Thursday, October 6th, 2022
বন্দুকযুদ্ধে টেকনাফের একরামুলের মৃত্যু নিয়ে উঠেছে নানান প্রশ্ন
May 28th, 2018 at 6:33 pm
বন্দুকযুদ্ধে টেকনাফের একরামুলের মৃত্যু নিয়ে উঠেছে নানান প্রশ্ন

টেকনাফ: টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত কাউন্সিলর ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি একরামুল হকের দাফন সম্পন্ন হয়েছে গতকাল। রবিবার কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হওয়ার পর রাত সাড়ে ১০টার দিকে টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ প্রাঙ্গণে তার জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

তবে একরামুল হক আদৌ এই কারবারে জড়িত ছিলেন কি না, এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তার বিরুদ্ধে ১০ বছর আগে মাদকের একটি মামলা হলেও সেটি মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, জানাজায় তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। হাজার হাজার মানুষ জানাজায় অংশ নেন। জানাজা শেষে স্থানীয় গোরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে। জানাজার নামাজের আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন উখিয়া-টেকনাফের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি, জেলা পরিষদ সদস্য শফিক মিয়া ও নিহত একরামের মেজ ভাই মো. নজরুল ইসলাম।

এমপি আবদুর রহমান বদি বলেণ, একরামুল হক কোনও ইয়াবা ব্যবসায়ী ছিলেন না। তিনি ভালো লোক ছিলেন। তিনি বন্দুকযুদ্ধের মতো ভয়ঙ্কর কোনও কাজে অংশ নিতে পারেন না।

জেলা পরিষদ সদস্য শফিক মিয়া বলেন, মাদকবিরোধী অভিযানকে স্বাগত জানাই কিন্তু একরামের মতো কোনও নিরপরাধ ব্যক্তি যাতে ক্রসফায়ারে মারা না যায় সে বিষয়ে প্রশাসনকে সতর্ক থাকতে হবে।

নিহত একরামের মেজ ভাই নজরুল ইসলাম জানাজায় উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে  বলেন, আমার ভাই ইয়াবা ব্যবসায়ী ছিলেন কি না সকলের কাছে জানতে চাই। সবাই সমস্বরে উত্তর দেন না-না করে। তিনি আবার জানতে চান তার ভাই ভালো মানুষ ছিল কি না, এসময় সবাই হাত তুলে  সমর্থন জানান নিহত একরামুল হক এলাকায় একজন ভালো মানুষ ছিলেন।

জানা গেছে, একরামুলের আর্থিক অবস্থা একেবারেই ভালো নয়। সংসার চালাতেই তিনি হিমশিম খাচ্ছিলেন। বাবার বাড়িতে থাকতেন। দলীয় নেতাদের সাহায্য-সহযোগিতা নিয়ে তিনি দুই মেয়েকে পড়াশোনা করাতেন।

প্রশ্ন উঠেছে, ইয়াবা কারবারের হোতা হলে কারও আর্থিক অবস্থা শোচনীয় থাকে কী করে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং আওয়ামী লীগ নেতাদের সূত্রে জানা গেছে, সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে একরামুলের সঙ্গে এক গোয়েন্দা কর্মকর্তার বিরোধ তৈরি হয়। সে সময় তিনি তাকে মাদকের মামলা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু পুলিশের তদন্তে একরামুল নির্দোষ প্রমাণ হন।

কৈশোর থেকে রাজনীতিতে জড়িত একরামুল এলাকায় যে ভীষণ জনপ্রিয়, সেটি তার মৃত্যুর পরে বোঝা গেছে। তার জানাযায় বিপুল সংখ্যক মানুষের স্বতঃস্ফুর্ত উপস্থিতি এই বন্দুকযুদ্ধকে প্রশ্নের মুখে ফেলে দিয়েছে।

এদিকে, একরামুলেকে মাদককারবারি আখ্যা দিয়ে কক্সবাজারে র‌্যাব-৭ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর রুহুল আমিন বলেন, ‘সে মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকার শীর্ষে ছিল। এই তালিকা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের করা। অপরাধ জগতে সে ইয়াবা গডফাদার হিসেবেও পরিচিত।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের কাছে থাকা তথ্য অনুযায়ী দুটি মামলায় একরামুল অভিযুক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে টেকনাফ থানায় একটি মাদক সংক্রান্ত মামলা রয়েছে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে আরও অনেক মামলা রয়েছে।’

তবে টেকনাফ থানার ওসি রঞ্জিত কুমার বড়ুয়া জানান, এই থানায় একরামুলের নামে দুটি মামলা হয়েছিল। এর একটি মারামারি নিয়ে ও অপর মামলাটি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে। ২০০৮ সালে করা প্রথম মামলাটি আদালত খারিজ করে দেয়। আর মাদক সংক্রান্ত মামলাটিতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ। এতে বলা হয়, একরামুলের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়নি।

গত শনিবার রাত ১টার দিকে টেকনাফের বাহারছড়ার নোয়াখালীয়া পাড়া সংলগ্ন মেরিন ড্রাইভ সড়কে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে একরাম নিহত হন। ঘটনাস্থল থেকে ১টি বিদেশি পিস্তল, ১টি এলজি, ৬ রাউন্ড কার্তুজ, ৫টি খালি খোসা ও ১০ হাজার ইয়াবাসহ তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিজস্ব প্রতিবেদক, সম্পাদনা: এম কে রায়হান


সর্বশেষ

আরও খবর

দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী

দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী


দাম কমলো এলপিজির 

দাম কমলো এলপিজির 


বিমানবন্দর সড়কের পানি সেঁচলো ট্রাফিক পুলিশ


রক আইকনের জন্মদিনে !

রক আইকনের জন্মদিনে !


ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায়  ৬৩৫ জন দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে !

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায়  ৬৩৫ জন দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে !


একুশে পদকপ্রাপ্ত বর্ষীয়ান সাংবাদিক তোয়াব খান আর নেই 

একুশে পদকপ্রাপ্ত বর্ষীয়ান সাংবাদিক তোয়াব খান আর নেই 


রাজনৈতিক সহিংসতায় ৯ মাসে মৃত্যু ৫৮ আসকের প্রতিবেদন

রাজনৈতিক সহিংসতায় ৯ মাসে মৃত্যু ৫৮ আসকের প্রতিবেদন


ইউক্রেন নিয়ন্ত্রিত চার অঞ্চলকে রুশ ফেডারেশনের অংশ ঘোষণা দিয়েছেন ভ্লাদিমির পুতিন।

ইউক্রেন নিয়ন্ত্রিত চার অঞ্চলকে রুশ ফেডারেশনের অংশ ঘোষণা দিয়েছেন ভ্লাদিমির পুতিন।


রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা টেকনাফে পাঁচ কৃষককে অপহরণ করল


বিদায় বেনজীর 

বিদায় বেনজীর