Thursday, January 10th, 2019
‘যারা আন্দোলনে ব্যর্থ, তারা নির্বাচনেও ব্যর্থ হন’
January 10th, 2019 at 8:17 pm
‘যারা আন্দোলনে ব্যর্থ, তারা নির্বাচনেও ব্যর্থ হন’

ঢাকা: কোনো দল আন্দোলনে ব্যর্থ হলে তারা নির্বাচনেও বিজয়ী হতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোটের সব আন্দোলনই ব্যর্থ হয়েছে। আর আন্দোলন যাদের ব্যর্থ হয়, নির্বাচনে তারা জয়ী হতে পারে না।

এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, সিলেটে ইনাম আহমেদ চৌধুরীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি, যে বেশি টাকা দিয়েছে তাকেই নমিনেশন দেওয়া হয়েছে। ইনাম আহমেদ চৌধুরীকে নমিনেশন দিলে তিনি হয়তো জিততে পারতেন। ধামরাইয়ে আতাউর রহমান খানের ছেলে জিয়াউর রহমান খান নমিনেশন পাবে বলেই ধারণা ছিল। তিনি হয়তো জিততেনও কিন্তু তাকে নমিনেশন দেওয়া হয়নি, নারায়ণগঞ্জে তৈমুর আলম খন্দকারকে নমিনেশন দেওয়া হয়নি— এরকম আরও অনেক জায়গায় তারা যে বেশি টাকা দিয়েছে তাকে নমিনেশন দিয়েছে।

এছাড়া ধানের শীষ প্রতীকে জামায়াতে ইসলামী ২৫ জনকে মনোনয়ন দেওয়ার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের জনগণ এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী। তারা যুদ্ধাপরাধীদের ভোট দেবে না।

তিনি বলেন, আজকে আমরা উন্নয়নশীল দেশ হয়েছিল। মাত্র ১০ বছরে আমরা যা পেরেছি, ২৮ বছরেও অন্যরা তা কেন পারেনি? কারণ তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী নয়। যখনই জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন ক্ষমতায় এসেছে তখনই মানুষের উন্নতি হয়েছে এবং এই উন্নয়ন গ্রামে-গঞ্জে ছড়িয়ে পড়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বেঁচে থাকলে স্বাধীনতার ১০ বছরেই এই দেশ উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হতো। জাতির পিতা আজ নেই। কিন্তু তার আদর্শ আছে। আমরা তার আদর্শ অনুযায়ী দেশ গড়ে তুলতে চাই।

সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।  সূচনা বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। যৌথভাবে সভা পরিচালনা করেন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন। সভায় বক্তব্য রাখেন— আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মতিয়া চৌধুরী, আব্দুল মতিন খসরু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম প্রমুখ। আলোচনা মঞ্চে দলটির কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বরাবরের মতো এবারও নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করে আওয়ামী লীগ। সকালে  ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর ভবনে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলী নিবেদন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। এছাড়া, সকাল সাড়ে ছয়টায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু ভবন ও সারাদেশে সংগঠনের সব কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করার হয়।

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা: এম কে রায়হান


সর্বশেষ

আরও খবর

একাদশ সংসদের যাত্রা শুরু ৩০ জানুয়ারি

একাদশ সংসদের যাত্রা শুরু ৩০ জানুয়ারি


এরশাদকে বিরোধী দলীয় নেতা করে প্রজ্ঞাপন

এরশাদকে বিরোধী দলীয় নেতা করে প্রজ্ঞাপন


প্রথম দিনেই বাণিজ্য মেলায় উপচে পরা ভিড়

প্রথম দিনেই বাণিজ্য মেলায় উপচে পরা ভিড়


প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতিতে ৭ বছরের কারাদণ্ড

প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতিতে ৭ বছরের কারাদণ্ড


ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে ধানের শীষের জয়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে ধানের শীষের জয়


‘ভুঁইফোড়’ অনলাইন মোকাবিলা করা হবে: তথ্যমন্ত্রী

‘ভুঁইফোড়’ অনলাইন মোকাবিলা করা হবে: তথ্যমন্ত্রী


জাতীয় সংলাপসহ তিন সিদ্ধান্ত ঐক্যফ্রন্টের

জাতীয় সংলাপসহ তিন সিদ্ধান্ত ঐক্যফ্রন্টের


পোশাক খাতের মজুরি কাঠামো পর্যালোচনায় ১২ সদস্যের কমিটি

পোশাক খাতের মজুরি কাঠামো পর্যালোচনায় ১২ সদস্যের কমিটি


টেকনাফে র‍্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২

টেকনাফে র‍্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২


চলে গেলেন ভাষাসৈনিক সৈয়দ আব্দুল হান্নান

চলে গেলেন ভাষাসৈনিক সৈয়দ আব্দুল হান্নান