Wednesday, January 4th, 2017
বৃক্ষমানব, বৃক্ষহীনমানব
January 4th, 2017 at 9:24 pm
বৃক্ষমানব, বৃক্ষহীনমানব

ইয়াসিন আলী, ঢাকা:

কালের গর্ভে হারিয়ে গেল আরো একটি বছর। অনেক ঘটনা-দুর্ঘটনা, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, চড়াই-উৎরাই, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ও আনন্দ-বেদনার সাক্ষী ছিল বিদায়ী বছর (২০১৬)। বছরটিতে বেশ আলোচনায় ছিল ‘বৃক্ষমানব’ খ্যাত আবুল বাজানদারের সুস্থতার খবরও।

খুলনার পাইকগাছা পৌর সদরের ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মানিক বাজানদারের ছেলে আবুল বাজানদার। পেশায় তিনি দিনমজুর। ২৫ বছরের হতদরিদ্র এই যুবক প্রায় এক দশক ধরে বয়ে বেরিয়েছেন ভাইরাসজনিত বিরল এক চর্মরোগ। আর ওই রোগের ফলে তার দুই হাত এবং পায়ের কিছু অংশ বিকৃত হয়ে অনেকটা গাছের শেকড়ের মতো রূপ নেয়।

খুলনার সাংবাদিক সুনীল দাসের সহায়তায় স্থানীয় একটি হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। এরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘শিকড়দেহ’ আবুল বাজানদারের ছবি ছড়িয়ে পড়লে তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন পোড়া রোগীদের অকৃত্রিম বন্ধু ডা. সামন্ত লাল সেন।

খুলনার ওই হাসপাতাল থেকে ৩০ জানুয়ারি তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করানো হয়। সে সময় চিকিৎসকদের ধারণা ছিল, আবুল বাজানদার ‘এপিডার্মো ডিসপ্লেশিয়া ভেরুকোফরমিস’ রোগে আক্রান্ত। এই রোগটি ‘ট্রি-ম্যান’ (বৃক্ষমানব) সিনড্রম নামে পরিচিত। হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসে সংক্রমণের কারণে এ রোগ হয়।

ড. সামন্ত লাল সেন ‘আবুল বাজানদারের’ ব্যাপারে সাংবাদিকদের বলেন, আসলে এটি কোনো বৃক্ষ নয়। এক ধরনের ভাইরাসের আক্রমণ। জানা মতে বিশ্বে এর আগে এই রোগে এ পর্যন্ত দুইজন রোগীর আক্রান্ত হওয়ার রেকর্ড আছে। এদের মধ্যে একজন ইন্দোনেশিয়ায় এবং অপরজন রোমানিয়ার।

তিনি বলেন, বাজানদারের থাকা-খাওয়া এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত এই চিকিৎসা কতটা ব্যয়বহুল হবে তা এখনো নিশ্চিত নয়।

এরপর স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বাজানদারকে দেখতে হাসপাতালে যান। সেখানে গিয়ে তার চিকিৎসার পাশাপাশি তার পরিবারের খাওয়া দাওয়ার যাবতীয় খরচ সরকার বহন করবে বলে ঘোষণা দেন। এরপর ঢামেকে ৯ সদস্যের একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়। চলতে থাকে বিরল এ রোগের কারণ এবং তার দেহে অস্ত্রোপচারের আবশ্যকতা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পরীক্ষা-নিরীক্ষা। যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণাগারে পাঠানো হয় আবুল বাজানদারের রক্ত এবং চামড়ার নমুনা।

এরপর কয়েকদফা চলে আবুল বাজানদারের অস্ত্রোপচার। অর্থাৎ তার দুই হাতের শিকড়ের মতো অংশবিশেষ অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কেটে ফেলে সে স্থানে নতুন চামড়া লাগানো হয়। জটিল এই অপারেশন নিয়ে চিকিৎসকরা সংশয়ে থাকলেও শেষ পর্যন্ত তারাও স্বস্তি প্রকাশ করেন।

এ রোগের ব্যাপারে আবুল বাজানদারের মা আমেনা বেগম বলেন, কয়েকবছর আগে বাজানদারের দেহে প্রথম এ রোগ দেখা দেয়। তখন তার বয়স ১৫ বছর। সে বছর খুলনায় বৃষ্টিপাতে চারদিক ডুবে যায়। বৃষ্টির পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় সর্বত্র জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। থই থই পানির মধ্যে ভ্যান চালিয়ে সংসার চালাতেন আবুল বাজানদার। এক সময় তার হাতে ও পায়ে আঁচিলের মতো দেখা দেয়। সে আঁচিল ১০ বছরে ধীরে ধীরে ‘শিকড়ে’ রূপ নেয়। এরপড় তার দুই পায়ের কিছু অংশেও এ রোগ ছড়িয়ে পড়ে।

বিভিন্নজনের থেকে আর্থিক সহায়তা পেয়ে বৃক্ষমানবের প্রাথমিক চিকিৎসা চালানো হয়। আট ভাই-বোনের পরিবারের ষষ্ঠ সন্তান আবুল বাজানদার শারীরিক এ সমস্যার মধ্যে ভালোবেসে বিয়ে করেন হালিমা নামের একটি মেয়েকে। এখন তিনি তিন বছরের এক কন্যা সন্তানের বাবা।

খুলনায় আবুল বাজানদারের বাড়িটি একজন দখল করে নেয়ায় অন্য একজনের জমিতে তারা ঘর তুলে থাকতেন। আবুল পরিবারের এই কাহিনী শুনে শমরিতা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ এম এউ কবীর চৌধুরী বাড়ি ও চাষাবাদের জন্য জমি কিনতে বাজানদারের হাতে ছয় লাখ টাকার একটি চেক তুলে দেন।

আবুল বাজানদারের অপারেশনের শুরুতে ডাক্তাররা নিশ্চিত হয়েছিলেন তার সমস্যাটি ক্যান্সারে রূপ নেয়নি। তবে অপারেশনের পর ডাক্তাররা ভয়ে ছিলেন তার শেকড় আবার নতুন করে ফিরে আসে কিনা! কিন্তু বাজানদারের মনে বিশ্বাস ছিলো সেগুলো আর ফিরবে না। প্রায় এক বছরের চিকিৎসায় আঁচিলমুক্ত হয়েছে বাজানদারের হাত-পা। এখন হাত দিয়ে জিনিসপত্র ধরতে পারেন তিনি। আর কয়েক দফা ছোট ছোট অস্ত্রোপচারে হাত পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার আশা দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।

সম্পাদনা: প্রীতম সাহা সুদীপ


সর্বশেষ

আরও খবর

ইউরোপে মানবপাচার চক্রের তিনজনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব

ইউরোপে মানবপাচার চক্রের তিনজনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব


বিশ্বকাপের ধারাভাষ্যে আতহার আলি

বিশ্বকাপের ধারাভাষ্যে আতহার আলি


বাসের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু, উপচেপড়া ভিড়

বাসের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু, উপচেপড়া ভিড়


বিমানের বহরে পঞ্চম বোয়িং

বিমানের বহরে পঞ্চম বোয়িং


অভিযুক্তদের বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য ২৪ ঘণ্টা সময় নিল শোভন-রাব্বানী

অভিযুক্তদের বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য ২৪ ঘণ্টা সময় নিল শোভন-রাব্বানী


‘সন্তানের জন্য যা যা করতে হয় প্রধানমন্ত্রী তাই আমার জন্য করেছেন’

‘সন্তানের জন্য যা যা করতে হয় প্রধানমন্ত্রী তাই আমার জন্য করেছেন’


দাঙ্গার পর দ্বিতীয় রাতেও শ্রীলঙ্কাজুড়ে কারফিউ, গ্রেফতার ৬০

দাঙ্গার পর দ্বিতীয় রাতেও শ্রীলঙ্কাজুড়ে কারফিউ, গ্রেফতার ৬০


নাটোরে মা ও প্রতিবন্ধি সন্তানের মরদেহ উদ্ধার

নাটোরে মা ও প্রতিবন্ধি সন্তানের মরদেহ উদ্ধার


ইগলু আইসক্রিমকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা

ইগলু আইসক্রিমকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা


বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় দেশে ফিরছেন ওবায়দুল কাদের

বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় দেশে ফিরছেন ওবায়দুল কাদের