের সদস্যদের সাথে অশালীন আচরণ করে। পুলিশের হামলায় কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল হাসান আরিফ, জেলা ছাত্রদল সভাপতি ফরিদ হোসেন বাবু, সাধারণ সম্পাদক অনীক মাহবুব চৌধুরীসহ আহত হয়েছে ২৭ জন নেতাকর্মী।

নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের পাশাপাশি এধরণের ন্যাক্কারজনক তান্ডবের ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিএনপির এ নেতা। একই সাথে অবিলম্বে নেত্রকোণা জেলাধীন কলমাকান্দা ও কেন্দুয়া উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও প্রতিহিংসা চরিতার্থের মামলা প্রত্যাহার এবং গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের শর্তহীন মুক্তির জোর দাবি জানান।

প্রতিবেদন: শেখ রিয়াল, সম্পাদনা: সজিব ঘোষ


সর্বশেষ

আরও খবর

নির্বাচনী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

নির্বাচনী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু


আবার রক্তক্ষরণ হলে খালেদা জিয়ার মৃত্যুঝুঁকি বাড়বে

আবার রক্তক্ষরণ হলে খালেদা জিয়ার মৃত্যুঝুঁকি বাড়বে


আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত হলেন মেয়র জাহাঙ্গীর

আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত হলেন মেয়র জাহাঙ্গীর


জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে খালেদা জিয়া: মির্জা ফখরুল

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে খালেদা জিয়া: মির্জা ফখরুল


বিএনপি যত খুশি গালি দিক, কিছু করার নেই: আইনমন্ত্রী

বিএনপি যত খুশি গালি দিক, কিছু করার নেই: আইনমন্ত্রী


সিসিইউতে খালেদা জিয়া

সিসিইউতে খালেদা জিয়া


রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি


অপারেশনের পর সুস্থ আছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল

অপারেশনের পর সুস্থ আছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল


হাসপাতালে ভর্তি হলেন খালেদা জিয়া

হাসপাতালে ভর্তি হলেন খালেদা জিয়া


খালেদা জিয়ার মুক্তির আবেদনে মতামত দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়

খালেদা জিয়ার মুক্তির আবেদনে মতামত দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়