Sunday, October 4th, 2020
‘রোহিঙ্গাদের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার সুযোগ নেই’
October 4th, 2020 at 6:52 pm
‘রোহিঙ্গাদের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার সুযোগ নেই’

শরীফ খিয়াম, ঢাকা ;

মিয়ানমারের ইউনিয়ন নির্বাচন কমিশনের (ইউইসি) দাবি, নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার সুযোগ নেই তাদের। সম্প্রতি এক  ই-বার্তায় নিউজনেক্সটবিডিকে এমনটাই জানিয়েছেন ইউইসির সদস্য ও মুখপাত্র মুইন্ট নাইং।

মিয়ানমারের জাতীয় নির্বাচনের আগে নাগরিকত্ব ও ভোটাধিকার ফিরে পেতে চেয়েছিল রোহিঙ্গা শরণার্থীরা। গত মাসের প্রথম সপ্তাহে দেশটির নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান হ্লা থেইনের উদ্দেশ্যে লেখা খোলা চিঠিতে এই দাবি জানায় জাতিগত নিধনের মুখে দেশ ছাড়তে বাধ্য হওয়া এই মুসলিম জনগোষ্ঠীর নেতারা।

২০১০ সাল পর্যন্ত নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাওয়ার কথাও জানিয়েছে তারা বলেছিল, “মিয়ানমার সরকারের উচিত নির্বাচনের আগে আমাদের নাগরিকত্বের অধিকার ফিরিয়ে দেওয়া এবং আমাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ ও সাধারণ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার অধিকারকে সমর্থন করা।”

এ ব্যাপারে ইউইসি মুখপাত্রের বক্তব্য জানতে চেয়ে ইমেইল করেছিল নিউজনেক্সটবিডি। তারই জবাবে মুইন্ট নাইং বলেন, “ইতিপূর্বে নির্বাচন আইন অনুযায়ী অস্থায়ী সনদধারী (হোয়াইট কার্ডধারীরা) ভোট দেওয়ার যোগ্য ছিল। তবে এই বিধানটি সরিয়ে ফেলা হয়েছে এবং হোয়াইট কার্ডধারীরা আর আগের মতো ভোট দিতে পারবেন না।

“ইউইসি বর্তমান আইনের সাথে সামঞ্জস্য রেখেই ব্যবস্থা নিচ্ছে,” যোগ করেন তিনি।

এর আগে ১৪টি শরণার্থী সংগঠনের ওই খোলা চিঠির কথা উল্লেখ করে মানবাধিকার সংস্থা ফর্টিফাই রাইটস বলেছে, মিয়ানমারের সরকারের উচিত আগামী নভেম্বরের নির্বাচনে বাংলাদেশে অবস্থানকারী শরণার্থীসহ প্রাপ্ত বয়স্ক সব রোহিঙ্গাদের ভোটের অধিকার এবং সুযোগ নিশ্চিত করা।


“সারাবিশ্বে ছড়িয়ে থাকা সব রোহিঙ্গাদের তাদের দেশের রাজনীতিতে অংশগ্রহণ ভোট দেওয়ার অধিকার থাকা উচিত,” এক বিবৃতিতে বলেন ফরটিফাই রাইটসের আঞ্চলিক পরিচালক ইসমাইল ওলফ।

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে নৈতিকতা বোধ পুনুরুজ্জীবিত করে শরণার্থীদের ভোটাধিকারের জন্য আওয়াজ তোলার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, “এটি সম্ভব।” গত ৩ মে শরণার্থী শিবিরগুলোতে ভোটার নিবন্ধন এবং ভোটদান প্রক্রিয়া চালু করার জন্য আরো একটি খোলা চিঠি লিখেছিল রোহিঙ্গা সংগঠনগুলো।  

নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পরদিন ২ জুলাই ইউইসি ঘোষণা করে, বিদেশে বাস করা মিয়ানমারের নাগরিকরা এ বছরের সাধারণ নির্বাচনে অগ্রিম ভোট দিতে পারবে। তারা ২০১০ ও ২০১৫ সালের নির্বাচনেও প্রবাসীদের ভোটদানের ব্যবস্থা করেছিল।

“কিন্তু রোহিঙ্গাদের নাগরিক, এমনকি ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী হিসেবেও স্বীকার করছে না মিয়ানমার। তারা দাবি করে আসছে রোহিঙ্গারা অবৈধ অনুপ্রবেশকারী,” নিউজনেক্সটবিডিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন।

ফর্টিফাই রাইটসও বলেছে, মিয়ানমার সরকার দীর্ঘদিন ধরেই রোহিঙ্গাদের পূর্ণ নাগরিকত্ব অধিকারে দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে। সাম্প্রতিক সময়ে তারা এনভিসি (ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড) প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এটা, করছে যা কার্যত রোহিঙ্গাদের বিদেশী হিসাবে চিহ্নিত করে।

ইউইসির সদস্য ও মুখপাত্র মুইন্ট নাইং নিউজনেক্সটবিডিকে জানান, যোগ্য ভোটার বলতে তাদের বোঝানো হচ্ছে, যারা নাগরিক, সহযোগী নাগরিক এবং প্রাকৃতিকায়িত (ন্যাচারালাইজড) নাগরিক, নির্বাচন আইনের বিধান লঙ্ঘন করে না এবং নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার দিন ১৮ বছর বয়স পূর্ণ করেছেন।

“নাগরিক, সহযোগী নাগরিক এবং ‘ন্যাচারালাইজড’ নাগরিকের যোগ্যতার বিষয়ে ইউইসি সিদ্ধান্ত নেয় না। ইউইসি লোকজনকে অন্তর্ভুক্ত করে, যদি তারা অভিবাসন বিভাগ দ্বারা নাগরিক, সহযোগী নাগরিক এবং প্রাকৃতিকায়িত নাগরিক হিসাবে নির্ণীত হয়,” বলেণ তিনি।

চলতি বছরের নির্বাচনে বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গা প্রার্থীতা প্রত্যাখ্যান করার কথা উল্লেখ করে রোহিঙ্গা নেতাদের চিঠিতে ইউইসির চেয়ারম্যান হেলা থেইন এবং মিয়ানমার সরকারকে ওইসব সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের আহবান জানানো হয়েছিল।

এর আগে ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গাদের দাবির সাথে একাত্মতা জানিয়ে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে বলা হয়, “নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় নির্বাচন মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের রাজনৈতিক অধিকার ফিরিয়ে আনার সুযোগ দিয়েছে।”

বিশ্লেষকদের দাবি, ১৯৮২ সালে সরকারিভাবে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব হরণ করা হয় এবং তারা একটি রাষ্ট্রহীন গোষ্ঠীতে পরিণত হন।

মিয়ানমারের ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইন অনুসারে ১৮২৪ সালে ব্রিট্রিশরা ঔপনিবেশিন শাসন শুরুর আগে যাদের পূর্বপুরুষরা সেখানে ছিল, বর্তমানে তারাই শুধু না নাগরিকত্ব পাচ্ছেন। এছাড়া ১৩৫টি সরকারী নৃগোষ্ঠীকে স্বীকৃতি দেওয়া হলেও তার মধ্যে রোহিঙ্গাদের  অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।


“তখন থেকেই রোহিঙ্গারা রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অধিকার আদায়ের চেষ্টা করছে। এ জাতীয় দাবির কারণেই বারবার তাদের বিতারণের চেষ্টা করা হয়েছে,” জানিয়ে ড. দেলোয়ার বলেন, “রোহিঙ্গাদের নূন্যতম স্বীকৃতি দিয়ে তাদের ফিরিয়ে নিতেও প্রস্তুত নয় দেশটি।”

সর্বশেষ ২০১৬ এবং ২০১৭ সালে মিয়ানমার আর্মির নেতৃত্বে রোহিঙ্গাদের ওপর গণধর্ষণ-গণহত্যা চলাকালে নতুন করে আট লাখেরও বেশি নারী-পুরুষ ও শিশু পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। এরপরও ছয় লক্ষাধিক রোহিঙ্গা মিয়ানমারে আছেন, যারা প্রতিনিয়ত পীড়ণের শিকার হচ্ছে বলে দাবি করেছে ফর্টিফাই রাইটস।

করোনাভাইরাস মহামারি এবং নভেম্বরে মিয়ানমারে সাধারণ নির্বাচন, এই দুই কারণে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের আলোচনাও আগাচ্ছে না বলে গত আগস্টে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন।

রোহিঙ্গা নেতাদের ভাষ্য: রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের (এআরএসপিএইচ) ভাইস চেয়ারম্যান আবদুর রহিম সাংবাদিকদের জানান, খোলা চিঠিতে মিয়ামারের রাষ্ট্রপতির কার্যালয় ও নেদারল্যান্ডসের হেগের আন্তর্জাতিক আদালত বিচারকদের পাশাপাশি দেশটির মানবাধিকার পরিস্থিতি বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ দূতেরও দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে চিঠিতে।

এর আগে পহেলা জুলাই ৮ নভেম্বর জাতীয় নির্বাচন আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছিল ইউইসি। মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো ২০১৭ সালের আগস্টের রোহিঙ্গা গণহত্যার পর দেশটিতে এটিই প্রথম নির্বাচন।

“নোবেল শান্তি পুরস্কার জয়ী অং সান সু চির দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেতৃত্বাধীন সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিতব্য এই নির্বাচনে আমরা যাতে নির্বাচনে অংশ নিতে পারি সে ব্যাপারে আন্তর্জাতিক মহল চাপ প্রয়োগ করবে, এমনটাই আশা করছি,” বলেন রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নেতা রহিম।

“যদিও ইউইসি ও মিয়ানমার সরকার এরই মধ্যে সাফ জানিয়ে দিয়েছে রোহিঙ্গারা নির্বাচনে অংশ নিতে বা ভোট দিতে পারবে না,” উল্লেখ করে তিনি বলেন, “এটা খুবই দুঃখজনক। ২০১০ সালের নির্বাচনেও আমরা অংশ নিয়েছি, ভোট দিয়েছি।”

২০১৫ সালের নির্বাচনেও রোহিঙ্গা বা মুসলিমদের কোনো দল থেকে প্রার্থী হতে দেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন শরণার্থীরা। বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে শূন্য রেখায় আটকে থাকা রোহিঙ্গাদের নেতা দিল মোহাম্মদ গণমাধ্যমকে বলেন, “এবারও রোহিঙ্গারা যাতে নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে সেজন্য আগে থেকেই নীল নকশা তৈরী  করে রেখেছে বর্মীরা।”

এ পরিস্থিতিকে ‘ন্যাক্কারজনক’ বলে উল্লেখ করেন তিনি।

শরীফ খিয়াম

সর্বশেষ

আরও খবর

কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের জামিন মঞ্জুর

কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের জামিন মঞ্জুর


ফটোগ্রাফিক এসোসিয়েশনে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের আহ্ববান

ফটোগ্রাফিক এসোসিয়েশনে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের আহ্ববান


একদিনেই সড়কে ঝড়ল ১৯ প্রাণ

একদিনেই সড়কে ঝড়ল ১৯ প্রাণ


শাহবাগে মশাল মিছিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, আটক ৩

শাহবাগে মশাল মিছিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, আটক ৩


গুলিবিদ্ধ সাংবাদিক মারা যাওয়ার ৬০ ঘন্টা পরে পরিবারের মামলা

গুলিবিদ্ধ সাংবাদিক মারা যাওয়ার ৬০ ঘন্টা পরে পরিবারের মামলা


করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩২৭

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩২৭


নামাজ পড়ানোর সময় সিজদারত অবস্থায় ইমামের মৃত্যু

নামাজ পড়ানোর সময় সিজদারত অবস্থায় ইমামের মৃত্যু


ভাষার বৈচিত্র্য ধরে রাখার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ভাষার বৈচিত্র্য ধরে রাখার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর


করোনায় আরও জনের ১৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯১

করোনায় আরও জনের ১৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯১


৩ কোটি ২০ লাখ রুপিতে কেকেআরে সাকিব

৩ কোটি ২০ লাখ রুপিতে কেকেআরে সাকিব