Saturday, October 8th, 2016
পাহাড়ে যাবার আগের প্রস্তুতি
October 8th, 2016 at 9:50 pm
পাহাড়ে যাবার আগের প্রস্তুতি

তূর্য রহমান, ঢাকা: পূজার ছুটিতে ভ্রমণপ্রিয় মানুষের কাছে এখন ‘হটকেক’ রাঙামাটির সাজেক ভ্যালি। পাশাপাশি ‘অল টাইম ফেভারিট’ কক্সবাজার, খাগড়াছড়ি বা বান্দরবানেও হবে বহু পর্যটকের আনাগোনা। ইটকাঠের বাক্স থেকে বের হয়ে মুক্ত বাতাস আর খানিকটা স্বস্তি— এই জন্যই তো ভ্রমণ। তবে সেই ভ্রমণ যেন নতুন কোন অসুস্থতার কারণ না হয় সেই ব্যাপারে সতর্ক থাকা প্রয়োজন।

ম্যালেরিয়া থেকে সাবধান! 

বাংলাদেশের পাহাড়ি অঞ্চলের প্রধান ভয় ম্যালেরিয়া। বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি, পার্বত্য চট্টগ্রাম এমনকি কক্সবাজার অঞ্চলেও এই রোগের প্রকোপ বেশি। মশাবাহিত এই রোগ অনেক ক্ষেত্রে প্রাণঘাতী হয়।

এর বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে মনে রাখতে হবে ‘ক’ ‘খ’ ‘গ’ 

ক: কামড় থেকে সাবধান (অন্য কারো না, মশার কামড়)
খ: খেতে হবে ওষুধ, (রোগ প্রতিরোধের জন্য, বেড়াতে যাবার আগে থেকেই)
গ: ‘গো টু ডক্টর’, যদি দেখা দেয় জ্বর, সর্দি, শরীর বা মাথা ব্যাথা।  

ম্যালেরিয়ার প্রধান কারণ এনোফিলিস মশা, আর বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বের জেলাগুলো এই মশার ঘাঁটি, তাই মশা থেকে বাঁচতে নিচের ব্যাপারগুলো খেয়াল রাখা প্রয়োজন- 

  • লম্বা হাতার জামা আর ফুলপ্যান্ট পড়লে শরীরের উন্মুক্ত স্থান কম থাকে, মশাও কম কামড়ায়। পুরু মোজাও এই ক্ষেত্রে কার্যকর, তবে আমাদের মত গরম আবহাওয়ায় মোজা খুব বেশি আরামদায়ক না। হালকা রঙের কাপড় পরলে মশা কম কামড়ায়।
  • শরীরের উন্মুক্ত স্থানে মশক-নিরোধী ক্রিম বা তেল ব্যাবহার করতে পারেন। আশেপাশের ফার্মেসিতেই ‘Odomos’ নামের ভারতীয় ক্রিম পাবেন, এটা উপকারী। দেশীয় কোন ক্রিমের নাম জানা নাই। অবশ্যই প্যাকেটের ব্যাবহারবিধি দেখে নেবেন, বাচ্চাদের ক্ষেত্রে নির্দেশিত মাত্রার চেয়ে বেশি ব্যাবহার করলে ক্ষতি হতে পারে। সাধারণত লাগানোর ২-৩ ঘন্টা পর্যন্ত এগুলো কাজ করে।
  • রাতে মশারী ব্যাবহার করাটা খুবই দরকারি। ভালো হয় যদি হোটেলে কীটনাশকযুক্ত মশারী থাকে, এগুলো মশার বিরুদ্ধে বেশি কার্যকর।
  • মশকনিরোধী স্প্রে ব্যাবহার করা যেতে পারে।
  • শেষ বিকাল থেকে রাত-এই সময় এনোফিলিস মশা বেশি কামড়ায়, সুতরাং এই সময়টা বেশি সতর্কতা প্রয়োজন। 

ম্যালেরিয়া প্রতিরোধী ওষুধ:

ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হবার ঝুঁকি কমানোর জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) থেকে কিছু ওষুধ খাবার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। যেহেতু এই রোগ হয়ে গেলে তা খুব অল্প সময়েই রোগীর ক্ষতি করে ফেলতে পারে, তাই রোগ প্রতিরোধে ব্যাবস্থা নেয়াটাই নিরাপদ। বিশেষত শিশু, বয়স্ক এবং যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, তাদের ক্ষেত্রে প্রতিরোধী ওষুধ (Prophylactic drug) গ্রহণ করা প্রয়োজন।

sajek-vally-3

এই ওষুধ খাওয়া শুরু করতে হয় ভ্রমণের ২-৩ দিন আগে থেকেই। রোগীর বয়স, শারীরিক অবস্থা এবং ওষুধের সাইড ইফেক্ট বিবেচনা করে ওষুধের ধরন নির্ধারিত হয়। নিকটস্থ হাসপাতাল বা ক্লিনিকের মেডিসিন স্পেশালিস্টের কাছে গেলে এই ওষুধের ব্যাপারে পুর্ণ নির্দেশনা পাওয়া যাবে। তবে কোন ওষুধই ১০০% কার্যকর নয়, সুতরাং ভ্রমণ থেকে ফিরে জ্বর, সর্দি, গলাব্যাথা, মাথাব্যাথা, এইসব উপসর্গ দেখা দিলে অবহেলা না করে দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নেবেন।

গর্ভবতী নারীর ক্ষেত্রে:

গর্ভবতী নারীদের এইসব ম্যালেরিয়াপ্রবণ এলাকায় যেতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। কেননা ম্যালেরিয়ার কারণে অপূর্নবয়স্ক বাচ্চাপ্রসব, মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যু হয়ে থাকে। তবে একান্তই যাওয়া প্রয়োজন হলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী প্রতিরোধী ওষুধ খেয়ে নেবেন।

অন্যান্য সতর্কতা:

  • অ্যাজমা এবং শ্বাসতন্ত্রের অন্যান্য রোগীরা অবশ্যই ইনহেলার ও প্রয়োজনীয় ওষুধ সাথে রাখবেন। পাহড়ের বাতাসে অক্সিজেন সমতলের তুলনায় কিছু কম থাকে। 
  • হৃদযন্ত্রের রোগীরা অতিরিক্ত হাঁটা, দৌড়ানো,পর্বতআরোহণ-এই কাজগুলো এড়িয়ে চলবেন। 
  • ইনসুলিন ব্যাবহারের পর অতিরিক্ত পরিশ্রমের কারণে রক্তের গ্লুকোজ একেবারে কমে যেতে পারে, এতে জ্ঞান হারানো, খিচুনী হয়ে মৃত্যুও হতে পারে। সুতরাং অতিরিক্ত পরিশ্রম এড়িয়ে চলবেন, ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে ইনসুলিন লেভেল ঠিক করে নেবেন। এরকম অবস্থায় মুখে চিনির গোলা, মিষ্টি বা ক্যান্ডি দিলে অবস্থার উন্নতি হয়, এই জিনিসগুলো নিজের সাথে রাখবেন। 
  • পরিস্কার এক বোতল পানি সাথে রাখবেন, খাবার খাবেন নিরাপদ জায়গা থেকে।  

শেষ করার আগে বলবো, এতো এতো রোগের কথা বলে ভয় দেখানো বা আপনাকে ভ্রমণ থেকে বিরত রাখা, এর কোনটাই আমার উদ্দেশ্য না। তবে উপরের ব্যাপারগুলো খেয়াল রাখলে ভ্রমণ কিছুটা হলেও নিরাপদ হবে।

সারি সারি সবুজ পাহাড়, হিম হিম পাহাড়ি বাতাস আর ঘোলাটে মেঘ ছুঁতে ছুঁতে গরম কফির মগে চুমুক শরীর— মনকে চাঙা করতে এর চেয়ে বড় ওষুধ আর কি আছে বলেন!

তূর্য রহমান’র আরো লেখা:

turza-rahman লেখক: শিক্ষার্থী, ঢাকা মেডিকেল কলেজ 


সর্বশেষ

আরও খবর

বিমানের বহরে পঞ্চম বোয়িং

বিমানের বহরে পঞ্চম বোয়িং


অভিযুক্তদের বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য ২৪ ঘণ্টা সময় নিল শোভন-রাব্বানী

অভিযুক্তদের বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য ২৪ ঘণ্টা সময় নিল শোভন-রাব্বানী


‘সন্তানের জন্য যা যা করতে হয় প্রধানমন্ত্রী তাই আমার জন্য করেছেন’

‘সন্তানের জন্য যা যা করতে হয় প্রধানমন্ত্রী তাই আমার জন্য করেছেন’


দাঙ্গার পর দ্বিতীয় রাতেও শ্রীলঙ্কাজুড়ে কারফিউ, গ্রেফতার ৬০

দাঙ্গার পর দ্বিতীয় রাতেও শ্রীলঙ্কাজুড়ে কারফিউ, গ্রেফতার ৬০


নাটোরে মা ও প্রতিবন্ধি সন্তানের মরদেহ উদ্ধার

নাটোরে মা ও প্রতিবন্ধি সন্তানের মরদেহ উদ্ধার


ইগলু আইসক্রিমকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা

ইগলু আইসক্রিমকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা


বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় দেশে ফিরছেন ওবায়দুল কাদের

বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় দেশে ফিরছেন ওবায়দুল কাদের


খ্রিস্ট ধর্মীয় অনুভূতি: কবি ও সাংবাদিক হেনরী স্বপন গ্রেপ্তার

খ্রিস্ট ধর্মীয় অনুভূতি: কবি ও সাংবাদিক হেনরী স্বপন গ্রেপ্তার


কক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৩

কক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৩


ভূমধ্যসাগরে নিহত ২৭ বাংলাদেশির পরিচয় মিলেছে

ভূমধ্যসাগরে নিহত ২৭ বাংলাদেশির পরিচয় মিলেছে