Monday, March 18th, 2019
দ্বিতীয় ধাপে ১১৬ উপজেলায় নিরুত্তাপ ভোট গ্রহণ চলছে
March 18th, 2019 at 12:42 pm
দ্বিতীয় ধাপে ১১৬ উপজেলায় নিরুত্তাপ ভোট গ্রহণ চলছে

ঢাকা: উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে ১৬ জেলার ১১৬ উপজেলায় সকাল ৮ টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। চলবে বিকেল চারটা পর্যন্ত। বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০–দলীয় জোটসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও জোট বর্জন করায় এ নির্বাচনও অনেকটা একতরফা হচ্ছে।

ইতিমধ্যেই, দ্বিতীয় ধাপের ২৩টি উপজেলায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে গেছেন। এর মধ্যে ছয়টি উপজেলায় কোনো পদেই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় ভোট নেওয়ার প্রয়োজন হচ্ছে না।

যে ছয়টি উপজেলায় ভোটের প্রয়োজন হচ্ছে না: নওগাঁ সদর, পাবনা সদর, ফরিদপুর সদর, নোয়াখালীর হাতিয়া এবং চট্টগ্রামের রাউজান ও মিরসরাই।

এর বাইরে আরও ১৬টি উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় চেয়ারম্যান পদে ভোট হচ্ছে না। উপজেলাগুলো হচ্ছে: রংপুরের কাউনিয়া, গঙ্গাচড়া; দিনাজপুরের হাকিমপুর, পার্বতীপুর, ঘোড়াঘাট; বগুড়ার আদমদীঘি, শেরপুর; পাবনার সুজানগর; মৌলভীবাজারের সদর; চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড, হাটহাজারী, সন্দ্বীপ, রাঙ্গুনিয়া; কাপ্তাই, লংগদু এবং খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি।

দ্বিতীয় ধাপে চেয়ারম্যান পদে মোট প্রার্থী ৩৭৭ জন। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫৪৮ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪০০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মোট ভোটার ১ কোটি ৭৯ লাখ ৯ হাজার ৬ জন। ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ৭ হাজার ৩৯টি। নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট উপজেলায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

এর আগে এক সপ্তাহ আগে ১০ মার্চ অনুষ্ঠিত প্রথম ধাপের নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল খুব কম। ইসির তথ্য অনুযায়ী, প্রথম ধাপে ভোট পড়ার হার ছিল ৪৩ দশমিক ৩২ শতাংশ। দ্বিতীয় ধাপে ১২৯টি উপজেলায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয় গত ৭ ফেব্রুয়ারি। পরে ঘোষিত তফসিল থেকে গোপালগঞ্জ জেলার পাঁচটি উপজেলার নির্বাচন তৃতীয় ধাপে ও দিনাজপুর সদর উপজেলার নির্বাচন চতুর্থ ধাপে করার সিদ্ধান্ত নেয় ইসি। এ ছাড়া আদালতের রায়ে ইসি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ভোট স্থগিত করেছে।

এদিকে, দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনে নিরাপত্তা দিতে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকাগুলোতে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ ও আনসার সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। পার্বত্য অঞ্চলে রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর মধ্যে বিবদমান পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি ও বান্দরবানের ২৫ উপজেলার ভোটে সেনাসদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

এছাড়া, দ্বিতীয় দফার নির্বাচনী পরিবেশ ঠিক রাখতে শনিবার থেকে মাঠে নেমেছেন ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব, আনসার-ভিডিপি, কোস্টগার্ড, আর্মড পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। ভোটের পরও দু’দিন মাঠে থাকবেন তারা। এ ছাড়া সাধারণ ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রভেদে প্রতিটি কেন্দ্রেই রয়েছে পুলিশ, আনসার, ভিডিপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশ। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে প্রতি এলাকায় দুই থেকে তিন প্লাটুন বিজিবি ও র‌্যাব এবং কোস্টগার্ড, পুলিশ, আর্মড পুলিশ মোতায়েন আছে। এ ছাড়া রিটার্নিং কর্মকর্তার নেতৃত্বে জেলা পর্যায়ে তিন দিনের জন্য মনিটরিং সেল এবং নির্বাচন কমিশনের জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালকের নেতৃত্বে ইসি সচিবালয়ে মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে।

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা: এম কে আর


সর্বশেষ

আরও খবর

স্বপদে ফিরলেন জি এম কাদের

স্বপদে ফিরলেন জি এম কাদের


যাত্রাবাড়ী থানার ওসিসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

যাত্রাবাড়ী থানার ওসিসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা


পুরস্কারের সেই অর্থ পাবে শিশু নাঈম

পুরস্কারের সেই অর্থ পাবে শিশু নাঈম


শীর্ষ পাঁচ বর্ধনশীল অর্থনীতির দেশের তালিকায় বাংলাদেশ: বিশ্ব ব্যাংক

শীর্ষ পাঁচ বর্ধনশীল অর্থনীতির দেশের তালিকায় বাংলাদেশ: বিশ্ব ব্যাংক


কারও সঙ্গে যুদ্ধ করব না, তবে জবাব দেবার প্রস্তুতি থাকতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

কারও সঙ্গে যুদ্ধ করব না, তবে জবাব দেবার প্রস্তুতি থাকতে হবে : প্রধানমন্ত্রী


নিলামে উঠবে গ্রিনলাইনের সব বাস: হাইকোর্ট

নিলামে উঠবে গ্রিনলাইনের সব বাস: হাইকোর্ট


পাটকল শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে আহত ২০

পাটকল শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে আহত ২০


তৃতীয় দিনেও রাস্তায় পাটকল শ্রমিকরা

তৃতীয় দিনেও রাস্তায় পাটকল শ্রমিকরা


খিলগাঁও বাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে, পুড়েছে ৪০টি দোকান

খিলগাঁও বাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে, পুড়েছে ৪০টি দোকান


রমজানে নিত্যপণ্যের দাম না বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

রমজানে নিত্যপণ্যের দাম না বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর