Saturday, October 15th, 2016
প্রবারণা পূর্ণিমা শনিবার
October 15th, 2016 at 10:50 am
প্রবারণা পূর্ণিমা শনিবার

ঢাকা: বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব প্রবারণা পূর্ণিমা শনিবার। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব এটি।

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের বিশ্বাস, এ পূর্ণিমা পালনের মাধ্যমে বৌদ্ধ ভিক্ষু ও গৃহীদের পাপমোচন হয়। এ দিনে বৌদ্ধপূজা, সংঘদান, পিণ্ডদান, অষ্টপরিষ্কার দান, পঞ্চশীল প্রার্থনা, শীল গ্রহণ, প্রদীপ পূজা ও ফানুস ওড়ানোর মতো নানা আচার পালন করা হয়। প্রবারণা পূর্ণিমার পরদিন থেকেই বিভিন্ন বিহারে পালিত হয় কঠিন চীবরদান উৎসব।

এ পূর্ণিমাকে আশ্বিনী পূর্ণিমাও বলা হয়। মহান ভিক্ষুসংঘ তিনমাস ধরে কঠোর বর্ষাব্রত পালন শেষে তথাগত বুদ্ধ ভিক্ষু সংঘকে মানবের হিতসাধন ও সুখের জন্য ধর্মপ্রচার করার আদেশ দেন। ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে প্রবারণা পূর্ণিমার গুরুত্ব বৌদ্ধদের সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে বেশ সমাদৃত করেছে। ব্রত পালনের মাধ্যমে আত্মশুদ্ধিতার বেড়াজাল ডিঙিয়ে যাবতীয় কুশল কর্মকে ধারণ করে অকুশল কর্মকে পরিত্যাগ করে এক ভিক্ষু অন্য ভিক্ষুর কাছে পরস্পরের দোষ ত্রুটি প্রকাশের মাধ্যমে নিজেদের পরিশুদ্ধ করেন। এ পরিশুদ্ধিতা লাভই প্রবারণা। প্রবারণা দু’ভাগে পরিলক্ষিত হয়। ১. আষাঢ়ে পূর্ণিমাতে বর্ষাব্রত শুরু হয় এবং আশ্বিনী পূর্ণিমায় সমাপ্ত হয়, একে পূর্ব কার্তিক প্রবারণা বলে। ২. বর্ষা পরিক্রমা বা বর্ষাব্রত পালনের পর যে প্রবারণা পালিত হয় তা পশ্চিমকার্তিক প্রবারণা। আষাঢ়ে পূর্ণিমাকে ছোট ছাদাং এবং প্রবারণা পূর্ণিমাকে বড় ছাদাং বলা হয়।

বৌদ্ধ ভিক্ষুরা বর্ষাবাস চলাকালীন কঠিন ব্রত পালন করতে গিয়ে যদি পরিশুদ্ধ সাংঘিক জীবন পরিচালনার বদলে কোনো ভুলের কারণে যদি ব্রতচ্যুত হন, তবে সেই ভিক্ষু তার চেয়ে বড় ভিক্ষুর কাছে বিধান অনুযায়ী দোষ-ত্রুটি মার্জনা চেয়ে ক্ষমা প্রার্থনা চেয়ে নেন। এ কর্মটি চীবর দানের যাবতীয় আনুষ্ঠানিক পর্বশেষ হলে বিহার চত্বরে নির্ধারিত সীমা ঘরে চার বা অধিক ভিক্ষু বসে বিশেষ কর্ম সম্পন্ন করেন। এ তিন মাসের বর্ষাব্রত চলাকালীন সময়ে আমাদের গৃহীসমাজও শীল বিনয় অনুশীলনের মাধ্যমে পঞ্চশীল ও অষ্টশীল গ্রহণ করে নিজেদের পরিশুদ্ধ রাখার বিশেষ ব্রত পালন করে।

গৃহীদের মধ্যে মা-বাবাদের অনুসরণ করে কিশোর-কিশোরী এবং যুবক-যুবতীদেরও অষ্টশীল পালনের চর্চাবেশ পরিলক্ষিত হয়। আগের চেয়েও ইদানিং আরো একটি শুভযোগ সংযোজিত হয়েছে, যা হলো ধ্যান চর্চা। ভাবনা বা ধ্যান মানুষের মনকে শুদ্ধভাবে চালিত করার এক মহৌষধ। ষড় রিপুকে সংযত করে পরিপূর্ণ শান্তি লাভ করার একটি ফলদায়ক পদ্ধতির পথই হলো ধ্যান-সাধনা। এ ধ্যানের গভীর থেকে গভীরে প্রবেশ করে বিভিন্ন ধাপ উত্তোরণ করতে পারলেই মানুষ নির্বাণ লাভে সমর্থ হতে পারবেন।

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা: আবু তাহের

 


সর্বশেষ

আরও খবর

করোনায় ৩৭ জনের মৃত্যু

করোনায় ৩৭ জনের মৃত্যু


শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে যাত্রী ও গাড়ির প্রচণ্ড চাপ, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে যাত্রী ও গাড়ির প্রচণ্ড চাপ, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি


দাম বাড়ল মুরগি ও চিনির

দাম বাড়ল মুরগি ও চিনির


ভারতে আবার সংক্রমণের রেকর্ড, একদিনে মৃত্যু প্রায় ৪০০০

ভারতে আবার সংক্রমণের রেকর্ড, একদিনে মৃত্যু প্রায় ৪০০০


দেশে করোনায় আরও ৪১ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৮২২

দেশে করোনায় আরও ৪১ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৮২২


খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়া প্রসঙ্গে সিদ্ধান্ত শিগগিরই: আইনমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়া প্রসঙ্গে সিদ্ধান্ত শিগগিরই: আইনমন্ত্রী


যে যেখানে আছেন সেখানেই সবাইকে ঈদ উদযাপন করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

যে যেখানে আছেন সেখানেই সবাইকে ঈদ উদযাপন করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর


ছিনতাইকারীর টানে রিকশা থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু

ছিনতাইকারীর টানে রিকশা থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু


করোনায় কমলো মৃত্যু ও শনাক্তের হার; মৃত্যু ৫০ আর শনাক্ত ১ হাজার ৭৪২

করোনায় কমলো মৃত্যু ও শনাক্তের হার; মৃত্যু ৫০ আর শনাক্ত ১ হাজার ৭৪২


১৬ মে পর্যন্ত লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি

১৬ মে পর্যন্ত লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি