Thursday, August 11th, 2016
‘ভালো থেকো ফুল মিষ্টি বকুল’
August 11th, 2016 at 6:22 pm
‘ভালো থেকো ফুল মিষ্টি বকুল’

ফজলুর রহমান: ১২ বছর। মহাকালের হিসেবে খুব লম্বা সময় নয়; কিন্তু মানুষের ছোট্ট জীবনের জন্য, বেদনার জন্য, বিচ্ছেদের জন্য এ এক লম্বা সময়! তিনি নেই এ শহরে এক যুগ। অথচ তিনি এখনো আছেন প্রবলভাবে। তিনি তার চিন্তায়, তার কথায়, জীবনযাপনে এবং অবশ্যই লেখায় প্রবলভাবে নাড়া দিতে চেয়েছিলেন। তিনি তা পেরেছেন।

এই শহরে, এই দেশে প্রতিদিন নতুন কথা বলার মানুষ ছিলেন তিনি। তার প্রতিটি লেখা, প্রতিটি বই সাক্ষ্য দেয়- তিনি অন্যরকম মানুষ ছিলেন। অন্যরকম সাহসী এক মানুষ। বিপদজনকভাবে বাঁচতে জানা এক মানুষ।

আগুনের ওপর দিয়ে হেঁটে গেছেন তবু নিজের মত থেকে সরে যাননি একচুলও। যা সত্য, যা কিছু সুন্দর, যা কিছু নান্দনিক, যা কিছু শৈল্পিক তার পক্ষে বাজি ধরেছিলেন তিনি। মরে যেতে চেয়েছিলেন এক ফোঁটা শিশির বিন্দুর জন্যে। সত্যি সত্যি ফুলের গন্ধে তার ঘুম আসতো না।

বাঙালির হীনমন্যতা, নষ্টামী-ভণ্ডামী নিয়ে তিনি কথা বলতেন ধারালো ছুরি হয়ে। আর মানুষের পক্ষে দাঁড়িয়ে সব ধরণের মোল্লাতন্ত্রের বিরুদ্ধে লিখতেন আগুনগদ্য। কবিতার জন্য, সুন্দরের জন্য আমৃত্যু পিপাসু এই মানুষটিকে ধর্মান্ধ শয়তানরা নির্মমভাবে চাপাতি দিয়ে কুপিয়েছিলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে, যে আঙিনা ছিলো এই মানুষটির এক ধরণের প্রেয়সী!

মানুষটির নাম হুমায়ুন আজাদ। পণ্ডিত হুমায়ুন আজাদ। কবি হুমায়ুন আজাদ। এই শহরের একটা প্রাণ হুমায়ুন আজাদ। ২০০৪ সালের ১১ আগস্ট থেকে তিনি দূর, বহুদূরে চলে গেছেন। তার এই চলে যাওয়া কতটা বেদনার তা এদেশ, এ রাষ্ট্র না বুঝলেও বোঝে মৌলি আজাদ, স্মিতা আজাদ আর অনন্য আজাদ। ওরা হুমায়ুন আজাদের সন্তান। ওরা সেই বাবার সন্তান যিনি বলতেন, ‘ভালো থেকো ফুল মিষ্টি বকুল/ভালো থেকো/ভালো থেকো ধান ভাটিয়ালী গান/ভালো থেকো।’

fojlur rahaman

লেখক: সাংবাদিক ও লেখক


সর্বশেষ

আরও খবর

গণতন্ত্রের রক্ষাকবজ হিসাবে গণমাধ্যম ধারালো হাতিয়ার

গণতন্ত্রের রক্ষাকবজ হিসাবে গণমাধ্যম ধারালো হাতিয়ার


মহামারী, পাকস্থলির লকডাউন ও সহমতযন্ত্রের নরভোজ

মহামারী, পাকস্থলির লকডাউন ও সহমতযন্ত্রের নরভোজ


ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করুন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করুন


নাচ ধারাপাত নাচ!

নাচ ধারাপাত নাচ!


মাতৃভাষা বাংলা’র প্রথম লড়াই ১৮৩৫ সালে হলেও নেই ইতিহাসে!

মাতৃভাষা বাংলা’র প্রথম লড়াই ১৮৩৫ সালে হলেও নেই ইতিহাসে!


তারুণ্যের ইচ্ছার স্বাধীনতা কোথায়!

তারুণ্যের ইচ্ছার স্বাধীনতা কোথায়!


সমাজ ব্যর্থ হয়েছে; নাকি রাষ্ট্র ব্যর্থ হয়েছে?

সমাজ ব্যর্থ হয়েছে; নাকি রাষ্ট্র ব্যর্থ হয়েছে?


যুদ্ধ এবং প্রার্থনায় যে এসেছিলো সেদিন বঙ্গবন্ধুকে নিয়েই আমাদের স্বাধীনতা থাকবে

যুদ্ধ এবং প্রার্থনায় যে এসেছিলো সেদিন বঙ্গবন্ধুকে নিয়েই আমাদের স্বাধীনতা থাকবে


বঙ্গবন্ধু কেন টার্গেট ?

বঙ্গবন্ধু কেন টার্গেট ?


আমি বাংলার, বাংলা আমার, ওতপ্রোত মেশামেশি…

আমি বাংলার, বাংলা আমার, ওতপ্রোত মেশামেশি…