Monday, July 4th, 2022
রহমানের নেতৃত্বেই ২৫টিরও বেশি হামলা
October 21st, 2016 at 7:07 pm
রহমানের নেতৃত্বেই ২৫টিরও বেশি হামলা

প্রীতম সাহা সুদীপ, ঢাকা: আশুলিয়ায় র‌্যাবের অভিযানের সময় পালাতে গিয়ে নিহত নব্য জেএমবির প্রধান শায়খ আবু ইব্রাহিম আল হানিফ ওরফে আবদুর রহমান ওরফে সারওয়ার জাহানের নেতৃত্বে এ পর্যন্ত ২৫টিরও বেশি হামলার ঘটনা ঘটেছে। এমনটাই জানিয়েছেন র‌্যাবের গোয়েন্দারা।

গোয়েন্দা সূত্র মতে, ২০০৭ সালে বাংলা ভাই ও শাইখ আব্দুর রহমান গ্রেফতার হওয়ায় জেএমবি বিশৃঙ্খল হয়ে পড়ে। পরে ২০১৪ সালে নতুন ধারার ধর্মীয় উগ্রবাদ মতাদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে পুরাতন জেএমবি নতুন চেতনায় নব্য জেএমবি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। নব্য জেএমবি পরবর্তী সময়ে স্বশস্ত্র জিহাদের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসার জন্য পরিকল্পনা করতে থাকে এবং একই সঙ্গে দাওয়াতী কার্যক্রম পরিচালনা করতে থাকে।

নব্য জেএমবির সাধারণ সদস্যরা সারোয়ার জাহান ওরফে আব্দুর রহমানকে সূরা সদস্যে মনোনিত করে। অন্যান্য মনোনিত সূরা সদস্যরা সারোয়ার জাহানকে নব্য জেএমবির আমির হিসেবে ঘোষণা করে এবং সারোয়ার জাহানের সাংগঠনিক নাম দেয়া হয় শাইখ আবু ইব্রাহিম আল হানিফ। হানিফের পরামর্শে নব্য জেএমবির সদস্যরা ইনগিমাস (গুপ্ত হামলা) হামলা পরিচালনা শুরু করে।

গোয়েন্দা সূত্র আরো জানায়,  ২০১৫ সালের ৩০ আগস্ট চট্টগ্রামে মিরেরসরাইয়ে আওয়ামী লীগ নেতা ইমরানকে গুলি করে ৬০ লাখ টাকা ছিনতাই এবং একই বছর ৪ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের বাংলাবাজারে নেংটা বাবা ও তার এক সহযোগীকে হত্যা করা হয়। মূলত এ দুটি অপারেশন সফলভাবে পরিচালিত হওয়ায় শাইখ আবু ইব্রাহিম আল হানিফকে নব্য জেএমবির সূরা সদস্যরা বাংলাদেশের নব্য জেএমবিতে বায়াত দেয়ার জন্য অনুমতি দেয়। উদ্ধার নথিপত্র অনুযায়ী হানিফের নেতৃত্বে নব্য জেএমবি বাংলাদেশে দাওয়াত, ইলেম ও তাসকীয়া, ইয়ানত, ইদাদ গ্রুপ, রিবাহ্ এবং কিসাক বা ফিত্না নিরোধন ভিত্তিতে কার্যক্রম পরিচালনা করত বলে জানা যায়।

র‌্যাব জানায়, ২০১৫ সালের ৩০ আগস্ট ও ৪ সেপ্টেম্বর জেএমবির দুটি অপারেশন সফল হওয়ার পর তারা একের পর এক হত্যা চালাতে থাকে। তারা বিদেশি নাগরিক ও বিদেশি প্রতিষ্ঠানের উপর হামলার পরিকল্পনা করে। গুলশান, বনানী, বারিধারায় বসবাসরত বিদেশী নাগরিকরা ছিল তাদের মূল টার্গেট। এছাড়া হোসেনি দালান, মোহাম্মদপুরে রাফিদাদের মন্দির (শিয়া মসজিদ), ঢাকা মিরপুরে ইমাম বারাতে আক্রমন করার পরিকল্পনাও ছিল তাদের।

নব্য জেএমবির নথিপত্র থেকে জানা যায়, শাইখ আবু ইব্রাহিম আল হানিফ ওরফে আব্দুর রহমানের নেতৃত্বে তারা ২০১৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর রাজধানীর গুলশান-২ এ ৯০ নম্বর রোডের মাথায় ইতালির নাগরিক সিজার তাবেলাকে গুলি করে হত্যা করে। ৩ অক্টোবর সকাল ১০টার দিকে রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার কাচু আলুটারী গ্রামে জাপানি নাগরিক হোশি কোনিওকে (৬৫) গুলি করে হত্যা করা হয়। ৫ অক্টোবর সকালে পাবনার ইশ্বরদী পৌর এলাকার নিজ ভাড়া বাসায় ছুরিকাঘাতে ব্যাপিষ্ট মিশন ফেইথ বাইবেল চার্চ অব গডের ফাদার লুক সরকারকে (৫০) হত্যার চেষ্টা করা হয়। ২২ অক্টোবর রাত নয়টার দিকে গাবতলী পর্বত সিনেমা হলের সামনে পুলিশ চেক পোষ্টে যানবাহন তল্লাশীকালে দারুস সালাম থানায় কর্মরত এএসআই ইব্রাহিম মোল্লাকে (৪০) ছুরিকাঘাতে খুন করা হয়।

২৩ অক্টোবর পবিত্র আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতিকালে পুরান ঢাকার হোসনি দালানে বোমা হামলায় এক কিশোর নিহত ও দেড় শতাধিক আহত হন। ৪ নভেম্বর সকাল পৌনে আটটায় নবীনগর-কালিয়াকৈর মহাসড়কের নন্দন পার্কের সামনে পুলিশ চেকপোষ্টে ডিউটিরত শিল্পপুলিশ সদস্য মুকুল হোসেনকে (২৩) ধারালো অস্ত্র দিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে হত্যা করে। ১৮ নভেম্বর দিনাজপুর শহরের মির্জাপুর বিআরটিসির বাসডিপোর সামনে খ্রিষ্টান ইতালীয় ধর্মযাজক ড. পিয়েরো পারোলারি সামিওকে (৬৪) গুলি করে হত্যার চেষ্টা। ২৬ নভেম্বর বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার কিচক ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামে শিয়া মসজিদে মাগরিবের নামাজের সময় ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি করায় মসজিদের মুয়াজ্জিম মোয়াজ্জিম হোসেন (৬০) নিহত হন এবং গুলিবিদ্ধ হন ইমামসহ তিনজন মুসল্লি। ১৮ ডিসেম্বর চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর ঈশা খাঁ ঘাঁটির সুরক্ষিত এলাকার দুটি মসজিদে বোমা বিস্ফোরণে মোট ছয়জন আহত হন।

চলতি বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলায় শ্রী শ্রী সন্ত গৌরীয় মঠের পুরোহিত যজ্ঞেশ্বর দাসাধিকারীকে (৫০) ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে এবং গলা কেটে হত্যা করা হয়। ২৫ মে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী দেবেশ চন্দ্র প্রামাণিককে (৬৮) মহিমাগঞ্জ বাজারে দোকানের ভেতর কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা। ২৫ মে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী দেবেশ চন্দ্র প্রামাণিককে (৬৮) মহিমাগঞ্জ বাজারে দোকানের ভেতর কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা। ৫ জুন ২০১৬ তারিখ নাটোরের বড়াইগ্রামের বনপাড়া খ্রিষ্টান পল্লীতে দিন দুপুরে সুনীল গোমেজ (৬০) নামের এক মুদি ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা। ৭ জুন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার নলডাঙ্গা ইউনিয়নের মহিষডাঙ্গা গ্রামের আনন্দ গোপাল গাঙ্গুলী (৭০) নামে এক বৃদ্ধ পুরোহিতকে গলা কেটে হত্যা।

১০ জুন খ্রিস্টান ধর্ম জাজক নিত্যরঞ্জন পান্ডেকে (৬০) পাবনার হেমায়েতপুরে মানসিক হাসপাতালের সামনে কুপিয়ে হত্যা। ১৫ জুন মাদারীপুর শহরে সরকারি নাজিমউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষক রিপন চক্রবর্তীর ওপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে হত্যার চেষ্টা। ১ জুলাই ঝিনাইদহ সদর উপজেলার উত্তর কাস্টাসাগরা গ্রামে রাধামদন মঠের সেবায়েত শ্যামানন্দ দাসকে (৬২) কুপিয়ে হত্যা। একই দিন ১ জুলাই শুক্রবার রাত ৮ টা ৪৫ মিনিটে রাজধানীর গুলশান ৭৯ নম্বর সড়কে আর্টিজান বেকারী অ্যান্ড রেষ্টুরেন্টে হামলা করে। দেশি-বিদেশি ও পুলিশসহ মোট ২২ জনকে নৃশংসভাবে গ্রেনেড ছুড়ে, জবাই ও গুলি করে হত্যা। ৭ জুলাই সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কিশোরগঞ্জ জেলার শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে পুলিশ চেকপোষ্টের উপর হামলা। এছাড়াও কাদিয়ানী মসজিদে বোমা হামলা, পঞ্চগড়ে হিন্দু পুরহিতকে হত্যা, কুড়িগ্রামে খ্রিস্টান পাদ্রী হত্যা, ঝিনাইদাহে রাফিয়া শিয়া ধর্ম প্রচারককে হত্যা।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের(র‌্যাব)মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ বলেন, গত ১ জুলাই গুলশান হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার পর র‌্যাবের অভিযানে ৬ জঙ্গি নিহত এবং ৩৩ জন জঙ্গিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন,  ‘সাংগঠনিকভাবে নব্য জেএমবির পূর্বের মতো সারাদেশে একযোগে নাশকতা সৃষ্টি করার সক্ষমতা নেই।  তবে যে সকল জঙ্গি জেলখানার বাইরে আছে তাদের তৎপরতা একেবারে বন্ধ হয়ে যায়নি। তবে কঠোর গোয়েন্দা নজরদারি ও অভিযানের ফলে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠনগুলোর নেতা কর্মীরা পুনরায় সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা চালিয়েও বার বার ব্যর্থ হয়েছে এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার হাতে আটক হয়েছে।’

বেনজীর বলেন, ‘গত ৮ অক্টোবর গাজীপুর, টাঙ্গাইল ও ঢাকার বাইপাইল আশুলিয়ায় পৃথক পৃথক তিনটি জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাবের সফল অভিযানে চার জঙ্গি নিহত হয়। পরে জঙ্গি আব্দুর রহমান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। নিহত আব্দুর রহমানই নব্য জেএমবির প্রধান সারোয়ার জাহান ওরফে শাইখ আবু ইব্রাহিম আল হানিফ। তার বাসা থেকে জেএমবির অনেক গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র পাওয়া যায়।’

সম্পাদনা: জাহিদ


সর্বশেষ

আরও খবর

সংসদে ৬,৭৮,০৬৪ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব

সংসদে ৬,৭৮,০৬৪ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব


আ’লীগ নেতা বিএম ডিপোর একক মালিক নন

আ’লীগ নেতা বিএম ডিপোর একক মালিক নন


চীনের সাথে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে চায় বাংলাদেশ

চীনের সাথে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে চায় বাংলাদেশ


ভোজ্যতেল ও খাদ্য নিয়ে যা ভাবছে সরকার

ভোজ্যতেল ও খাদ্য নিয়ে যা ভাবছে সরকার


তৎপর মন্ত্রীগণ, সীতাকুণ্ডে থামেনি দহন

তৎপর মন্ত্রীগণ, সীতাকুণ্ডে থামেনি দহন


অত আগুন, এত মৃত্যু, দায় কার?

অত আগুন, এত মৃত্যু, দায় কার?


যে গল্প এক অদম্য যোদ্ধার

যে গল্প এক অদম্য যোদ্ধার


আফগান ও ভারতীয় অনুপ্রবেশ: মে মাসে আটক ১০

আফগান ও ভারতীয় অনুপ্রবেশ: মে মাসে আটক ১০


সীমান্ত কাঁটাতারে বিদ্যুৎ: আলোচনায় বিজিবি-বিজিপি

সীমান্ত কাঁটাতারে বিদ্যুৎ: আলোচনায় বিজিবি-বিজিপি


চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে কঠোর সরকার

চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে কঠোর সরকার