Friday, November 4th, 2016
ধর্ষিতা আইএস বন্দীর সন্তান জন্মদান   
November 4th, 2016 at 10:44 pm
ধর্ষিতা আইএস বন্দীর সন্তান জন্মদান   

গোগজালি, ইরাক: উম্মে আলা(ছদ্মনাম) কখনোই তার সন্তানকে তার পিতৃপরিচয় দিতে পারবেন না। কারণ শিশুটির পিতা আইএসের একজন যোদ্ধা এবং মা অর্থাৎ উম্মে আলা সন্ত্রাসী গ্রুপটির হাতে বন্দী থাকার সময় ওই যোদ্ধার দ্বারা ধর্ষিত হয়েছিলেন।সিএনএনের আরওয়া ডেমনের কাছে নিজের জীবনের মর্মান্তিক এবং দুঃখজনক এই ঘটনার কথা বিস্তারিত বর্ণনা করেন তিনি।

বয়স ৪০ হলেও এই বয়সেই নাতি নাতনি নিয়ে বেশ সুখেই ছিলেন উম্মে আলা। কিন্তু দেড় বছর আগে আইএসের হাতে বন্দী হন তিনি। এরপর ধর্ষিতা আলার কোলজুড়ে আসে একটি পুত্র সন্তান।

ইরাকের মসুলে উম্মে আলার বাস। ২০১৪ সালে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএস মসুল দখল করে নেয়ার পর আলাদের প্রতিবেশি পরিবার গ্রুপটিকে সমর্থন দেয়। কিন্তু আলার পরিবার তাদের আনুগত্য স্বীকার করতে অস্বীকৃতি জানায়।

তিনি জানান, আইএস যোদ্ধারা প্রায়ই তার বাড়িতে আসতো এবং সংগঠনটির কাছে আনুগত্য স্বীকারের জন্য হুমকি দিতো। একদিন তারা আলার কন্যাকে বেধড়ক প্রহার করে। তার মাথার স্কার্ফ এবং পরনের পোশাক ছিঁড়ে ফেলে। তারা মেয়েটিকে ধর্ষণ করতে চাইলে দলটির নেতা তাদের বাধা দেয়।   

আলা উল্লেখ করেন, আইএস যোদ্ধাদের সেই নেতা বলেন, আমরা মেয়েটির মাকে চাই। কয়েকদিন পর যখন তিনি বাজারে গিয়েছিলেন তখন তারা আলাকে নিতে আসে। তাকে সন্ত্রাসীদের গাড়িতে ওঠার আদেশ দেয়।

আলা বলছিলেন, সে সময় মনে হচ্ছিল মৃত্যু বুঝি সন্নিকটে। কিন্তু তিনি ভুল ছিলেন। তাকে মেরে ফেলার জন্য নয় বরং দাসী করে রাখার জন্যই নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। দেড় বছর ধরে তিনি বন্দী জীবন যাপন করেন। তার ভাষ্য, ‘তারা আমাকে হত্যা করেনি কিন্তু আমি মৃত মানুষের মতোই ছিলাম।’

বন্দীদশার শেষদিকে আইএসের একজন যোদ্ধা আলাকে প্রহারের পাশাপাশি ধর্ষণ করে।

আইএসের হাতে ধর্ষিতা এবং বন্দী এই নারী বলেন, ‘আমি প্রতিরোধ করার চেষ্টা করেছি, প্রচুর কেঁদেছি। আমাকে অনেক পেটাতো। প্রচণ্ড ব্যথা ছিল। কিন্তু আমি কিছুই করতে পারিনি।’

কিন্তু যখন তিনি আইএস জঙ্গিদের কবল থেকে মুক্ত হন তখন আর তিনি একা নন তার সঙ্গে শিশু সন্তানও রয়েছে। আলা ছেলেটির নাম রাখেন  মুহাম্মদ। তার স্বামীর নামও ছিল মুহাম্মদ। গত মঙ্গলবার মসুলের পূর্ব উপকন্ঠে আইএস যোদ্ধাদের সঙ্গে ইরাকি বাহিনীর যুদ্ধের মাঝখানে তিনি নিহত হন।    

আলা স্বামীর স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘তিনি আমাকে ভালোবাসতেন এবং শ্রদ্ধাও করতেন। এটাই আমার জীবনের সেরা সুখস্মৃতি। আমরা গরীব হলেও সুখী ছিলাম।’

তিনি জানান, তার সন্তান ধর্ষণের ফসল হলেও সে তার সন্তান। তিনি বলেন, ‘আমি তাকে বলবো না কে তার পিতা। সে আমার ছেলে। সে আইএস যোদ্ধার পুত্র নয়।’ সূত্র: সিএনএন

গ্রন্থনা: ফারহানা করিম, সম্পাদনা: জাহিদ

 


সর্বশেষ

আরও খবর

করোনা নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের কবিতা

করোনা নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের কবিতা


আলেমদের ওপর জুলুম আল্লাহ বরদাশত করবেন না: বাবুনগরী

আলেমদের ওপর জুলুম আল্লাহ বরদাশত করবেন না: বাবুনগরী


সকালে কন্যা সন্তানের জন্ম, বিকালেই করোনায় মায়ের মৃত্যু

সকালে কন্যা সন্তানের জন্ম, বিকালেই করোনায় মায়ের মৃত্যু


করোনায় দেশে একদিনে শতাধিক মৃত্যুর রেকর্ড

করোনায় দেশে একদিনে শতাধিক মৃত্যুর রেকর্ড


করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়াল ১০ হাজার

করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়াল ১০ হাজার


জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বের হলেই জরিমানা

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বের হলেই জরিমানা


লকডাউনের নামে সরকার ক্র্যাকডাউন চালাচ্ছে: ফখরুল

লকডাউনের নামে সরকার ক্র্যাকডাউন চালাচ্ছে: ফখরুল


আসামে বন্দী রোহিঙ্গা কিশোরীকে কক্সবাজারে চায় পরিবার

আসামে বন্দী রোহিঙ্গা কিশোরীকে কক্সবাজারে চায় পরিবার


ছয় দিনে নির্যাতিত অর্ধশত সাংবাদিক: মামলা নেই, কাটেনি আতঙ্ক

ছয় দিনে নির্যাতিত অর্ধশত সাংবাদিক: মামলা নেই, কাটেনি আতঙ্ক


ঢাকা-দিল্লি ৫ সমঝোতা স্মারক সই

ঢাকা-দিল্লি ৫ সমঝোতা স্মারক সই