Wednesday, August 10th, 2016
‘বিধাতার পুত্র হয়ে উঠি’
August 10th, 2016 at 7:32 pm
‘বিধাতার পুত্র হয়ে উঠি’

বিধুনন জাঁ সিপাই:

মনিরুল ইসলাম (মিরাজ), ইসলাম কে স্রেফ পদবী হিসেবেই বহন করেন না। ইসলাম কে উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত ধর্ম বিবেচনায় ভীনগ্রহে নির্বাসনও দেন নি। ডাক নামের মতই তিনি ইসলাম কে নিয়া নানাবিধ মাধ্যমে ঘুরে বেড়িয়েছেন, বেড়াচ্ছেন এবং আগামীতেও ইচ্ছুক। কবিতা, দর্শন এবং সক্রিয় রাজনীতি এই ধারাবাহিকতায় চিন্তা করতে ভালবাসেন। তার ভালবাসার খবর পাই আমরা কবিতার গলিতে,

‘…ভালবেসে রক্তে মিশে

দু’চোখে আনে শূন্যতার ফাগুন।

হাঁটতে হাঁটতে হাঁটতে..

বিধাতার পুত্র হয়ে উঠি।’  

এই হাঁটতে হাঁটতে বিধাতার পুত্র হওয়ার আশীর্বাদে মনিরুল ইসলাম হাত মুষ্টিবদ্ধ করে শ্লোগানের রাস্তায় নেমে পড়েন সেই একই বিধাতার সাক্ষাতের অভিলাষে। বিধানের কর্তা কে হবে? সেই প্রশ্নের জবাব পেতে রাজপথের লড়াই সংঘাতে চেয়েছেন সামান্যটুকু বিশ্বমাতার দরবারে। আবদারের সুরে বলেছেন ‘ভালবাসি চিরায়ত বাঙ্গালী নারী চরিত্র, তবে সে নারী আমার বিপ্লবী মানসে বাধার দেয়াল তৈরি না করে সহযোদ্ধা হয়ে পাশে থাকবে— স্ব-শরীরে না হোক আমার চিন্তায়, কাজে সে প্রেরণা যোগাবে। সে আমাকে জড়িয়ে রাখবে ‘কালবেলার’ ঠিক মাধবীলতার মতো। নারীর প্রতি আমার ভালবাসা সর্বোচ্চ। আমার এ ভালবাসাকে তাই আমি ‘ভালবাসা বলি না, বলি শ্রদ্ধাবোধ’। কিন্তু মনিরুল ইসলাম আমাদের কখনো জানান নি ‘মাধবীলতা’কে তিনি কি উপহার দিবেন? ‘মাধবীলতা’র যুদ্ধে সহযোদ্ধা তিনি হবেন কিনা আমাদের তা জানা হয় নাই।

প্রথম কাব্যগ্রন্থ, ‘আঁধারে জোনাকি’ বের হয় ২০১৫ সালে। অবিরাম কবিতা প্রসব করে পরের বছর ‘১৬ সালে বের করেন দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘শুকনো জলের কবিতা’। খুব শীঘ্রই আমাদেরকে তৃতীয় কাব্যগ্রন্থ পয়গাম দিবেন মনিরুল ইসলাম।

যারা যুদ্ধে যায় তারাই কি কবি নাকি কবি মাত্রই যুদ্ধে যায়?কবিতা দর্শনের ঘরে কি প্রেমানন্দে থাকে নাকি কবিতা দর্শন সাপে-নেউলে? কবিতা কি যুগের কথা কয় নাকি কবিতা নিজেই যুগের স্রষ্টা? কবিতা সংক্রান্ত আরো হাজারো কথা আমরা বাচালের মত বকে চলছি নিয়মিত আড্ডায়। আশা রাখি পাঠক শীঘ্রই বিস্তারিত জানতে পারবেন।

 

ইনার

সূর্যটা ডুবে গ্যালে পৌন:পুনিক সন্ধ্যা ডানায়

উড়ে আসে আমাদের আলোচ্য জীবন।

থেমে যাওয়া কুহকের ডাক অন্ধকারে

ডুব সাঁতার দিয়ে দিয়ে

মাথা উঁচু করে দাড়ায় যদি প্রান্তিক কোনো পোতাশ্রয়ে,

ফিনফিনে আলোর দ্বান্দ্বিক ভ্রমে মিলায় সেসব ডাক

অকালের কোলে এইসব অভাবের ডোরে

দাড়িয়ে থাকে কেবল

স্ব-ভাবিত অভাব।

সামগ্রিকতার বলপেনে লিখতে চাওয়া–

শঙ্খচিলের দৃষ্টি সীমানা,

বেত বনের জড়ানো আকীর্ণতা,

জারে থাকা কিছু কাকড়াদের জীবন বাধ্য গীত

ভেঙে দ্যায় শক্তির ধ্যান,শরগোলে থেমে যায় তারাদের আলো

আমরা শুধু মেঘের ভাষায় বুঝে নেই ধারণ করা শক্তির ভার

দেওবনে মজুদ থাকা জীবনের স্বরলিপি।

বেভুলা বর্ষার দিন

কালচে ডানার ছায়ায় জানালার পর্দা সরে

আমারে জাগায় এমন বেভুলা সময়

আমি আমারে না দ্যাখতে পাইয়াও কেমন খুঁজি না যেন

যেন আমি জাইনাও নতুন করে জানি–আমি অন্য কোথাও

কবরের ভিতর।সিঁথানে হেলান দিয়া দেখি–

খালি একটা দেহ লইয়া বইসা আছি।

অন্তরের গহীন হইতে যেন কই কই

উড়িয়া উড়িয়া যাই

—সুপারির চূড়ায়,কালা রঙের কদমের পাতায়..

এই যে,আমার কবরের সোঁদা মাটি গড়াইয়া

পড়ে ম্যাঘের কান্দন

কেমন উদাসী উদাসী বাতাস।আহারে!

আমারে জাগাইলো এমন দিবসে—

কোজাগরী পূর্ণিমা আহাশে

আমারে থুইয়া জাগিবে জানি নেবুলা রঙের বাতাস।

আমার ছোট্র কবরে জমা পড়ে খালি

শৈশব,কৈশোর আর পুরানা সকল বইশ্যার দিন

তিরতির করে কাঁপিয়া নিশ্চল এই, ভাঁটফুল জীবন।

নির্মলা পাখা

নির্মলা একটা পাখি আসে

আসে ধীরে,যেন হাওয়ায় দুলতে দুলতে

প্রবেশ করে আমার ভেতরে।

ভালবেসে রক্তে মিশে

দু’চোখে আনে শূন্যতার ফাগুন।

হাঁটতে হাঁটতে হাঁটতে..

বিধাতার পুত্র হয়ে উঠি।ক্ষণিকের পাখি

অবশ জীবন হোতে অলক্ষে নিয়ে নেয় ছুটি,

—আমারও একটা জীবনের ছুটি হয় তখন

ইথারের জরায়ু ছিড়ে জীবনের মধ্যে আরেক জীবন। 

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/বিজেএস/টিএস


সর্বশেষ

আরও খবর

মুক্তিযুদ্ধে যোগদান

মুক্তিযুদ্ধে যোগদান


স্বাধীনতার ঘোষণা ও অস্থায়ী সরকার গঠন

স্বাধীনতার ঘোষণা ও অস্থায়ী সরকার গঠন


শিশু ধর্ষণ নিয়ে লেখা উপন্যাস ‘বিষফোঁড়া’ নিষিদ্ধ!

শিশু ধর্ষণ নিয়ে লেখা উপন্যাস ‘বিষফোঁড়া’ নিষিদ্ধ!


১৯৭১ ভেতরে বাইরে সত্যের সন্ধানে

১৯৭১ ভেতরে বাইরে সত্যের সন্ধানে


সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণে এলেন বেলারুশের সাংবাদিকেরা!

সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণে এলেন বেলারুশের সাংবাদিকেরা!


লুণ্ঠন ঢাকতে বারো মাসে তেরো পার্বণ

লুণ্ঠন ঢাকতে বারো মাসে তেরো পার্বণ


দ্য লাস্ট খন্দকার

দ্য লাস্ট খন্দকার


১৯৭১ ভেতরে বাইরে সত্যের সন্ধানে

১৯৭১ ভেতরে বাইরে সত্যের সন্ধানে


নিউ নরমাল: শহরজুড়ে শ্রাবণ ধারা

নিউ নরমাল: শহরজুড়ে শ্রাবণ ধারা


তূর্ণা নিশীথা

তূর্ণা নিশীথা