Tuesday, September 27th, 2016
মুক্ত রাষ্ট্র ও কারাগার রাষ্ট্র
September 27th, 2016 at 12:37 pm
মুক্ত রাষ্ট্র ও কারাগার রাষ্ট্র

মাসকাওয়াথ আহসান: পৃথিবীতে দু’রকমের রাষ্ট্র চোখে পড়ে। সত্যিকার সফল রাষ্ট্র যারা; অর্থাৎ জার্মানী-ক্যানাডার মতো রাষ্ট্র; এরা কল্যাণরাষ্ট্র। এই রাষ্ট্রগুলো জনগণের মৌলিক মানবাধিকার নিশ্চিত করে; অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান-স্বাস্থ্যসেবা-শিক্ষার ব্যবস্থা করে; পাশাপাশি জনগণের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করে। অর্থাৎ জার্মানী-ক্যানাডা রাষ্ট্র ও সরকার জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করে। সরকারগুলো কার্যকরভাবে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে। জনগণ সরকারের যে কোন কাজের সমালোচনা করার অধিকার ভোগ করে; সরকারের যে কোন দপ্তরের কর্মকান্ড সম্পর্কে প্রশ্ন উত্থাপন করতে পারে; সরকারগুলোও সে প্রশ্নের জবাব দিতে বাধ্য থাকে। এই রাষ্ট্রগুলোকে মুক্ত রাষ্ট্র বলা যায়। কারণ জনগণের জীবনে স্বাধীনতা শব্দটি অর্থবহ হয়।

অন্যদিকে পুলিশী রাষ্ট্র যারা; যেমন যুক্তরাষ্ট্র-পাকিস্তানের মতো রাষ্ট্র; এরা অকল্যাণরাষ্ট্র। এরা জনগণের মৌলিক চাহিদা পূরণ ও সেবা তো করেই না; তার-ওপরে গোয়েন্দা সংস্থা, এলিট ফোর্স, পুলিশ এসব নিরাপত্তা রক্ষী সংস্থা ব্যবহার করে জনগণকে ভীতির মধ্যে রাখে। অর্থাৎ ‘ভাত দেয়ার মুরোদ নেই, কিল দেবার গোসাই’ টাইপের আচরণ এসব রাষ্ট্রের শাসক গোষ্ঠীর। এরা রাষ্ট্রীয় বাহিনীর পেশীশক্তি ব্যবহার করে মুক্ত মত প্রকাশে বাধা সৃষ্টি করে। কতৃত্বপরায়ণ এই রাষ্ট্রগুলো আজও সেই মান্ধাতার আমলের শাসকের মতো আচরণ করে। এই রাষ্ট্রগুলোতে রাষ্ট্রীয় পেশীশক্তি বাহিনীগুলো জবাবদিহিতার বাইরে থাকে। এরকম রাষ্ট্রের জনগণ ক্ষমতা কাঠামোর হাতে জিম্মি জীবন কাটায়। এই রাষ্ট্রগুলোকে কারাগার রাষ্ট্র বলা যায়।

এই কল্যাণকর ও অকল্যাণকর; দুই রকম রাষ্ট্রের মধ্যে কল্যাণকর রাষ্ট্রগুলোতেই রাষ্ট্রের ও সরকার ব্যবস্থার সুফল জনগণ পায়। পুরো বিশ্ব এই রাষ্ট্রগুলোকে সভ্য রাষ্ট্র হিসেবে শ্রদ্ধা করে। উন্নয়নশীল রাষ্ট্রগুলো জার্মানী-ক্যানাডার মত রাষ্ট্রকেই আদর্শ রাষ্ট্রের মডেল হিসেবে বিবেচনা করে। অন্যদিকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে যারা অকল্যাণকর পুলিশি রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তানকে অনুসরণ করে; তারা ব্যর্থ হয়; অসভ্য রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বব্যাপী গণধিকৃত হয়। অসংখ্য উন্নয়নের পরিসংখ্যান দেখিয়েও এদের পক্ষে নিজেদের সফল প্রমাণ করা সম্ভব হয়না। কারণ রাষ্ট্রের নাগরিকের শ্রমে-ঘামে অর্জিত অর্থে পালিত সরকার ও পেশী শক্তি বাহিনীরা যদি নাগরিকদেরকেই জিম্মি করে রাখে; সেরকম পরিস্থিতিতে জনগণের কাছে রাষ্ট্র-রাজনীতি-সরকার-গণতন্ত্র-স্বাধীনতা এসব শব্দগুলো অর্থহীন কতগুলো লিপ-সার্ভিস হিসেবে পরিগণিত হয়।

অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন তাই জনগণের ইচ্ছার স্বাধীনতা বা ফ্রিডম অফ চয়েসকে সুষম উন্নয়ন বা ‘গ্রোথ উইদ ইক্যুইটি’র গুরুত্বপূর্ণ সূচক হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। কারণ জনগণের ইচ্ছার স্বাধীনতা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা না থাকলে কেবল ক্ষমতা-কাঠামো ও তার প্রতি অন্ধ আনুগত্য প্রকাশকারী একটি সুবিধাবাদী শ্রেণী উন্নয়নের যাবতীয় সুফল ভোগ করে। ধনী আরো ধনী হয়; দরিদ্র হয় আরো দরিদ্র। জবাবদিহিতাহীন রাষ্ট্রের নিরংকুশ ক্ষমতার অপব্যবহার দমন নিপীড়নের মাধ্যমে যে কোন অন্যমত ও ভিন্নমতকে স্তব্ধ করে দিয়ে ক্ষমতা-বানিজ্যের দুষ্টচক্র সচল রাখতে চেষ্টা করে এর শাসনদন্ড। যুক্তরাষ্ট্র যেমন জনগণকে চোখ ধাঁধানো উন্নয়নের পরিসংখ্যান দেখায়; কিন্তু এর সমুদয় সম্পদ কুক্ষিগত গুটিকতকের হাতে। অন্যান্যরা সে উন্নয়নের গল্প শোনে কিন্তু নিজের জীবনে এর প্রতিফলন দেখতে পায় না; বরং নিজেকে খুঁজে পায় এক ঘোষিত-অঘোষিত কারাগারে। তাই বিকাশমান উন্নয়ন প্রত্যাশী রাষ্ট্রগুলোর যুক্তরাষ্ট্র না হয়ে মুক্তরাষ্ট্র হবার চেষ্টা করাই যৌক্তিক। ইতিহাস ও ঘটমান বর্তমান সাক্ষ্য দেয়, জনগণের জন্য কারাগার রচনাকারী যে কোন শাসন ও কথিত উন্নয়ন মডেল ব্যর্থ হতে বাধ্য।

MASKAWATH

লেখক: প্রবাসী সাংবাদিক ও ব্লগার


সর্বশেষ

আরও খবর

আমি বাংলার, বাংলা আমার, ওতপ্রোত মেশামেশি…

আমি বাংলার, বাংলা আমার, ওতপ্রোত মেশামেশি…


শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্মদিন: ‘পুতুল’ খেলার আঙিনায় বেজে উঠুক ‘জয়’র বাঁশি

শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্মদিন: ‘পুতুল’ খেলার আঙিনায় বেজে উঠুক ‘জয়’র বাঁশি


বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর আগেই পাকিস্তান ক্ষমা চাইবে ?

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর আগেই পাকিস্তান ক্ষমা চাইবে ?


শেখ হাসিনা কতোখানি চ্যালেঞ্জিং এখনো?

শেখ হাসিনা কতোখানি চ্যালেঞ্জিং এখনো?


প্রণব মুখোপাধ্যায় : বিশ্ব-রাজনীতির মহাপ্রাণ

প্রণব মুখোপাধ্যায় : বিশ্ব-রাজনীতির মহাপ্রাণ


দয়া করে ক্রসফায়ারের স্ক্রিপ্টটি ছিঁড়ে ফেলুন

দয়া করে ক্রসফায়ারের স্ক্রিপ্টটি ছিঁড়ে ফেলুন


দক্ষিণ এশিয়াঃ সীমান্তবিহীন এক অবিভাজিত অচলায়তন

দক্ষিণ এশিয়াঃ সীমান্তবিহীন এক অবিভাজিত অচলায়তন


লুণ্ঠন ঢাকতে বারো মাসে তেরো পার্বণ

লুণ্ঠন ঢাকতে বারো মাসে তেরো পার্বণ


লেটস্ কল অ্যা স্পেড অ্যা স্পেড!

লেটস্ কল অ্যা স্পেড অ্যা স্পেড!


পররাষ্ট্রনীতিতে, ম্যারেজ ইজ দ্য এন্ড অফ লাভ

পররাষ্ট্রনীতিতে, ম্যারেজ ইজ দ্য এন্ড অফ লাভ