Monday, June 13th, 2016
বাউফল: অধরা ৫ ধর্ষক
June 13th, 2016 at 11:15 pm
বাউফল: অধরা ৫ ধর্ষক
পটুয়াখালী: জেলার বাউফল উপজেলায় সংখ্যালঘু হিন্দু ধর্মাবলম্বী মা ও মেয়েকে গণধর্ষণে জড়িতদের ধরতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে পুলিশ। ইতিমধ্যে গ্রেফতার হওয়া স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নূর আলম মল্লিক (৩৫) ঘটনার সাথে জড়িত তিন জনের নাম বলেছেন। তারা প্রত্যেকেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। তবে জড়িত আরো দুজনের নাম এখনো জানা যায়নি।
বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজম খান ফারুকী নিউজনেক্সটবিডি ডটকম’কে সোমবার রাতে এ তথ্য জানিয়েছেন।
ওসি আজম বলেন, ‘নূর আলম মোট তিন জনের নাম বলেছে। তদন্তের স্বার্থেই আপাতত এদের নাম প্রকাশ করা ঠিক হবে না। এরা সবাই ক্ষমতাসীন দলের সাথে জড়িত। তবুও আমাদের ওপর সরকার দলীয় কোনো চাপ নেই। তাদের গ্রেফতারের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে। এক্ষেত্রে আমরা উন্নত প্রযুক্তির সহায়তাও নিচ্ছি।’
মাঝ নদীতে নিয়ে ধর্ষনের এই রোমহর্ষক ঘটনার সাথে স্থানীয় এক ট্রলারের চালক ও হেলপারও জড়িত জানিয়ে ওসি বলেন, ‘নূর আলম তাদের নাম জানাতে পারেনি। তার দেয়া তথ্য মতে ছয় জন ধর্ষনে অংশ নিয়েছে। আর মামলার বাদী বলছেন, তারা ছিলো নয় জন।’ এর আগে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সংবাদে সাত জন ধর্ষকের কথা বলা হয়েছিলো।
নিউজনেক্সটবিডি ডটকম’কে ওসি আরো জানান, ধর্ষনের আলামত পেয়েছে পুলিশ। ধর্ষিতাদের ডাক্তারি পরীক্ষা ও চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী সদরের দুইশ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
এদিকে মা ও মেয়েকে গণধর্ষণে জড়িত থাকায় স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের দুই নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। সোমবার এ দুই নেতাকে বহিষ্কার করা হয় বলে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হারুন অর রশিদ খান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।
বহিষ্কৃত দুই নেতা হলেন উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের রায় তাঁতেরকাঠি গ্রামের বাসিন্দা এক নম্বর ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি নুর আলম মল্লিক (৩৫) ও সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রহিম (৩০)।
অন্যদিকে ধর্ষণের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন আসামি নূর আলম মল্লিক। সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টায় পটুয়াখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আমিরুল ইসলামের কাছে এ জবানবন্দি দেন তিনি। পরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২২ ধারায় তিনি ধর্ষণের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বিচারকের কাছে জবানবন্দী দেন।
এর আগে গত শনিবার রাতে উপজেলার কাছিপাড়া ইউনিয়নের উত্তর কাছিপাড়া গ্রামের এক গৃহবধূ (৩৮) ও তার কলেজপড়ুয়া মেয়েকে (১৭) একটি ট্রলারে তুলে ভরিপাশা পয়েন্টে তেঁতুলিয়া নদীর চর ঈশানের কাছে নিয়ে গণধর্ষণ করেন বহিষ্কৃত স্বেচ্ছাসেবক লীগের ওই দুই নেতাসহ আরো পাঁচ জন।
ভিকটিমদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাদের উদ্ধার ও ধর্ষক নুর আলমকে আটক করে। বাকি ধর্ষকরা পালিয়ে ‍যায়। এ ঘটনায় পরদিন রোববার বাউফল থানায় পাঁচ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ‍মামলা করেন ধর্ষিত গৃহবধূর স্বামী। কিন্তু পুলিশ সোমবার রাত অবধি একজন ছাড়া আর কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।
নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/এসকে

সর্বশেষ

আরও খবর

রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি


অপারেশনের পর সুস্থ আছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল

অপারেশনের পর সুস্থ আছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল


কুমিল্লার মূল অভিযুক্ত পালিয়ে বেড়াচ্ছে, দ্রুতই গ্রেপ্তার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কুমিল্লার মূল অভিযুক্ত পালিয়ে বেড়াচ্ছে, দ্রুতই গ্রেপ্তার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী


দেবীগঞ্জের অগ্নিকাণ্ড নিছক দূর্ঘটনা: ইউএনও

দেবীগঞ্জের অগ্নিকাণ্ড নিছক দূর্ঘটনা: ইউএনও


ওয়েবসাইট বন্ধ করে দিয়েছে ইভ্যালি কর্তৃপক্ষ

ওয়েবসাইট বন্ধ করে দিয়েছে ইভ্যালি কর্তৃপক্ষ


মিরপুরে খালে পড়ে নিখোঁজ ব্যক্তিকে ৬ ঘণ্টা পর জীবিত উদ্ধার

মিরপুরে খালে পড়ে নিখোঁজ ব্যক্তিকে ৬ ঘণ্টা পর জীবিত উদ্ধার


ফেসবুকে কিডনি বেচাকেনা, চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

ফেসবুকে কিডনি বেচাকেনা, চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার


সেই ভুয়া অতিরিক্ত সচিবের বিরুদ্ধে মামলা করবেন মুসা বিন শমসের

সেই ভুয়া অতিরিক্ত সচিবের বিরুদ্ধে মামলা করবেন মুসা বিন শমসের


শান্তিতে নোবেল পেলেন দুই সাংবাদিক

শান্তিতে নোবেল পেলেন দুই সাংবাদিক


তিন দিনে ১ লাখ ২৫ হাজার অবৈধ মুঠোফোন শনাক্ত

তিন দিনে ১ লাখ ২৫ হাজার অবৈধ মুঠোফোন শনাক্ত