Wednesday, February 6th, 2019
পালিয়ে আসছে মিয়ানমারের চীন রাজ্যের রাখাইন-খুমিরা
February 6th, 2019 at 7:42 am
পালিয়ে আসছে মিয়ানমারের চীন রাজ্যের রাখাইন-খুমিরা

ঢাকা: রাখাইনের পর এবার মিয়ানমারের চীন রাজ্য থেকে শরণার্থী আসতে শুরু করেছে। বান্দরবানের রুমা উপজেলার দূর্গম সীমান্ত পথে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছ রেমাক্রী প্রাংসা ইউনিয়নের দুর্গম চাইক্ষিয়াং পাড়ায় আশ্রয় নিয়েছে রাখাইন ও খুমি সম্প্রদায়ের ৩৫ পরিবারের ১২৪ জন। যাদের মধ্যে ৫৯ জনই শিশু।

ওই পাড়ার একাধিক বাসিন্দার বরাত দিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিউজনেক্সটবিডিকে এ খবর জানান জেলা সদরে বসবাসকারী  কাঠ ব্যবসায়ী মংখ্যাইহ্রি। তিনি বলেন, ‘মিয়ানমার সেনাবাহিনীর গোলাবর্ষণ, আক্রমণ ও নির্যাতনের মুখে প্রাণ বাঁচাতে তাঁরা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।’

মিয়ানমারের প্লাকওয়া এলাকার কান্তালিন পাড়া থেকে ১২টি খুমি এবং খামংওয়া পাড়া থেকে ২৩টি রাখাইন পরিবার পালিয়ে এসেছে। তাঁরা সোমবার সকালে চাইক্ষিয়াং পাড়ায় পৌঁছায় । খোলা আকাশের নীচেই রাত কাটিয়েছে। সরকার বা সাহায্য সংস্থাগুলো মঙ্গলবার বিকেল অবধি তাদের খোঁজ নেয়নি বলেও জানান মংখ্যাইহ্রি।

রাতে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) গণসংযোগ কর্মকর্তা মোহসীন রেজা নিউজনেক্সটবিডিকে বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি এখনও অবগত নই।

এর আগে সন্ধ্যায় রুমা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংথোয়াইচিং মার্মা নিউজনেক্সটবিডিকে জানান, তাঁরা বিষয়টি  শুনলেও নিশ্চিত হতে পারেননি।

‘জায়গাটি এমন, যেখানে সহজে যাওয়া যায় না। তাছাড়া ওই এলাকার অধিকাংশ স্থানে মোবাইল নেটওয়ার্কও দুর্বল। যে কারণে আগামীকালের (বুধবারের) আগে নিশ্চিত তথ্য পাওয়া যাবে না,’ যোগ করেন এই জনপ্রতিনিধি।

রুমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: শামসুল আলম এবং রুমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শরীফুল ইসলামের নম্বর সন্ধ্যা থেকে বন্ধ পাওয়া যাচ্ছ বিধায় এ রিপোর্ট লেখা অবধি (রাত দশটা) তাদের বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। 

তবে প্লাকওয়া এলাকায় বিচ্ছিন্নতাবাদী আরাকান আর্মির সাথে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ব্যাপক সংঘর্ষ চলছে বলে বান্দরবানের স্থানীয় গণমাধ্যম খোলা চোখ ও চেতনানিউজ জানিয়েছে। ‘সীমান্তের এপাড় থেকেও গুলি ও বোমার আওয়াজ শোনা যাচ্ছে বলে চাইক্ষিয়াং পাড়ার বাসিন্দারা জানিয়েছে,’ বলেন মংখ্যাইহ্রি।

এর আগে রবিবার রেমাক্রী-প্রাংসার ইউপি চেয়ারম্যান জিরা বম সাংবাদিকদের জানান, প্লাকওয়ার কান্তালিন, খামংওয়া ও তরোয়াইনে হেলিকপ্টার থেকে নির্বিচারে গুলি ও বোমাবর্ষণ করছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। ওই সব এলাকার খুমি, খেয়াং, বম ও রাখাইন সম্প্রদায়ের প্রায় দুইশ নারী-পুরুষ ও শিশু বাংলাদেশের অনুপ্রবেশের জন্য চাইক্ষিয়াং সীমান্তের ওপারে তিদং এলাকায় জড়ো হয়েছে।

একইদিন বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশের (বিজিবি) বান্দরবান সেক্টরের কমান্ডার কর্নেল জহিরুল ইসলাম স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানান, শরণার্থী অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তের সম্ভাব্য স্থানগুলোতে টহল দল পাঠানো হয়েছে। সেনাবাহিনী ও বিজিবির চারটি টহল দল সীমান্তাঞ্চলে অবস্থান নিয়েছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ সরকারের ভাষ্য অনুযায়ী, কক্সবাজার জেলার চারটি উপজেলায় মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে আসা ১১ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা শরণার্থী বসবাস করছে। যার ৮০ শতাংশ এসেছে ২০১৭ সালের আগস্ট থেকে ডিসেম্বর মাসের মধ্যে।ছবির ক্যাপশন : বান্দরবানে পালিয়ে আসা মিয়ানমারের নাগরিকদের এই ছবিটি সরবরাহ করেছেন জেলা সদরে বসবাসকারী কাঠ ব্যবসায়ী মংখ্যাইহ্রি। তাঁর দাবি এটি সোমবার সকালের রেমাক্রী প্রাংসা ইউনিয়নের দৃশ্য।


সর্বশেষ

আরও খবর

এবারের বিশ্ব ইজতেমা ৪ দিন, ১৫ থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারি

এবারের বিশ্ব ইজতেমা ৪ দিন, ১৫ থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারি


কাজী সালাউদ্দিনকে দুদকের চিঠি

কাজী সালাউদ্দিনকে দুদকের চিঠি


শ্যুটিংয়ের মাইক্রোবাসের চাপায় স্কুলছাত্রীর মৃত্যু

শ্যুটিংয়ের মাইক্রোবাসের চাপায় স্কুলছাত্রীর মৃত্যু


নিউজিল্যান্ড সফরে তাসকিনের বদলি শফিউল-ইবাদত

নিউজিল্যান্ড সফরে তাসকিনের বদলি শফিউল-ইবাদত


পুলিশকে দ্রুত মামলা নিষ্পত্তির তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

পুলিশকে দ্রুত মামলা নিষ্পত্তির তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর


রোহিঙ্গাদের দেখতে কক্সবাজারে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

রোহিঙ্গাদের দেখতে কক্সবাজারে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি


কর্ণফুলীর পাড়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান শুরু

কর্ণফুলীর পাড়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান শুরু


নিরীহ মানুষকে হয়রানি না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিরীহ মানুষকে হয়রানি না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর


সংরক্ষিত নারী আসনে ভোট ৪ মার্চ

সংরক্ষিত নারী আসনে ভোট ৪ মার্চ


প্রেমঘটিত বিরোধে জবিতে সংঘর্ষ, ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত

প্রেমঘটিত বিরোধে জবিতে সংঘর্ষ, ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত