Tuesday, October 11th, 2016
নীলিমা ইব্রাহিমের ৯৬তম জন্মদিন
October 11th, 2016 at 10:46 am
নীলিমা ইব্রাহিমের ৯৬তম জন্মদিন

ডেস্ক: স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে এদেশে অসংখ্য নির্যাতিত নারী ও যুদ্ধশিশুদের পুনর্বাসনে অসামান্য  অবদান রাখা মহয়সী নারী একাধারে শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক ও সমাজকর্মী নীলিমা ইব্রাহিমের ৯৬তম জন্মদিন মঙ্গলবার।

১৯২১ সালের ১১ অক্টোবর বাগেরহাট জেলার মুলঘর গ্রামে এক জমিদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। বাবা প্রফুল্ল চন্দ্র রায় ও মা কুসুমকুমারী দেবী তার নাম রেখেছিলেন নীলিমা রায় চৌধুরী। ১৯৪৫ সালে ডা. মোহাম্মদ ইব্রাহিমকে বিয়ে করার পর নীলিমা ইব্রাহিম নামে পরিচিতি পান তিনি।

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে শিক্ষক এবং বাংলা একাডেমির  অবৈতনিক মহাপরিচালক ছিলেন। ১৯৬৮ সালে তিনি বার্লিন, মিউনিখ ও ফ্রাংফুর্টে অনুষ্ঠিত ‘আন্তর্জাতিক বিশ্ব সমবায় সম্মেলন’-এ পূর্ব পাকিস্তান প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন এবং ১৯৭৩-এ নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত ‘আন্তর্জাতিক ওয়ান এশীয় সম্মেলন’-এ অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭৪-এ তিনি মস্কোয় অনুষ্ঠিত ‘বিশ্বশান্তি কংগ্রেস’, হাঙ্গেরিতে অনুষ্ঠিত ‘বিশ্বনারী বর্ষ’ এবং ১৯৭৫-এ মেক্সিকোতে অনুষ্ঠিত ‘বিশ্বনারী সম্মেলন’-এ যোগ দেন। এছাড়া তিনি বহু জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সমাজকল্যাণ ও নারী উন্নয়ন সংস্থা এবং বুদ্ধিবৃত্তিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

নীলিমা ইব্রাহিম বেশকিছু উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ ও প্রবন্ধ রচনা করেছেন। তার রচনাগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ঊনবিংশ শতাব্দীর বাঙালি সমাজ ও বাংলা নাটক (১৯৬৪),বেগম রোকেয়া (১৯৭৪), উপন্যাস বিশ শতকের মেয়ে (১৯৫৮), এক পথ দুই বাঁক (১৯৫৮), কেয়াবন সঞ্চারিণী (১৯৬২), বহ্নিবলয় (১৯৮৫); নাটক দুয়ে দুয়ে চার (১৯৬৪), যে অরণ্যে আলো নেই (১৯৭৪), রোদ জ্বলা বিকেল (১৯৭৪), সূর্যাস্তের পর (১৯৭৪); কথানাট্য আমি বীরাঙ্গনা বলছি (২য় খ- ১৯৯৬-৯৭); অনুবাদ এলিনর রুজভেল্ট (১৯৫৫), কথাশিল্পী জেমস ফেনিমোর কুপার (১৯৬৮), বস্টনের পথে (১৯৬৯); ভ্রমণকাহিনী শাহী এলাকার পথে পথে (১৯৬৩); আত্মজীবনী বিন্দু-বিসর্গ (১৯৯১) ইত্যাদি।

তার রচিত এইসব গ্রন্থগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সাড়া জাগানো রচনা একাত্তরের নির্যাতিত নারীদের নিয়ে লেখা ‘আমি বীরাঙ্গনা বলছি’। সাহিত্যে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি পেয়েছেন রাষ্ট্রীয় একুশে পদক, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, মাইকেল মধুসূদন পুরস্কার, লেখিকা সংঘ পুরস্কার, রোকেয়া পদকসহ অসংখ্য সম্মাননা ও স্বীকৃতিও পেয়েছেন নীলিমা ইব্রাহিম। এই মহীয়সী নারী ২০০২ সালের ১৮ জুন ঢাকায় নিজ বাস-ভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

সম্পাদনা: শিপন আলী


সর্বশেষ

আরও খবর

দ্য ডেইলি হিলারিয়াস বাস্টার্ডস

দ্য ডেইলি হিলারিয়াস বাস্টার্ডস


করোনা নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের কবিতা

করোনা নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের কবিতা


পাথর সময় ও অচেনা বৈশাখ

পাথর সময় ও অচেনা বৈশাখ


৭২-এর ঝর্ণাধারা

৭২-এর ঝর্ণাধারা


বইমেলায় আলতামিশ নাবিলের ‘লেট দেয়ার বি লাইট’

বইমেলায় আলতামিশ নাবিলের ‘লেট দেয়ার বি লাইট’


নাচ ধারাপাত নাচ!

নাচ ধারাপাত নাচ!


ক্রোকোডাইল ফার্ম

ক্রোকোডাইল ফার্ম


সামার অফ সানশাইন

সামার অফ সানশাইন


মুক্তিযুদ্ধে যোগদান

মুক্তিযুদ্ধে যোগদান


স্বাধীনতার ঘোষণা ও অস্থায়ী সরকার গঠন

স্বাধীনতার ঘোষণা ও অস্থায়ী সরকার গঠন