Sunday, August 14th, 2022
রাবির প্রথম শহীদ মিনার, দেখার যেন কেউ নেই!
February 21st, 2017 at 5:18 pm
রাবির প্রথম শহীদ মিনার, দেখার যেন কেউ নেই!

রাবি: ষাটের দশকে স্বৈরশাসক আইয়ুব খান বিরোধী আন্দোলনের সময়। প্রতিষ্ঠার দশ বছর পেরিয়ে গেলেও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) তখনও গড়ে ভাষা শহীদদের সম্মানে কোনো শহীদ মিনার। পরে ১৯৬৪ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যয়নরত একদল শিক্ষার্থী শহীদুল্লাহ্ কলা ভবনের সামনের আম বাগানে গড়ে তুলেন রাবির প্রথম শহীদ মিনার।

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি হানাদারেরা রাতের অন্ধকারে বোমা মেরে গুড়িয়ে দেয় ভালোবাসার সেই স্তম্ভ। মুক্তিযুদ্ধের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের শের-ই-বাংলা ফজলুল হক হলের সামনে চার একর জমিতে নির্মাণ করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। এরপর থেকেই মনযোগ হারায় রাবির প্রথম শহীদ মিনার। দেখার যেন কেউ নেই।

এদিকে অযত্নে আর অবহেলায় ইট-পাথরের বেদি ছাড়া মিনারের আর কোনো স্মৃতিচিহ্ন নেই সেখানে। ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত এই স্থাপনাটি সম্পর্কে জানেন না বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষক-শিক্ষার্থীও। এমনকি এখানে যে শহীদ মিনার আছে সে বিষয়টিও সকলের অজানা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সংস্কৃতিকর্মী কবি মোহাম্মদ কামাল বলেন, ‘রাবির প্রথম শহীদ মিনার কোথায় তা অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা জানে না। শহীদ মিনারটির ধ্বংসাবশেষ ছেলেমেয়েরা না জেনেই বেদীর উপর বসছে, জুতা পায়ে মাড়িয়ে যাচ্ছে। আমরা অনেক বার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বলেছি জায়গাটা সংরক্ষণ করতে। এতে করে এই ঐতিহাসিক জায়গাটি টিকে থাকবে, নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীরাও তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম শহীদ মিনারটি সম্পর্কে জানবেন।

জানা যায়, আব্দুল হামিদ, আব্দুর রাজ্জাক, বায়েজিদ আহমেদ, আবুল হোসেন, সাইদুর রহমান, একরামুল হক খুদ, নজরুল ইসলামসহ একদল শিক্ষার্থী ১৯৬৪ সালে এই শহীদ মিনারটি নির্মাণ করেন। শহীদুল্লাহ্ কলা ভবনের সামনের আম বাগানে প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থীরা আড্ডা দেন। পাশের ইট বিছানো রাস্তা দিয়ে হেঁটে যান অনেকে। কিন্তু অধিকাংশ শিক্ষার্থীই জানেন না এখানে একটি শহীদ মিনার আছে। বছর খানেক আগে বাংলা বিভাগের কয়েকজন শিক্ষার্থী স্বউদ্যোগে শহীদ মিনারটির চারপাশ বাঁশ-দড়ি দিয়ে ঘিরে দিয়েছিল। কিন্তু এখন আর তাও নেই।

এদিকে আজ আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষে বেলা ১১টায় রাবির প্রথম শহীদ মিনারটিতে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবৃত্তি সংগঠন স্বনন। দীর্ঘদিন ধরে শহীদ মিনারটি সংরক্ষণ করার দাবি জানিয়ে আসছেন তারা।

স্বননের সাবেক আহ্বায়ক জিএম ইকরামুল কবীর বলেন, ‘ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য নির্মিত রাবির প্রথম এই শহীদ মিনারটিকে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে গুড়িয়ে দেয়। সেই হিসেবে এটি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিও বহন করে। তাই আমাদের প্রাণের দাবি শহীদ স্মৃতি সংগ্রহশালার মাধ্যমে এই শহীদ মিনারটি যথাযোগ্য মর্যাদায় সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয়া হোক।’

প্রতিবেদন: আলী ইউনুস, সম্পাদনা: সজিব ঘোষ


সর্বশেষ

আরও খবর

সংসদে ৬,৭৮,০৬৪ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব

সংসদে ৬,৭৮,০৬৪ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব


আ’লীগ নেতা বিএম ডিপোর একক মালিক নন

আ’লীগ নেতা বিএম ডিপোর একক মালিক নন


চীনের সাথে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে চায় বাংলাদেশ

চীনের সাথে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে চায় বাংলাদেশ


ভোজ্যতেল ও খাদ্য নিয়ে যা ভাবছে সরকার

ভোজ্যতেল ও খাদ্য নিয়ে যা ভাবছে সরকার


তৎপর মন্ত্রীগণ, সীতাকুণ্ডে থামেনি দহন

তৎপর মন্ত্রীগণ, সীতাকুণ্ডে থামেনি দহন


অত আগুন, এত মৃত্যু, দায় কার?

অত আগুন, এত মৃত্যু, দায় কার?


যে গল্প এক অদম্য যোদ্ধার

যে গল্প এক অদম্য যোদ্ধার


আফগান ও ভারতীয় অনুপ্রবেশ: মে মাসে আটক ১০

আফগান ও ভারতীয় অনুপ্রবেশ: মে মাসে আটক ১০


সীমান্ত কাঁটাতারে বিদ্যুৎ: আলোচনায় বিজিবি-বিজিপি

সীমান্ত কাঁটাতারে বিদ্যুৎ: আলোচনায় বিজিবি-বিজিপি


চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে কঠোর সরকার

চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে কঠোর সরকার