Sunday, August 5th, 2018
পেটমোটা ঠগীর কবলে নবীন কিশোরেরা
August 5th, 2018 at 3:11 pm
পেটমোটা ঠগীর কবলে নবীন কিশোরেরা

মাসকাওয়াথ আহসান

নিরাপদ সড়কের জন্য কিশোর আন্দোলন দমনে ধানমণ্ডি এলাকায় লাঠি হাতে একটি পেটমোটা লোককে দেখলাম। এই লোকটির মোটা পেটের মধ্যেই চর্বি হয়ে লুকিয়ে আছে মানবতাবিরোধী সাপ। এই সাপ ব্যাংকের হাজার কোটি খায়, পরিবহন বানিজ্যের রাজনৈতিক মাফিয়া চক্রের কোটি কোটি টাকা খায়, প্রকল্প খায়, নীতিনৈতিকতা খায় সবশেষে কিশোর বিদ্রোহীকে খেতে আসে। এই নরভোজী পেটমোটা লোকেরা কিশোরের জীবন বিপন্ন করতে “গুজব রটায়”, “সত্য চাপা দেয়”। অথচ এই পেটমোটারা বোঝেনা, ইন্টারনেট যুগে সব সত্যের প্রামাণিক ছবি ও ভিডিও থেকে যায়। সত্য থেকে যায় শিশু-কিশোরের অজর স্মৃতিতে। এই পেটমোটা লোকেরা ফেসবুকে নেমে এসে বলে, ফিরে যাও বাবা। এই পেটমোটা লোক ফেসবুকে নেমে এসে বলে, চালিয়ে যাও। যেন কিশোরেরা পেটমোটাদের জিজ্ঞেস করে পথে নেমেছিলো!

কিশোর-কিশোরীদের সভ্য সমাজ সৃজনের চাওয়াটাকে পেট মোটারা বুঝতে পারে না। মস্তিষ্কেও জমেছে চর্বি। মৃতদেহের ক্ষতিপূরণ হিসেবে টাকা-বাস-কড়া আইনের ছাগল উপহার দিতে চায়। পেটমোটা লোক মনে করে এই ময়না দ্বীপের দখল আওয়ামী লীগ না বিএনপির হাতে থাকবে সেটাই বাংলাদেশের সামনে প্রধান ও একমাত্র প্রশ্ন।

এই পেটমোটা লোকটি জানে না কিশোর-কিশোরীদের আন্দোলন শুরুর পরেও প্রত্যন্তের শিশুদের দানব বাস-ট্রাক খুন করে গেছে। মানবতা বিরোধী অপরাধ টিকিয়ে রাখা পেটমোটা লোকটির কাছে
গত বছর সড়ক-গণহত্যায় ৪২০০ মানুষের মৃত্যু আসল ব্যাপার নয়। তার লক্ষ্য সামনে কোরবানি ঈদে কত বড় গরু কুরবানি দেবে চাঁদার পয়সায় কিংবা দেশটাকে কুরবানি দিয়ে মালয়েশিয়ায় সেকেন্ড হোম গড়ে তোলা।

এই পেট মোটা লোক মীরপুরে-চট্টগ্রামে কিশোরদের ওপর ছাত্রলীগ আর পুলিশের যৌথ হামলায় এতোটুকু অনুতপ্ত নয়। এই পেটমোটা লোক ফেসবুকে প্রতিবাদের সময় হলে লতা-পাতা ফুল-বাতাবি লেবুর ছবি পোস্ট করে; কিশোরের শরীরে পুলিশ-ছাত্রলীগের নিষ্ঠুরতার রক্ত না দেখে কিশোরের শ্লোগানের ভাষার শ্লীল-অশ্লীল মাত্রাবোধ নিয়ে আলোচনা করে বৃষ্টিদিনে খিঁচুড়ি খেতে খেতে। অথবা সংস্কৃতি মামাদের মতো “জামাত এসেছে–শিবির এসেছে” বলে জুজু দেখায়। জামাত বেঁচে নেই ভোটে; বেঁচে আছে মধ্যস্বত্বভোগীর মোটা পেটে। যোগদানের হিড়িকে ঢুকে গেছে সরকারি দলের ভরা পেটে।

বিএনপির পেটমোটা ভাবে এই তো সুযোগ; এই কিশোর বিদ্রোহের সিঁড়ি বেয়ে ময়না দ্বীপের ইজারা নেয়া যাবে। অস্থির হয়ে ফোন করে, চাঁদাবাজি করতে না পেরে শুকিয়ে যাওয়া ছাত্রদল ক্যাডারদের। সেই ফোনে আড়ি পেতে পেট মোটা গোয়েন্দা ছাত্রলীগের হাতে অডিও ক্লিপ দিয়ে বলে, আন্দোলনে বিএনপি ঢুকছে; এই দ্যাখো; ভাইরাল করো; ষড়যন্ত্র রুখে দাও।

নবীন কিশোরেরা আসলে দলমত নির্বিশেষে ঠগী পেটমোটা আংকেল ও আন্টিদের বলতে চাইছে, এইসব বহুবার ব্যবহার করা ষড়যন্ত্রের হাগিজটা ফেলে দিয়ে কমন সেন্সে ফিরে এসো। আইন মেনে চলো। পেটমোটা ঠগীদের সর্বদলীয় ঘাতক পরিবহন খাতের চলতি দায়িত্বে থাকা “কিশোরের রক্ত খেকো” পেটমোটা হাস্যমন্ত্রীর শ্রমিকেরা সারাদেশে শিশুদের বাস-ট্রাকের নীচে পিষে হত্যা করে অনুতাপহীন। পেটমোটা পরিবহন মালিকরা কিশোর আন্দোলনে নিরাপত্তাহীনতার অজুহাতে বাস বন্ধ রেখে দরকষাকষি করে শিশু-কিশোরের রক্তের ওপর দাঁড়িয়ে।

পেটমোটা পুলিশ পেটমোটা মধ্যস্বত্বভোগীর পোস্ট চুরি করে ফেসবুকে লেখে, এই যে কিশোরেরা পথে নেমে খুব তো গাড়ির লাইসেন্স পরীক্ষা করছো; নিজের বাবা-মার উপার্জন সৎ কীনা পরীক্ষা করতে পারবে!
আকন্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত অনুতাপহীন পুলিশ ভুলে গেছে, কিশোরকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করা; ছোপ ছোপ রক্তের জুতা-জোড়ার কথা।

পৃথিবীর ইতিহাসে শিশু-কিশোর-তরুণের জীবনের দাবীর প্রেক্ষিতে এরকম মানবতা বিরোধী অপরাধের কোন দৃষ্টান্ত এতোদিন ছিলো না। নির্লজ্জ নরভোজী ঠগীরা নিষ্ঠুরতার শেষ পর্যায়ে চলে গেছে। কারণ তাদের মোটা পেটের চর্বিতে লুকিয়ে থাকা সাপ ফিস ফিস করে বলে, ময়নাদ্বীপের দখল ধরে রাখ; এইখানে মানুষের রক্ত ভীষণ স্বাদু।

মাসকাওয়াথ আহসান: ব্লগার ও প্রবাসী সাংবাদিক


সর্বশেষ

আরও খবর

আকাশবীণা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আকাশবীণা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


জেনে নিন কলার গুণাগুণ

জেনে নিন কলার গুণাগুণ


দুর্নীতি করলে যে দলেরই হন রেহাই পাবেন না: শেখ হাসিনা

দুর্নীতি করলে যে দলেরই হন রেহাই পাবেন না: শেখ হাসিনা


যা ইচ্ছে সাজা দেন, বারবার আদালতে আসতে পারব না: খালেদা জিয়া

যা ইচ্ছে সাজা দেন, বারবার আদালতে আসতে পারব না: খালেদা জিয়া


পাকিস্তানের ১৩তম রাষ্ট্রপতি হলেন আরিফুর রেহমান আলভি

পাকিস্তানের ১৩তম রাষ্ট্রপতি হলেন আরিফুর রেহমান আলভি


ভুটানকে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা বাংলাদেশের

ভুটানকে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা বাংলাদেশের


ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে আরও ১১ মামলা

ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে আরও ১১ মামলা


ওয়েডিং ফটোগ্রাফার এলেন খান, যার শিডিউল পাবার পর ঠিক হয় বিয়ের তারিখ

ওয়েডিং ফটোগ্রাফার এলেন খান, যার শিডিউল পাবার পর ঠিক হয় বিয়ের তারিখ


বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু


কারাগারেই হবে খালেদার দুর্নীতি মামলার শুনানি

কারাগারেই হবে খালেদার দুর্নীতি মামলার শুনানি