Sunday, September 11th, 2016
নাইন ইলেভেন: টাইম ম্যাগাজিন’র প্রচ্ছদের গল্প
September 11th, 2016 at 6:43 pm
নাইন ইলেভেন: টাইম ম্যাগাজিন’র প্রচ্ছদের গল্প

এস. কে. সিদ্দিকী, ঢাকা: ২০০১ সালের সেপ্টেম্বর মাসের ১১ তারিখ। পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে সম্পূর্ণ অন্য আরেক প্রান্তে এসে ফটোগ্রাফার লায়াল ওয়ের্কো জেটল্যাগে ভুগছিলেন, ঘুম তখন তার জন্য এক দূর্লভ ও অতিপ্রত্যাশিত বিষয়। নিজের এপার্টমেন্টে শুয়ে থাকা অবস্থায় বেশ জোরালো এক শব্দ শুনে হঠাৎ চমকে ওঠা, ক্লান্তিও ভোঁ-দৌড়ে পালায় সাথে সাথে। লায়ালের মনে হচ্ছিলো, কিংকং সিনেমার মতই কোন বিশালদেহী গরিলা একটি যাত্রীবাহী বাস হাতে তুলে নিয়ে কোন আকাশচুম্বী অট্টালিকার দিকে ছুঁড়ে মেরেছে। কোন ভাষাতেই সেই নিউ ইয়র্ক কাঁপানো শব্দের বর্ণনা দিতে পারবেন না তিনি।

লায়ালের ক্যামেরা ও ফটোগ্রাফি’র জন্য আনুষাঙ্গিক যন্ত্রপাতি ভরা ব্যাগটা গোছানোই ছিলো দরজার পাশে, অনুসন্ধানে বের হওয়ার আগে শুধু ব্যাগটা কাঁধে তুলে নেন তিনি। বেরিয়ে যাওয়ার সময় ট্রাইবেকা এপার্টমেন্টের সুপারিন্টেন্ডেন্ট একটি উড়োজাহাজকে একটি দালানের গায়ে এসে আছড়ে পড়তে দেখেছে বলে জানায় লায়ালকে। ব্রডওয়ে ধরে দৌড়ে চেম্বার স্ট্রীট পার হয়ে লায়াল তার ক্যামেরার শাটার চাপা শুরু করেন।

তখনো রাস্তার মানুষজন বেশ স্বাভাবিক ছিলো। লায়ালকে ক্যামেরাসহ হন্তদন্ত হয়ে ছুটতে দেখে তারা জানতে চাইছিলো, কোথায় আগুন লেগেছে?  

তখনো পৃথিবী ব্যাপী চিত্রগ্রাহকরা ডিজিটাল ক্যামেরায় অভ্যস্ত হতে পারে নি; ওয়ের্কো’র কাছে ছিলো একটি ৩৫ মি.মি আর একটি মিডিয়াম ফরম্যাট ফুজি ৬৪৫ যেডআই ফিল্ম ক্যামেরা। ওয়ের্কো তার স্ট্র্যাটেজি ঠিক করে ফেলেন, চারপাশে ঘুরে ঘুরে উৎকৃষ্টতম পার্স্পেক্টিভ খুঁজতে থাকেন। এক দৌড়ে চার্চ স্ট্রীট চলে যান লায়াল, লক্ষ্য একমাত্র আলোক উৎস সূর্যটিকে তার পেছনে রাখা, যাতে করে বিষয়বস্তুর উপর আপতিত আলো প্রতিফলিত হয়ে তার লেন্স ভেদ করে সেলুলয়েডে আঘাত হানতে পারে। পাশাপাশি দু’টি টাওয়ারের একটিতে আগুন, প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত, অপরটি’র কোন ভ্রুক্ষেপ নেই তখনো, ছবিটি তুলেই নিশ্চিত হয়ে যান লায়াল, একটা কভার পাওয়া গেছে।

ঠিক সেই মুহূর্তেই লোকজন চিৎকার করা শুরু করে। টুইন টাওয়ার থেকে লাফ দেয়া শুরু করে মানুষ, হুট করে বেড়ে যায় তাপমাত্রা, মানুষের মনে সঞ্চারিত হতে শুরু করে ভীতি। নিজের কাছে একটা ৪০০ মি.মি লেন্স থাকায় তা ক্যামেরায় লাগিয়ে নিয়ে তিনি জীবনের শেষ মুহূর্তে আসা মানুষগুলোর চিত্রধারণ শুরু করেন। কোন আগাম পূর্বাভাস ছাড়াই দ্বিতীয় আরেকটি প্লেন ধেয়ে আসতে থাকে দালানের দিকে। প্রথমে উদ্ধারকর্মী ভাবলেও দালানের দিকে ধেয়ে আসা প্লেনের বাঁক নেয়া দেখেই লায়ালের আর বুঝতে বাকি থাকে না যে এই প্লেনটির উদ্দেশ্যও ভিন্ন কিছু নয়। সদ্য আফ্রিকা ফেরত ফটোগ্রাফারের কাছে বিষয়টা অনেকটা চিতা বাঘের শিকার ধরার মতন মনে হয়।

time-september

ফুজি ক্যামেরায় দু’বার শাটার চাপেন ওয়ের্কো। উড়োজাহাজটি দালানের গায়ে আছরে পড়া পর্যন্ত অপেক্ষা করছিলেন তিনি। আবার সেই শহর কাঁপানো শব্দ, গরম বাষ্পের ভাপ, আর ঠিক তখনই আবার শাটারে আঙুলের চাপ।

কয়েক সেকেন্ড পর, আবার শাটার চাপার আগ মুহূর্তে শট কম্পোজিশন করার সময় উড়োজাহাজ ও দালানের ভগ্নাংশ বৃষ্টির মতো ঝড়তে শুরু করে; পথচারী, পুলিশ, হকার নির্বিশেষে সবার চিৎকারের রোল ওঠে।

আজ, ১৫ বছর পরও সেই কলঙ্কিত দিনটি ওয়ের্কোর সামনে স্পষ্ট ও জীবন্ত হয়ে ওঠে। তার ভাষায়, ‘মনে হচ্ছিলো আমার শরীরের প্রতেকটি সিন্যাপ্সে সিন্যাপ্সে আগুন জ্বলছিল। আমি যেন এক ত্রিমাত্রিক হলিউড সিনেমার মাঝখানে দাঁড়িয়ে ছিলাম।’

মনমত ছবি পেয়ে যাওয়ায় ব্রডওয়ে ধরে ফিরতে থাকেন লায়াল। প্রথম দালানটি তখনই ধ্বসে পড়ে। ছবি তুলতেই থাকেন ওয়ের্কো। যে স্টুডিও ল্যাবে তিনি ছবিগুলো ডেভলপ করতে দিয়েছিলেন, ছবি ডেলিভারি দেয়ার সময় সেখানকার প্রতিনিধি লায়ালকে বলেছিলেন- ‘তোমার কাছে তো দেখছি টাইম ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ!’ তার কথাই পরবর্তীতে সত্যি হয়েছিল।

সেদিন বিকেলেই টাইম ম্যাগাজিনের ডিওপি’র ডেস্কে তার ছবিগুলো শোভা পেতে থাকে। দুই দিন পরে স্থানীয় পত্রিকার স্টলে গিয়ে টাইমের প্রচ্ছদে ছবিটি দেখে প্রথমে নিশ্চিত হতে পারছিলেন না লায়াল। তাই মলাট খুলে একবার চোখ বুলিয়ে নেন তিনি, প্রচ্ছদে নিজের নাম দেখে নিশ্চিত হন, এটা তারই তোলা ছবি।

এখন আর ছবিটিকে নিজের বলে মনে করেন না ওয়ের্কো, তার ভাষায়, এটা ইতিহাসের মালিকানাধীন। লায়াল ওয়ের্কো একজন ফটোসাংবাদিক এবং পেশাদার আলোকচিত্রী। ৯/১১ দিনে তোলা তার আরো ছবি দেখতে চাইলে উল্টাতে পারেন ‘দি ডে দ্যাট নো বার্ড স্যাং’ বইটির পাতাগুলো।

সূত্র: টাইম ম্যাগাজিন, সম্পাদনা: তুসা


সর্বশেষ

আরও খবর

করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, ৭৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত

করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, ৭৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত


ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড


মানুষের জন্য কিছু করতে পারাই আমাদের রাজনীতির লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী

মানুষের জন্য কিছু করতে পারাই আমাদের রাজনীতির লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী


ব্রিটেনে অবৈধ মাইগ্রেন্ট ঠেকাতে রাইট টু লেট্ অনলাইন চেক পদ্ধতি ২৫ নভেম্বর থেকে নতুন নিয়মে বাড়ী ভাড়া

ব্রিটেনে অবৈধ মাইগ্রেন্ট ঠেকাতে রাইট টু লেট্ অনলাইন চেক পদ্ধতি ২৫ নভেম্বর থেকে নতুন নিয়মে বাড়ী ভাড়া


আনিসুল হত্যা: মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের রেজিস্ট্রার গ্রেপ্তার

আনিসুল হত্যা: মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের রেজিস্ট্রার গ্রেপ্তার


পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি

পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি


দুবাই পাচারকালে হিথ্রো বিমানবন্দরে ১২ লক্ষ পাউন্ড সহ দুই চেকরিপাবলিক নাগরিককে আটক করেছে ব্রিটিশ ইমিগ্রেশন

দুবাই পাচারকালে হিথ্রো বিমানবন্দরে ১২ লক্ষ পাউন্ড সহ দুই চেকরিপাবলিক নাগরিককে আটক করেছে ব্রিটিশ ইমিগ্রেশন


দুইদিনের বিক্ষোভের ডাক বিএনপির

দুইদিনের বিক্ষোভের ডাক বিএনপির


বাস পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী রিমান্ডে

বাস পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী রিমান্ডে


অবশেষে পাঁচ বছর পর নেপালকে হারালো বাংলাদেশ

অবশেষে পাঁচ বছর পর নেপালকে হারালো বাংলাদেশ