Wednesday, June 22nd, 2016
মানসিক প্রস্তুতি, অতপর অস্ত্রের ট্রেনিং
June 22nd, 2016 at 8:18 pm
মানসিক প্রস্তুতি, অতপর অস্ত্রের ট্রেনিং

ঢাকা: মানসিকভাবে অপারেশনের জন্য প্রস্তুত করে তারপর জঙ্গিদের চাপাতি ও অস্ত্র চালানোর ট্রেনিং দেয়া হয় বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের যুগ্ম কমিশনার আব্দুল বাতেন।

তিনি বলেন, ‘তরুনদের আগে ধর্মীয় কথা-বার্তা বলে রিক্রুট করা হয়। তারপর তাদের অপারেশনের মানসিক প্রস্তুতি ও মোটিভেশন (প্রণোদনা) দেয়া হয়। এরপর ফিজিকাল (শারীরিক) ট্রেনিং। সর্বশেষে তাদের চাপাতি ও অস্ত্র চালানোর ট্রেনিং দেয়া হয়।’

বুধবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গণমাধ্যম শাখায় সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এসব তথ্য জানান।

শুদ্ধস্বরের প্রকাশক আহমেদুর রশীদ টুটুল হত্যাচেষ্টাসহ ৪টি ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে গত ১৫ জুন জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলাটিমের সদস্য মো. সুমন পাটোয়ারী ওরফে সাকিব ওরফে সিহাব ওরফে সাইফুলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকালে ঢাকা মহানগর হাকিম আহসান হাবিবের খাস কামরায় জবানবন্দি দেন তিনি। সিহাবের দেয়া জবানবন্দির ভিত্তিতেই সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান ডিবি পুলিশের এই কর্মকর্তা।

ABT

সিহাব কিভাবে এ পথে এলো এমন প্রশ্নের জবাবে আব্দুল বাতেন বলেন, সে (সিহাব) যখন ডিগ্রিতে পড়াশোনা করতো তখন এক ব্যক্তির সঙ্গে তার পরিচয় হয়। ওই ব্যক্তি তাকে নানা ধরনের ধর্মীয় কথাবার্তা বলতো। এভাবেই একটা সময় সে মোটিভেট হয়ে জঙ্গি কার্যক্রমে যোগ দেয়।

তিনি বলেন, সিহাব দীপন হত্যাকাণ্ড ও মোহাম্মদপুরের জঙ্গি আস্তানা থেকে গোলাবারুদ উদ্ধারের ঘটনা সম্পর্কে জানতো বলে পুলিশকে তথ্য দিয়েছে। সম্প্রতি বন্দুকযুদ্ধে নিহত জঙ্গি শরীফ (মুকুল রানা) অভিজিৎ হত্যাসহ সব কয়টি ঘটনায় জড়িত ছিল বলেও জানায় সিহাব।

এরআগে মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর মূখ্য হাকিম আদালতে  ১২ পৃষ্ঠার স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দীতে সিহাব জানায়, বড় ভাইয়ের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে তারা টুটুল হত্যাচেষ্টায় অংশ নেন। টঙ্গীর বর্ণমালা রোডের একটি বাসায় তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হতো। টুটুল হত্যাচেষ্টায় সরাসরি অংশ নেন পাঁচজন। অপর একজন অপারেশনস্থলের আশপাশে অবস্থান করে পুরো বিষয়টি সমন্বয় করেন। অন্য দু’জন পরিকল্পনা ও প্রশিক্ষণের সঙ্গে যুক্ত। পুরো প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত ছিলেন আটজন।

সিহাব আরো জানায়, উগ্রপন্থিরা যার কাছ থেকে সবচেয়ে বেশি প্রশিক্ষণ নেন সেই বড় ভাই তাদের কাছে ইশতিয়াক নামে পরিচিত। বড় ভাই জিহাদের প্রয়োজনে সরকারি একটি সংস্থা থেকে চাকরি ছেড়ে দেন। টুটুল হত্যাচেষ্টার অপারেশনের আগে টানা তিন মাস টঙ্গীর বাসায় পাঁচজনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। ওই বাসায় আরো কয়েকজন থাকলেও পরে তারা অন্যত্র চলে যান। ম্যানুয়াল তৈরি করে পাঁচজনকে বিশেষ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। হামলার কয়েক দিন আগে টুটুলের ছবি দেখিয়ে বলা হয়, তার ওপর হামলা করতে হবে। এরপর এলাকা রেকি করতে একদিন তাকে লালমাটিয়ায় টুটুলের কার্যালয়ের আশপাশ ঘুরিয়ে আনা হয়। রেকি করতে শিহাবের সঙ্গে যান ইশতিয়াক, মুকুল ওরফে শরীফুলসহ চারজন।

জবানবন্দীতে সিহাব আরো জানায়,  ‘গত বছর চট্টগ্রামে তার সঙ্গে একজনের পরিচয় হয়। সেখানে একটি মসজিদে তারা প্রায়ই দেখা করতেন। একদিন ওই ব্যক্তি তাদের ইন্টারনেটে কোনো একটি সোশ্যাল সাইটে একটি আইডি খুলে দেয়। ওই আইডির মাধ্যমে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ হতো। ওই ব্যক্তি একদিন তাকে প্রস্তাব দেয় ঢাকা যাওয়ার। এর পর ঢাকায় এলে তাদের তিন মাস প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। প্রথমে একজন ওই বাসায় এসে ব্যায়াম করাতেন আর কোরআন পড়াতেন। এরপর আরেকজন এসে চাপাতি চালানো শেখান। পরে একজন এসে পিস্তল চালানো শেখান। প্রায়ই বাসায় বড় ভাই ইশতিয়াক এসে বলতেন, আমরা সকলে আল্লাহর জন্য জিহাদ করছি। জিহাদ থেকে পিছপা হওয়ার সুযোগ নেই।’

 গতবছরের অক্টোবরের ৩১ তারিখ সকালে তারা টঙ্গীর বাসা থেকে লালমাটিয়ায় শুদ্ধস্বরের কার্যালয়ের আশপাশে যান। সেখানে তারা প্রথমে একটি মসজিদের পাশে জড়ো হন। দুপুর সাড়ে ১২টার পর টুটুল তার কার্যালয়ে ঢোকেন। পৌনে ৩টার দিকে এবিটির পাঁচ সদস্য মূল অপারেশন শুরু করেন। প্রথমে একজন শুদ্ধস্বরের কার্যালয়ে ঢুকে নিরাপত্তারক্ষীকে পিস্তল ঠেকান। এরপর অন্যরা মূল অফিসে প্রবেশ করে টুটুল ও তার দুই বন্ধুর ওপর হামলা চালান। টুটুলকে তিনটি কোপ দেন সিহাব। অপারেশন শেষে তারা টঙ্গীর বাসায় একত্র হন। এরপর যে যার মতো পালিয়ে যান। সিহাব তার চট্টগ্রামের বাসায় ফেরত যান।’

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/পিএসএস/জাই


সর্বশেষ

আরও খবর

গ্রেফতার হলেন মামুনুল হক

গ্রেফতার হলেন মামুনুল হক


করোনায় দেশে একদিনে শতাধিক মৃত্যুর রেকর্ড

করোনায় দেশে একদিনে শতাধিক মৃত্যুর রেকর্ড


করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়াল ১০ হাজার

করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়াল ১০ হাজার


জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বের হলেই জরিমানা

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বের হলেই জরিমানা


লকডাউনের নামে সরকার ক্র্যাকডাউন চালাচ্ছে: ফখরুল

লকডাউনের নামে সরকার ক্র্যাকডাউন চালাচ্ছে: ফখরুল


আসামে বন্দী রোহিঙ্গা কিশোরীকে কক্সবাজারে চায় পরিবার

আসামে বন্দী রোহিঙ্গা কিশোরীকে কক্সবাজারে চায় পরিবার


ছয় দিনে নির্যাতিত অর্ধশত সাংবাদিক: মামলা নেই, কাটেনি আতঙ্ক

ছয় দিনে নির্যাতিত অর্ধশত সাংবাদিক: মামলা নেই, কাটেনি আতঙ্ক


ঢাকা-দিল্লি ৫ সমঝোতা স্মারক সই

ঢাকা-দিল্লি ৫ সমঝোতা স্মারক সই


করোনায় আরও ৩৯ মৃত্যু

করোনায় আরও ৩৯ মৃত্যু


নাশকতা ঠেকাতে র‍্যাব-পুলিশের কঠোর অবস্থান

নাশকতা ঠেকাতে র‍্যাব-পুলিশের কঠোর অবস্থান