Wednesday, August 3rd, 2016
‘মুখ ও মুখোশ’ মুক্তির হীরক জয়ন্তী
August 3rd, 2016 at 4:25 pm
‘মুখ ও মুখোশ’ মুক্তির হীরক জয়ন্তী

ঢাকা: সময় ধরে রাখা যায় না। সময়ের সঙ্গে পরিবর্তন হয় অনেক কিছুই। আর সময়ের সাথে পেছনে ফেলে আসা অনেক ঘটনাই স্থান করে নেয় ইতিহাসের পাতায়। অনেক সময় তা বেঁচেও থাকে দীর্ঘদিন। আবার সময়ের স্রোতে হারিয়েও যায়। বাংলাদেশ তথা তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রথম সবাক চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’। আব্দুল জব্বার খান নির্মিত এই চলচ্চিত্রটি ১৯৫৬ সালের ৩ আগস্ট মুক্তি পায়। সে হিসাবে সিনেমাটি বুধবার মুক্তির হীরক জয়ন্তী পালন করছে।

১৯৫৩ সালে চলচ্চিত্রটির কাজ শুরু হয়। তখন পূর্ব পাকিস্তানে নিজস্ব কোনো চলচ্চিত্র শিল্প গড়ে ওঠেনি। কলকাতা অথবা লাহোরের হলগুলোতে চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হতো। পশ্চিম পাকিস্তানের চলচ্চিত্র প্রযোজক এফ. দোসানির পূর্ব পাকিস্তানে চলচ্চিত্র প্রযোজনার ব্যাপারে নেতিবাচক মন্তব্যে ক্ষুদ্ধ হয়ে জব্বার খান চলচ্চিত্রটি নির্মাণে উদ্যোগী হন। তারপর জব্বার খান দুই বছর সিনেমাটির কাজ করেন। তৎতকালীন সিনেমাটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছিল ৬৪ হাজার রুপি।

Untitled-2

১৯৫৪ সালের ৬ আগস্ট হোটেল শাহবাগে ‘মুখ ও মুখোশ’ সিনেমার মহরত অনুষ্ঠিত হয়।  মহরতে উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ইস্কান্দার মির্জা। এ সিনেমার স্থানীয় অভিনেতারা পূর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়াই অভিনয় করেন। শুধু তাই নয়, তারা এতে অভিনয় করে কোনো পারিশ্রমিকও নেননি।

পূর্ব পাকিস্তানে তখন প্রোডাকশন স্টুডিও না থাকায়, সিনেমাটির নেগেটিভ ডেভেলপের জন্য লাহোরে পাঠানো হয়। সব মিলিয়ে ১৯৫৬ সালে সিনেমার কাজ সম্পন্ন হয়। কিন্তু ঢাকায় প্রদর্শনের অনুমতি পাননি। তাই ‘মুখ ও মুখোশ’ সিনেমার প্রথম প্রদর্শনী হয় লাহোরে। এত জল্পনা কল্পনা করে যে সিনেমা নির্মাণ করা হলো অথচ ঢাকায় আসার পর সিনেমাটি প্রদর্শনীর বিষয়ে প্রেক্ষাগৃহের মালিকদের কাছ থেকে  আশানুরূপ সাড়া পাননি নির্মাতা। তবে এমন প্রতিবন্ধকতা বেশি দিন ছিল না। অল্প সময়ের মধ্যে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রাম এবং খুলনায় একযোগে প্রদর্শিত হয়। সিনেমার প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠিত হয় রূপমহল প্রেক্ষাগৃহে। তখন সিনেমাটি আয় করেছিল ৪৮ হাজার রুপি।

সিনেমাটির প্রধান পুরুষ চরিত্র রূপায়ণ করেন আব্দুল জব্বার খান, প্রধান নারী চরিত্র রূপায়ণ করেন পূর্ণিমা সেনগুপ্তা। খলনায়ক ছিলেন ইনাম আহমেদ। এছাড়া আরো অভিনয় করেন জহরত আরা, পিয়ারী বেগম, রহিমা খাতুন, বিলকিস বারী, আমিনুল হক ও সাইফুদ্দিন (কৌতুক অভিনেতা)।

‘ডাকাত’ নাটক অবলম্বনে এই সিনেমার চিত্রনাট্য রচনা করেন কলকাতার বিপ্রদাশ ঠাকুর। সিনেমার অন্যান্য কলাকুশলী হলেন চিত্রগ্রাহক মুরারী মোহন। পরে এই দায়িত্ব তুলে নেন সহকারী চিত্রগ্রাহক কিউ এম জামান। অঙ্গসজ্জায় শ্যাম বাবু (আসল নাম শমসের আলী),গানে কণ্ঠ দেন  আবদুল আলীম এবং মাহবুবা হাসনাত, সংগীত পরিচালক সমর দাস, সহকারী সংগীত পরিচালক ধীর আলী, শব্দগ্রহণে ছিলেন মইনুল ইসলাম।

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/এএ/জাই

 


সর্বশেষ

আরও খবর

৬ দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পরীমনি

৬ দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পরীমনি


পরীমনির সাথে ঘনিষ্ঠতা থাকায় ডিবি থেকে বদলি হলেন এডিসি সাকলায়েন

পরীমনির সাথে ঘনিষ্ঠতা থাকায় ডিবি থেকে বদলি হলেন এডিসি সাকলায়েন


পরীমনির কস্টিউম ডিজাইনার জিমি আটক

পরীমনির কস্টিউম ডিজাইনার জিমি আটক


পরীমনির মাদকের দুই মামলা ডিবিতে হস্তান্তর

পরীমনির মাদকের দুই মামলা ডিবিতে হস্তান্তর


চার দিনের রিমান্ডে পরীমনি

চার দিনের রিমান্ডে পরীমনি


পরীমণির পর আটক হলেন প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজ

পরীমণির পর আটক হলেন প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজ


পরীমনির বাসায় মিলেছে মদ, আইস ও এলএসডি, র‍্যাব সদর দপ্তরে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে

পরীমনির বাসায় মিলেছে মদ, আইস ও এলএসডি, র‍্যাব সদর দপ্তরে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে


কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমার মারা গেছেন

কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমার মারা গেছেন


নাসির মাহমুদসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করলেন পরীমণি

নাসির মাহমুদসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করলেন পরীমণি


সিঙ্গাপুরে আইসিইউতে অভিনেতা ফারুক

সিঙ্গাপুরে আইসিইউতে অভিনেতা ফারুক