Wednesday, January 15th, 2020
ধর্মদ্রোহে আটক বয়াতী, প্রগতিশীলদের প্রতিবাদ-নিন্দা
January 15th, 2020 at 6:20 pm
“জামাতে ইসলামিকে ঠেকাতে শেখ হাসিনার সরকার এই ভাবে আর এক শ্রেণির মৌলবাদী ইসলামির কাছে মাথা নত করে চলেছে” -আনন্দবাজার
ধর্মদ্রোহে আটক বয়াতী, প্রগতিশীলদের প্রতিবাদ-নিন্দা

বিশেষ প্রতিনিধি,

ঢাকাঃ এক মাদ্রাসা শিক্ষকের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ এক বাউল শিল্পীকে গ্রেফতার করে ধর্মদ্রোহের মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা এবং তারপর আদলতের রিমান্ড মঞ্জুর নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন বাংলাদেশের মুক্তমনারা। তারা বলছেন, মৌলবাদীদের হাতে বাংলাদেশের সুফি-বাউলরা বারে বারে নির্যাতিত হয়েছেন। কিন্তু এ বার যে ভাবে সরকার ও প্রশাসনকে সেই কাজে ব্যবহার করা হয়েছে, এ দেশে তা নজিরবিহীন।

জানা যায়, গত ২৪ ডিসেম্বর ২০১৯ ঢাকার ধামরাই উপজেলায় একটি বাউল গান অনুষ্ঠানে শরিয়ত বয়াতী নামের এই বাউল শিল্পী পালা গানে বলেন, গান বাজনা হারাম কোরআনে কোথাও এ কথা বলা নেই। কেউ যদি হারাম প্রমাণ দিতে পারেন তবে তাকে ৫০ লাখ টাকা দেয়ার চ্যালেঞ্জও করেন তিনি।

ইউটিউবে তার এই বক্তব্য তার নিজ গ্রামের কিছু মানুষ দেখেন। তারা এলাকায় শরিয়ত ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়েছে বলে অভিযোগ আনেন। শরিয়তের বিচারের দাবিতে এলাকায় সমাবেশ ও বিক্ষোভ করেন। গত ৯ জানুয়ারি আগধল্লা গ্রামের মাওলানা মো. ফরিদুল ইসলাম বাদী হয়ে শরিয়তের বিরুদ্ধে মির্জাপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। অভিযোগকারী ফরিদুল ইসলাম পেশায় মির্জাপুরের এক মাদ্রাসা শিক্ষক। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়েরকৃত ওই মামলায় শরিয়তের বিরুদ্ধে ধর্মীয় অনুভূতি বা ধর্মীয় মূল্যবোধের ওপর আঘাতের অপরাধ করার অভিযোগ আনা হয়। এর প্রেক্ষিতে, গত শনিবার পুলিশ শরিয়তকে ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে গ্রেফতার করে। ওই দিনই তাকে টাঙ্গাইল জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ। আদালত তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) রিমান্ড শেষে শরিয়তকে টাঙ্গাইল জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আনা হয়। আদালত তাকে জেলহাজতে পাঠানো আদেশ দেন।

এ দিকে শরিয়ত কারাগারে গেলেও গ্রামে তার পরিবারের লোকজন রয়েছে নিরাপত্তাহীনতায়। ছোট তিন সন্তানের স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেছে। স্থানীয় কিছু লোকজন তাদের প্রতিনিয়ত হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন শরীয়তে স্ত্রী, ভাই ও বোনেরা। শরিয়তের স্ত্রী শিরিন বেগম জানান, তারা সব সময় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। যে চক্রটি শরিয়তের বিরুদ্ধে নানা অপ্রচার ও মামলা করেছে তারা তাদের (শিরিনদের) হুমকি দিচ্ছে। তার ছেলে সাদিকুল ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে। ছোট দুই মেয়ে পড়ে প্রথম শ্রেণিতে। হুমকির মুখে ছেলে-মেয়েরা স্কুলে যেতেও পারছে না।

শরিয়তের আইনজীবী জিনিয়া বক্স জানান, তারা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে শরিয়তের জামিনের আবেদন করেছেন। শরিয়তকে আদালতে হাজির করা হবে এ খবর পেয়ে শতাধিক বাউল এবং শরিয়তের আত্মীয়স্বজন আদালত এলাকায় ভিড় করেন।

শরিয়তের ভাই মারফত আলী জানান, প্রতিবছর তাদের বাড়িতে বাউল গানের আসর হয়। এ গান বন্ধ করার জন্য এ মামলার বাদী মাওলানা ফরিদুল ইসলাম এলাকার কিছু মানুষ সঙ্গে নিয়ে কয়েক বছর যাবৎ হুমকি দিচ্ছে। তারা চাঁদাও চেয়েছিল।

এদিকে শরিয়ত বয়াতীর এই গ্রেফতার ও রিমান্ড নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন বাংলাদেশের মুক্তমনা-বুদ্ধিজীবী মহল।  বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদের পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে ব্যাপক প্রতিবাদ।

জাসদ হাসানুল হক ইনু অবিলম্বে শরিয়তের মুক্তি এবং যে পুলিশ কর্তারা তাঁকে গ্রেফতার করেছে, মৌলবাদীদের সঙ্গে আঁতাঁতের দায়ে তাঁদের অপসারণ দাবি করেছেন। গ্রেফতারের নিন্দা করেছেন  বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির  নেতা ফজলে হোসেন বাদশাও। সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন বাংলাদেশের বহু বিশিষ্ট মানুষ, লেখক, শিল্পী এবং মুক্তমনা সাংস্কৃতিক কর্মী।

শরিয়ত বয়াতীর মুক্তির দাবিতে নায়ারণগঞ্জে মানববন্ধন

এদিকে, বুধবার (১৫ জানুয়ারি) বিকেলে শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে শরিয়ত বয়াতির বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও তার মুক্তির দাবিতে সমাবেশ ও প্রতিবাদী সঙ্গীত পরিবেশন করেছে সচেতন সমাজ। অন্যদিকে, বিকেল ৫টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সামনে শরীয়ত বয়াতীর মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেন বাতিঘরের নাট্যকর্মীরা। এসময় দেখা যায়, কালো কাপড়ে মুখ বেঁধে ব্যানার ফেস্টুন হাতে দাঁড়িয়ে আছেন তারা। তাতে লেখা রয়েছে—‘বাঙালি সংস্কৃতির উপর মৌলবাদী আক্রোশ রুখে দাও’, অন্য একটিতে লেখা, ‘ওরা আমার মুখের ভাষা কাইড়া নিতে চায়।’ এছাড়াও, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় খুলনা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভিন্ন শহরে উদিচীসহ কয়েকটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনে প্রতিবাদী সমাবেশ ও মানববন্ধন হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

অন্যদিকে, ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা শরিয়ত বয়াতীর আটকের বিষয়টিকে ভিন্নভাবে বিশ্লেষণ করেছে। পত্রিকাটি লিখেছে, “জামাতে ইসলামিকে ঠেকাতে শেখ হাসিনার সরকার এই ভাবে আর এক শ্রেণির মৌলবাদী ইসলামির কাছে মাথা নত করে চলেছে। ধর্মদ্রোহের মামলা তুলে নিয়ে অবিলম্বে শরিয়ত বয়াতি নামে এই সুফি ঘরানার বাউল শিল্পীকে মুক্তি দেওয়ার দাবি উঠেছে। ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাতের অভিযোগে বাংলাদেশে ধৃত বাউল শিল্পী শরিয়ত বরাতি। তাঁর বিরুদ্ধে ধর্মদ্রোহের অভিযোগ আনা হয়েছে। যা নিয়ে উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া। নেটিজেনদের অভিযোগ, বাংলাদেশের কট্টরপন্থীরা মুক্তমনাদের উপর হামলা করেই ক্ষান্ত থাকছে না, এবার সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করে সংস্কৃতিমনস্ক মানুষদের জেলে পুরছে।”

এফ.এ.


সর্বশেষ

আরও খবর

করোনাভাইরাসঃ সিঙ্গাপুরে আক্রান্ত এক বাংলাদেশির অবস্থা আশঙ্কাজনক

করোনাভাইরাসঃ সিঙ্গাপুরে আক্রান্ত এক বাংলাদেশির অবস্থা আশঙ্কাজনক


আবারও খালেদার জামিনের আবেদন, রোববার শুনানি

আবারও খালেদার জামিনের আবেদন, রোববার শুনানি


করোনাভাইরাসঃ মৃতের সংখ্যা দুই হাজার ছাড়ালো

করোনাভাইরাসঃ মৃতের সংখ্যা দুই হাজার ছাড়ালো


মুজিববর্ষ নিয়ে চাঁদাবাজি-বাড়াবাড়ি নয়ঃ ওবায়দুল কাদের

মুজিববর্ষ নিয়ে চাঁদাবাজি-বাড়াবাড়ি নয়ঃ ওবায়দুল কাদের


জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল মারা গেছেন

জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল মারা গেছেন


করোনাভাইরাসঃ মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৮৭৩

করোনাভাইরাসঃ মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৮৭৩


করোনাভাইরাসঃ বেড়েই চলেছে মৃত্যুর মিছিল, মৃতের সংখ্যা ১৭৭৫

করোনাভাইরাসঃ বেড়েই চলেছে মৃত্যুর মিছিল, মৃতের সংখ্যা ১৭৭৫


হুদার মামলা থেকে সিনহাকে অব্যাহতি

হুদার মামলা থেকে সিনহাকে অব্যাহতি


করোনাভাইরাসঃ সিঙ্গাপুরে পঞ্চম বাংলাদেশি আক্রান্তের খবর

করোনাভাইরাসঃ সিঙ্গাপুরে পঞ্চম বাংলাদেশি আক্রান্তের খবর


করোনাভাইরাসঃ বিস্তারে শঙ্কিত ডাব্লিউএইচও, ফ্রান্সে প্রথম একজনের মৃত্যু

করোনাভাইরাসঃ বিস্তারে শঙ্কিত ডাব্লিউএইচও, ফ্রান্সে প্রথম একজনের মৃত্যু