Tuesday, June 21st, 2016
বন্দুকযুদ্ধে নিহত জঙ্গিদ্বয়ও ‘মেধাবী ছাত্র’
June 21st, 2016 at 1:26 pm
বন্দুকযুদ্ধে নিহত জঙ্গিদ্বয়ও ‘মেধাবী ছাত্র’

প্রীতম সাহা সুদীপ, ঢাকা: পুলিশের কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত ‘জঙ্গি’ শরীফুল ওরফে মুকুল রানা এবং ফাহিম দুজনেই নিখোঁজ ছিলেন। গণমাধ্যমকে এমনটা জানিয়ে তাদের পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছেন তারা দুজনেই ‘মেধাবী ছাত্র’ ছিলেন। তবে কবে বা কি করে তারা ‍জঙ্গি সংগঠনের সাথে যুক্ত হন, তা জানে না তাদের অভিভাবকরা।

সোমবার মুকুল রানার বাবা আবুল কালাম আজাদ নিউজনেক্সটবিডি ডটকমকে জানান, মুকুল চার মাস ধরে নিখোঁজ ছিল। চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি যশোরের জগন্নাথপুরের ‘মহুয়া আক্তার রিমির’ সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর সে মাত্র একবার সাতক্ষীরায় বাড়িতে এসেছিল। এরপর আবার যশোরে শ্বশুরবাড়িতে চলে যায়। ২৩ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় যশোরের বসুন্দিয়া এলাকা থেকে তাকে কে বা কারা তুলে নিয়ে যায়। এরপর থেকে পরিবারের সাথে তার আর যোগাযোগ হয়নি। এর আগের দিন বন্দুকযুদ্ধে নিহত ফাহিমের বাবা গোলাম ফারুক সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, গত ১১ জুন সকালে ফাহিম নিখোঁজ হয়। এরপর তার মোবাইল থেকে এসএমএস আসে যাতে লেখা ছিল ‘বিদেশ চলে গেলাম, এছাড়া কোনো উপায় ছিল না। বেঁচে থাকলে আবারও দেখা হবে।’ ওই দিনই আমি দক্ষিণখান থানায় গিয়ে একটা সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করি।

mukul rana...

গত শনিবার রাত পৌনে ৩টায় খিলগাঁও থানার মেরাদিয়া এলাকার বাশঁপট্টি নামক জায়গায় ডিবি পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন শরীফুল (মুকুল)। পুলিশের দাবি তার নাম শরীফুল ইসলাম শরীফ ওরফে হাদি। সে নিষিদ্ধ ঘোষিত আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সামরিক ও আইটি শাখার শীর্ষ পর্যায়ের একজন প্রশিক্ষক ছিল। এছাড়া সে বিজ্ঞান লেখক অভিজিৎ রায়সহ ৭ সাতটি হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে ছিল বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

সোমবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে এসে তার দুলাভাই হেদায়েতুল ইসলাম ও চাচাত ভাই রহমত আলী তার লাশ শনাক্ত করেন। হেদায়েতুল নিউজনেক্সটবিডি ডটকমকে বলেন, ‘পত্রিকায় মুকুলের ছবি দেখেই সাতক্ষীরা থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এসেছি। ওর নাম মুকুল রানা (২৫)। তার গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরা জেলার বালুইগাছা। তারা দুই ভাই এক বোন। মুকুলের বাবার সাতক্ষীরায় ছোট একটি চিংড়ির ঘের রয়েছে।’

64ac1ffcb6bb60dc4934acb03827367a-5767b84bb45dc

মুকুলের জঙ্গী সম্পৃক্ততার ব্যাপারে জানতে চাইলে হেদায়েত বলেন, ‘এ বিষয়ে আমাদের কিছুই জানা নেই। মুকুল সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে ইংরেজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ছিল। পরিবারের আর্থিক অবস্থা অস্বচ্ছল থাকায় এক বছর আগে চাকরির খোঁজে সে ঢাকায় গিয়েছিলো। গত ফেব্রুয়ারি মাসে সে গ্রামে গিয়ে মহুয়া নামের এক মেয়েকে ‍বিয়ে করে। পারিবারিকভাবেই বিয়ে হয়। বিয়ের পর সে আবার ঢাকায় ফিরে যায়। মুকুল কি চাকরি করতো, তার অফিস কোথায় এগুলো কিছুই সে আমাদের জানায়নি। আমরা শুধু এতটুকু জানতাম যে সে ঢাকার উত্তরাতে থাকে।’

এর আগে ১৫ জুন বিকেলে মাদারীপুর সরকারি নাজিমউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের প্রভাষক রিপন চক্রবর্তীর ভাড়া বাসায় হাজির হন ফাহিমসহ কিলিং মিশনে অংশ নেয়া তিনজন। তারা ওই শিক্ষককে ধারালো অস্ত্র দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। এসময় শিক্ষকের আর্ত চিৎকারে আশপাশের মানুষ ছুটে আসেন ঘটনাস্থলে। অবস্থা বেগতিক দেখে হামলাকারীরা পালিয়ে গেলেও জনতার হাতে ধরা পড়ে একমাত্র ফাহিম। স্থানীয়রা তাকে তুলে দেয় পুলিশের হাতে। ফাহিমকে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পারে হামলাকারীরা নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন হিযবুত তাহরীর সদস্য। তাদের মধ্যে এটাই ছিল ফাহিমের প্রথম মিশন। পরে ফাহিমের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সহযোগীদের ধরতে বাহাদুরপুর ইউনিয়নের মিয়ারচর এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। শনিবার সকালে সেখানে দুইপক্ষের বন্দুক যুদ্ধে ফাহিম নিহত হন।

efd73533c4d98b7483308275c8179896-5767bc2511a6f

এদিকে নিহত মুকুল ও ফাহিম দুজনেই মেধাবী ছাত্র ছিলেন। মুকুল মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক দুই পরীক্ষায়ই জিপিএ-৫ পেয়েছিলেন। মুকুলের বাবা আবুল কালাম নিউজনেক্সটবিডি ডটকমকে বলেন, ‘মুকুল খুব মেধাবী ছিলো। এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় সে জিপিএ-৫ পেয়েছিলো। সে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ইংরেজি দ্বিতীয় বর্ষে অধ্যয়নরত অবস্থায় পড়াশুনা বাদ দেয়।’ এর আগে ফাহিমের বাবা গোলাম ফারুক বলেন, ‘ঢাকার উত্তরা হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজে এইচএসসির মেধাবী ছাত্র ছিল ফাহিম। সে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছিল। সেই ছেলে এমন কিছু করতে পারে তা কেউ বিশ্বাসই করবে না। আমরা তেমন লক্ষনও কখনো দেখিনি।’

তবে গোলাম ফারুক বলেছেন, ‘ফাহিমের ধর্মীয় বই-পুস্তক নিয়ে ঘাঁটা-ঘাঁটি করার অভ্যাস ছিলো। সব সময় বাসার কাছের মসজিদেই নামাজ পড়তো। তবে প্রতি শুক্রবার উত্তরার একটি মসজিদে নামাজ পড়তে যেত।’

উল্লেখ্য, রাজধানী ঢাকা এবং এর বাইরের স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের টার্গেট করে বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের সদস্য সংগ্রহ অভিযান নিয়ে গত কয়েক বছর ধরেই সরব এ দেশীয় গণমাধ্যমসহ সচেতন মহল। এ নিয়ে প্রচুর প্রতিবেদন ও প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। আলোচনা হয়েছে টিভি চ্যানেলগুলোর টক শো’তেও।

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/পিএসএস/এসকে/ওয়াইএ


সর্বশেষ

আরও খবর

নামেই কঠোর লকডাউন, গণপরিবহন ছাড়া চলছে সব গাড়ি

নামেই কঠোর লকডাউন, গণপরিবহন ছাড়া চলছে সব গাড়ি


করোনায় আরও ৯৫ জনের মৃত্যু

করোনায় আরও ৯৫ জনের মৃত্যু


লকডাউন বাড়ছে আরও এক সপ্তাহ

লকডাউন বাড়ছে আরও এক সপ্তাহ


বাঁশখালীতে বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে ৪ জন নিহত

বাঁশখালীতে বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে ৪ জন নিহত


করোনা নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের কবিতা

করোনা নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের কবিতা


আলেমদের ওপর জুলুম আল্লাহ বরদাশত করবেন না: বাবুনগরী

আলেমদের ওপর জুলুম আল্লাহ বরদাশত করবেন না: বাবুনগরী


সকালে কন্যা সন্তানের জন্ম, বিকালেই করোনায় মায়ের মৃত্যু

সকালে কন্যা সন্তানের জন্ম, বিকালেই করোনায় মায়ের মৃত্যু


করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়াল ১০ হাজার

করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়াল ১০ হাজার


লকডাউনের নামে সরকার ক্র্যাকডাউন চালাচ্ছে: ফখরুল

লকডাউনের নামে সরকার ক্র্যাকডাউন চালাচ্ছে: ফখরুল


মহামারী, পাকস্থলির লকডাউন ও সহমতযন্ত্রের নরভোজ

মহামারী, পাকস্থলির লকডাউন ও সহমতযন্ত্রের নরভোজ