Wednesday, January 8th, 2020
‘ধর্ষক’ গ্রেফতার, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি
January 8th, 2020 at 2:11 pm
‘ধর্ষক’ মজনু একজন সিরিয়াল র‌্যাপিস্ট বলেও জানায় র‌্যাব
‘ধর্ষক’ গ্রেফতার, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

আল মাসুদ নয়ন, বিশেষ প্রতিনিধি,

ঢাকাঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত মজনু নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। তার বয়স আনুমানিক ৩০ বছর। তার দেশের বাড়ি সন্দ্বীপ জেলার হাতিয়া উপজেলায়। ‘ধর্ষক’ মজনু একজন সিরিয়াল র‌্যাপিস্ট বলেও জানায় র‌্যাব। 

বুধবার (০৮ জানুয়ারি, ২০২০ইং) রাজধানীর কাওরান বাজারে অবস্থিত র‌্যাবের মিডিয়া উইং সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানায় র‌্যাব।

এদিকে, ছাত্রী ধর্ষণের প্রতিবাদে আজ বুধবারও (০৮ জানুয়ারি, ২০২০ইং) বিক্ষোভ ছড়িয়ে পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায়। সেনানিবাসের কাছে কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে বুধবার সকালেও ক্যাম্পাসজুড়ে নানা কর্মসূচি পালিত হয়।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে

সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, শিক্ষক সংগঠনসহ বিভিন্ন সংগঠনের পাশাপাশি  সোচ্চার হয়ে উঠে সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোও। টিএসসি এলাকায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে অংশ নেয় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণীর পেশাজীবি মানুষ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও এসব কর্মসূচিতে অংশ নেন।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে

মানব বন্ধন এবং সমাবেশে অংশগ্রহণ করা বিক্ষুব্ধরা এই ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। সেই সঙ্গে এই ন্যাক্কারজনক ঘটনা যেন আর না ঘটে, সেই জন্যে প্রশাসনসহ বিভিন্ন মহলের সজাগ দৃষ্টি রাখার জোর আবেদন জানান।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে

অন্যদিকে, ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার করা ব্যক্তি মজনুকে বুধবার বেলা একটার দিকে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে হাজির করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব জানায়, গতকাল মঙ্গলবার সারাদিন সে বনানী স্টেশন এলাকায় অবস্থান করে। পরে ভোর রাত সাড়ে ৪ টার দিকে তাকে শেওরা স্টেশন থেকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে ধর্ষণের শিকার হওয়া ছাত্রীর খোয়া যাওয়া মুঠোফোন ও অন্যান্য সামগ্রী কথিত মজনুর কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। মজনু এসব মোবাইল ফোন, পাওয়ার ব্যাংক এবং অন্যান্য সামগ্রী অরুনা নামের একজন মেয়ের কাছে বিক্রি করেছিল। পরে অরুনা তা আবার অন্য একজনের কাছে বিক্রি করে। পরে অরুনা তা আবার অন্য একজনের কাছে বিক্রি করে।

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার করা ব্যক্তি মজনু

র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন-কাশেম জানান, গ্রেফতার করা ব্যক্তির ছবি ধর্ষণের শিকার ছাত্রীকে বার বার দেখানো হয়েছে। তিনি তাঁকে ‘ধর্ষক’ বলে শনাক্ত করেছেন। ভুক্তভোগী ছাত্রী বলেছেন, “পৃথিবীর সকল মানুষের চেহারা আমি ভুলে যেতে পারি, কিন্তু এই লোককে আমি কোনোদিন ভুলব না। ”

র‌্যাব জানায়, গত ৫ জানুয়ারি ২০২০ইং তারিখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনার শিকার হন। রাজধানীর ক্যান্টনমেন্টন থানায় এ সংক্রান্তে  একটি অজ্ঞাত মামলা করা হয়। তার পর থেকেই এ বিষয়ে অনেক উদ্বিগ্ন ছিল র‌্যাব। পরবর্তীতে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব মেয়েটির মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে, যার মাধ্যমে আরো অপর দুই ব্যাক্তিকে আটক করে র‌্যাব, যাদের কাছে মোবাইলটি বিক্রি করা হয়েছিল। মোবাইল ফোনের সূত্র ধরেই র‌্যাব তাকে প্রথমে আটক করতে সক্ষম হয়।

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার করা ব্যক্তি মজনু

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মজনু ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে বলেও জানায় র‌্যাব। র‌্যাব বলেছে, মজনু স্বীকার করেছে সে সিরিয়াল র‌্যাপিস্ট। সে শেওরা স্টেশন এলাকার নারী ভিক্ষুক, নারী প্রতিবন্ধি ব্যক্তিদের জোড় করে এবং ভয়ভিতি প্রদর্শন করে দীর্ঘদিন ধরে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়ে আসছে। মজনু স্বীকার করেছে যে, ১২ বছর আগে ট্রেন থেকে পরে দিয়ে তার সামনের দুটি দাঁত ভেঙ্গে গেছে। তার বাবা বেঁচে নেই, মা জীবিত। ব্যক্তিগত জীবনে সে বিবাহিত। চার বছর আগে তার স্ত্রী মারা গেছে। মজনু মাদকাসক্ত এবং নিরক্ষর। চুরি, ছিনতাই, রাহাজানি প্রভৃত অপরাধমূলক কার্যক্রমের সঙ্গেও জড়িত বলে স্বীকার করেছে মজনু।

ধর্ষক মজনু
ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার করা ব্যক্তি মজনু

‘ধর্ষক’ মজনুর স্বীকারোক্তি মোতাবেক র‌্যাব জানায়, ধর্ষণের ঘটনায় মজনু একাই ছিল। তার সঙ্গে আর কেউ ছিল না। সে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মেয়েদের ধরে নিয়ে সেখানে আটকে রেখে ধর্ষণ চালিয়ে থাকে। হাতিয়া থেকে জীবিকার টানে প্রায় ১০ বছর আগে সে ঢাকায় আসে।        

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী গত রোববার রাতে কুর্মিটোলা এলাকায় ধর্ষণের শিকার হন। তিনি বান্ধবীর বাসায় যাচ্ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস থেকে কুর্মিটোলা বাস স্টপেজে নামেন তিনি। পরে অন্য যানবাহনের জন্য ফুটপাত ধরে হাঁটছিলেন। হঠাৎ তাঁকে পেছন থেকে মুখ চেপে ধরে ফুটপাতের পাশের ঝোপে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই ধর্ষণের শিকার হন তিনি। পরে ধর্ষণের এই ঘটনায় ছাত্রীর বাবা রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা করেন। আনুষ্ঠানিকভাবে মামলাটির দায়িত্ব ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখাকে (ডিবি) হস্তান্তর করা হয়। মামলার এজাহার গতকাল ঢাকার আদালতে উপস্থাপন করা হয়। আগামী ২৮ জানুয়ারির মধ্যে এ ঘটনার তদন্ত  প্রতিবেদন জমা দিতে গতকালই নির্দেশ দেন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

এএমএন/


সর্বশেষ

আরও খবর

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস: প্রধান বিচারপতির উদ্বেগ, আশ্বাস আইনমন্ত্রীর

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস: প্রধান বিচারপতির উদ্বেগ, আশ্বাস আইনমন্ত্রীর


বিএফইউজের নতুন সভাপতি ফারুক, মহাসচিব দীপ

বিএফইউজের নতুন সভাপতি ফারুক, মহাসচিব দীপ


কালীপূজায় হবে না দীপাবলি!

কালীপূজায় হবে না দীপাবলি!


রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ঠেকাতেই মুহিবুল্লাহকে হত্যা: পুলিশ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ঠেকাতেই মুহিবুল্লাহকে হত্যা: পুলিশ


সহিংসতায় নিহত ৬ রোহিঙ্গা, ইউএন বলছে ৭

সহিংসতায় নিহত ৬ রোহিঙ্গা, ইউএন বলছে ৭


ইকবালকে জেরা করছে পুলিশ, সারাদেশে গ্রেফতার ৫৮৪

ইকবালকে জেরা করছে পুলিশ, সারাদেশে গ্রেফতার ৫৮৪


সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস, সংবিধান এবং আশাজাগানিয়া মুরাদ হাসান

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস, সংবিধান এবং আশাজাগানিয়া মুরাদ হাসান


কুমিল্লার মণ্ডপে কোরআন রাখা ব্যক্তি শনাক্ত

কুমিল্লার মণ্ডপে কোরআন রাখা ব্যক্তি শনাক্ত


কুমিল্লার মূল অভিযুক্ত পালিয়ে বেড়াচ্ছে, দ্রুতই গ্রেপ্তার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কুমিল্লার মূল অভিযুক্ত পালিয়ে বেড়াচ্ছে, দ্রুতই গ্রেপ্তার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী


হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ