Saturday, February 25th, 2017
‘বিডিআর বিদ্রোহে জড়িত পলাতকদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে’
February 25th, 2017 at 11:48 am
‘বিডিআর বিদ্রোহে জড়িত পলাতকদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে’

ঢাকা: পিলখানায় বিডিআর বিদ্রোহের সঙ্গে জড়িত পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের সর্বাত্বক চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শনিবার সকালে আগারগাঁও পাসপোর্ট অধিদফতরে পাসপোর্ট সেবা সপ্তাহ- ২০১৭ উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, পিলখানা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত পলাতক আসামিদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে। যারা এমন নৃশংস হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তাদের কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।

তিনি বলেন, পলাতক আসামিদের গ্রেফতার করা গেলে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদেরও খুজে বের করা যাবে। ঘটনার নেপথ্যে অন্য কেউ থাকলে তাদেরও আইনের আওতায় আনা সহজ হবে।

এর আগে সকালে পিলখানা ট্র্যাজেডির ৮ বছর পূর্তি উপলক্ষে বনানীর সামরিক কবরস্থানে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন শেষেও এ বিষয়ে কথা বলেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘মহাজোট সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর প্রথম যে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে তা হলো পিলখানা বিদ্রোহ। আমরা এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেছি। ইতোমধ্যে বিচারের মুখোমুখি করেছি। সাজা কর্যকরের কাছাকাছি। পিলখানা হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের ফাঁসি কার্যকর সময়ের ব্যাপার মাত্র। যারা এখনো পলাতক তাদের বিচারের আওতায় আনার কার্যক্রম চলমান।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, ‘যারা কারান্তরীণ তাদের অনেকেই সাজা ভোগ করতে শুরু করেছেন। আর যাদের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে তাদের সাজা বাস্তবায়নে কার্যক্রম চলমান আছে।’

শহীদদের পরিবারের পক্ষ থেকে এ দুইদিনকে জাতীয় শোক দিবস ঘোষণার দাবির বিষয়ে প্রশ্ন করলে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এই দিনটিকে যথাযোগ্য ভাবে পালন করে আসছি।’

পিলখানা ট্রাজেডির ৮ম বার্ষিকীতে ওই ঘটনায় নিহতদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে। একইসঙ্গে তিন বাহিনীর প্রধানসহ নিহতদের স্বজনরা চোখের জলে শহীদদের স্মরণ করছেন।

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পিলখানায় বিডিআরের জওয়ানরা ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। সেদিন পিলখানার এই বিদ্রোহ ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশের ৫৭টি ইউনিটে। টানা একদিন এক রাত শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি মোকাবিলা করে ২৬ ফেব্রুয়ারি বিদ্রোহ নিয়ন্ত্রণে আসে। এ হত্যাকান্ডে দুভাবে বিচার করা হয়। একটি হলো বাহিনীর নিজস্ব আইনে, অন্যটি ফৌজদারি আইনে।

বিজিবি জানিয়েছে, বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় অভিযুক্তসহ ১৭ হাজার ৩১১ (বিডিআর সদস্য ও বেসামরিক ব্যক্তি) জনকে বিচারের মুখোমুখি করা হয়। তাদের মধ্যে ৬ হাজার ৪১ জনকে বিশেষ আদালত ও ১১ হাজার ২৬৫ জনকে অধিনায়ক সামারি কোর্টের মাধ্যমে বিচার করা হয়। আসামিদের মধ্যে ৯ হাজার ১৯ জনকে বিভিন্ন সাজাসহ চাকরিচ্যুত করা হয়। বাকি ৮ হাজার ২৮৭ জন সরাসরি বিদ্রোহে সম্পৃক্ত না থাকায় তাদের লঘুদ- (তীব্র ভর্ৎসনা, বেতন কর্তন, ডিমোশন ইত্যাদি) দিয়ে চাকরিতে বহাল রাখা হয়েছে। আর হত্যামামলায় অভিযুক্ত ৮৫০ জনের মধ্যে ১৫২ জনকে ফাঁসি, ২৬০ জনকে যাবজ্জীবন ও ২৫৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়।

প্রতিবেদন: প্রীতম সাহা সুদীপ, সম্পাদনা: জাবেদ


সর্বশেষ

আরও খবর

টানা তৃতীয়বারের মতো নির্বাচিত হলেন আইভী

টানা তৃতীয়বারের মতো নির্বাচিত হলেন আইভী


অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে বাস চলার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন

অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে বাস চলার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন


আগুনে পুড়ল রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১২০০ ঘর

আগুনে পুড়ল রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১২০০ ঘর


এবারের বিজয় দিবসে দেশবাসীকে শপথ পড়াবেন প্রধানমন্ত্রী

এবারের বিজয় দিবসে দেশবাসীকে শপথ পড়াবেন প্রধানমন্ত্রী


কমলো এলপিজির দাম

কমলো এলপিজির দাম


উন্নয়নশীল দেশ নিয়ে খুশি না হয়ে, উন্নত দেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

উন্নয়নশীল দেশ নিয়ে খুশি না হয়ে, উন্নত দেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির


জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম মারা গেছেন

জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম মারা গেছেন


ডিআরইউর নতুন সভাপতি মিঠু, সাধারণ সম্পাদক হাসিব

ডিআরইউর নতুন সভাপতি মিঠু, সাধারণ সম্পাদক হাসিব


ওমিক্রন খুবই ঝুঁকিপূর্ণ; সবাইকে প্রস্তুত থাকার আহ্বান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

ওমিক্রন খুবই ঝুঁকিপূর্ণ; সবাইকে প্রস্তুত থাকার আহ্বান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার


নির্বাচনী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

নির্বাচনী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু