Saturday, September 21st, 2019
র‍্যাবকেও ঘুষ দিতে চেয়েছিলেন খালেদ
September 21st, 2019 at 3:31 pm
র‍্যাবকেও ঘুষ দিতে চেয়েছিলেন খালেদ

ঢাকা ডেস্কঃ মামলার তদন্ত কালে যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া জানায়,ক্যাসিনো থেকে শুধু পুলিশের মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তারাই মোটা অঙ্কের টাকা নিতেন না, ঢাকা মহানগর পুলিশ-ডিএমপি সদর দফতরের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারাও নিতেন। এসব কর্মকর্তার সঙ্গে ছিল তার বিশেষ সখ্য। সরকারের একটি প্রভাবশালী মহলের সঙ্গেও তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল। ক্যাসিনোর টাকা যেত প্রভাবশালী নেতাদের পকেটেও।

তাকে গ্রেফতারের জন্য বুধবার র‌্যাব যখন তার বাড়িতে অভিযান চালায় তখন মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে র‍্যাবকেও ম্যানেজ করতে চেয়েছিলেন খালেদ। কিন্তু র‍্যাব টাকা নিতে রাজি হয়নি। আর এ কারণেই তাকে গ্রেফতার হতে হয়েছে।

বুধবার রাতে র‍্যাব খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে তার গুলশানের বাসা থেকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে।

এদিন খালেদের নিয়ন্ত্রিত ফকিরাপুলের ইয়াংমেন্স ক্লাব, যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাট নিয়ন্ত্রিত গুলিস্তানের পীর ইয়ামেনী মার্কেটসংলগ্ন ক্লাব, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মমিনুল হক সাঈদের নিয়ন্ত্রণাধীন ওয়ান্ডারার্স ক্লাব এবং এক আওয়ামী লীগ নেতার নিয়ন্ত্রণাধীন গোল্ডেন ঢাকা ক্লাবে অভিযান চালায় র‍্যাব । সবকটি ক্লবেই অবৈধ ক্যাসিনো চলত। এসব ক্যাসিনো থেকে বিপুল পরিমাণ মদ, বিয়ার, ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা ১৮২ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার অস্ত্র ও মাদক আইনের দুই মামলায় খালেদের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

বৃহস্পতিবার আদালতের নির্দেশে মামলা দুটির তদন্তভার গ্রহণ করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) উত্তর বিভাগ। এদিন রাতেই তাকে ডিবি হেফাজতে নেয়া হয়।

ডিবির অতিরিক্ত উপকমিশনার শাহজাহান সাজু বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের প্রভাবশালী নেতার নাম বলেছেন খালেদ। তদন্তের স্বার্থে এ মুহূর্তে ওইসব নেতার নাম বলা যাচ্ছে না। তাদের বিষয়ে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। খালেদের দেয়া তথ্যের সঙ্গে যদি গোয়েন্দা তথ্যের মিল পাওয়া যায় তাহলে তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে। কেউ যাতে বিদেশে পালিয়ে যেতে না পারে সে বিষয়েও আমরা তৎপর আছি।

তবে সবকিছুই নির্ভর করছে সরকারের উচ্চপর্যায়ের গ্রিন সিগন্যালের ওপর। এসব নিয়ে মিডিয়ায় কথা বলতে বারণ আছে। বিষয়টি খুবই সেনসেটিভ বলে জানিয়েছেন, ডিবির শীর্ষ পর্যায়ের এক কর্মকর্তা । আমাদের প্রতি নির্দেশ আছে, তদন্তে যেসব তথ্য পাওয়া যাবে তা যেন শুধু তদন্ত প্রতিবেদনেই প্রতিফলিত হয়। এসব যেন মিডিয়ায় প্রতিফলিত না হয়।

রিমান্ডে প্রথমদিনের জিজ্ঞাসাবাদে খালেদ তথ্য দিয়েছেন, বড় বড় ব্যবসায়ীদের ক্যাসিনোতে আসতে বাধ্য করতেন খালেদ ও তার ক্যাডাররা এবং ক্যাসিনো ব্যবসার অর্থ কোথায় যেত। রাজধানীতে আরও যেসব স্থানে অবৈধ ক্যাসিনোর রমরমা ব্যবসা চলে সেসবের বেশকিছু নাম ।

খালেদের বরাত দিয়ে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পুলিশকে ম্যানেজ করেই বছরের পর বছর ধরে ক্যাসিনো ব্যবসা চালাচ্ছিলেন খালেদসহ বেশ কয়েকজন যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ এবং আওয়ামী লীগ নেতা। এসব নেতাদের রয়েছে শতাধিক অস্ত্রধারী ক্যাডার। এসব ক্যাডারদের মাধ্যমে চলত কমপক্ষে ৩০টি ক্যাসিনো। শুধু তাই নয়, ক্যাসিনো চলার সময়, বাইরে বসত পুলিশি পাহারাও।

রাজউক,রেল ও বিদ্যুৎ ভবনসহ বিভিন্ন সরকারি অফিসের ঠিকাদারি ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করত এসবব অস্ত্রধারী ক্যাডাররা। চাঁদা আদায়ের ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা হতো অস্ত্রধারী ক্যাডারদের।

ক্যাডাররা যখন সরকারি অফিসে যেতেন তখন তাদের মাথায় হেলমেট পরা থাকত। পছন্দের লোকরা যেন টেন্ডার পান সেজন্য খালেদ বাহিনীর ক্যাডাররা ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে আতঙ্ক ছড়াতেন।

গোয়েন্দা সূত্র জানায়, চাঁদা না দিলেই ক্যাডারদের মাধ্যমে ধরে নিয়ে ভুক্তভোগীদের ওপর চালানো হতো নির্মম নির্যাতন। এজন্য কমলাপুরে রয়েছে খালেদের টর্চার সেল। এ সংক্রান্ত একাধিক ভিডিও ফুটেজও সংগ্রহ করেছেন গোয়েন্দারা।

ডিবির সূত্রে  জানা যায়, সরকারি অফিসে টেন্ডারে অংশ নিতে খালেদ তার অপছন্দের লোকদের নিষেধ করতেন। তার নিষেধ অমান্য করে যারা টেন্ডারে অংশ নিতেন তাদের ঠিকানা হতো কমলাপুরের টর্চার সেল। সেখানে আটকে রেখে অনেকের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করা হতো। ইলেকট্রিক শকসহ চালানো হতো অমানুষিক নির্যাতন। অবৈধভাবে উপার্জন করা এসব অর্থ দিয়ে থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ায় সম্পদের পাহাড় গড়েছেন খালেদ।

খালেদের নেতৃত্বে বিভিন্ন সরকারি অফিসে আছে পৃথক বাহিনী। রেল ভবনে টেন্ডার নিয়ন্ত্রণে আছেন তার আপন ভাই মাসুদ, কৃষি ভবনে মিজান, রাজউকে খায়রুল, উজ্জ্বল ও রুবেল, পিডব্লিউডিতে নুরুন্নবী ওরফে রাজু প্রমুখ।

খালেদের তথ্য অনুযায়ী, রাজধানীতে ক্যাসিনোগুলো গড়ে উঠেছে বিভিন্ন স্পোর্টিং ক্লাবকেন্দ্রিক। এসব ক্লাবের মধ্যে আছে- আজাদ স্পোর্টিং ক্লাব, সোনালী অতীত ক্রীড়াচক্র, দিলকুশা স্পোর্টিং ক্লাব, আরামবাগ ক্লাব ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, ব্রাদার্স ক্লাব, মেরিনার্স ক্লাব, মিরপুরে ঈদগাহ মাঠসংলগ্ন ক্লাব, দুয়ারীপাড়া ক্লাব, উত্তরার ১৩ নম্বর সেক্টরে অবস্থিত গাজীপুর, কারওয়ান বাজারের প্রগতিসংঘ ক্লাব। তবে বুধবার ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরুর পর এসব ক্লাব ক্যাসিনো বন্ধ করে দিয়েছে।

শুক্রবার রাতে টেলিফোনে ডিএমপি কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি একটি কাজে আজ (শুক্রবার) সারা দিন গোপালগঞ্জে আছি। ডিবি কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদে খালেদ যেসব তথ্য দিয়েছেন তা এখনও আমি অবগত হইনি। তবে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের আমি নির্দেশ দিয়েছি, ক্যাসিনো বাণিজ্যের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের কাউকেই ছাড় দেয়া যাবে না। ডিএমপির আটটি অপরাধ বিভাগের জোনাল ডিসিদের পরিষ্কার নির্দেশনা দিয়েছি, যে কোনো ধরনের অপকর্ম আমি মোটেও সহ্য করব না। সব থানায়ও একই মেসেজ দিয়েছি।

এদিকে দলের নিয়ম ভাঙা ও অবৈধ কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে যুবলীগের ঢাকা দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা: সবুজ


সর্বশেষ

আরও খবর

ওয়েবসাইট বন্ধ করে দিয়েছে ইভ্যালি কর্তৃপক্ষ

ওয়েবসাইট বন্ধ করে দিয়েছে ইভ্যালি কর্তৃপক্ষ


মিরপুরে খালে পড়ে নিখোঁজ ব্যক্তিকে ৬ ঘণ্টা পর জীবিত উদ্ধার

মিরপুরে খালে পড়ে নিখোঁজ ব্যক্তিকে ৬ ঘণ্টা পর জীবিত উদ্ধার


ফেসবুকে কিডনি বেচাকেনা, চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

ফেসবুকে কিডনি বেচাকেনা, চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার


সেই ভুয়া অতিরিক্ত সচিবের বিরুদ্ধে মামলা করবেন মুসা বিন শমসের

সেই ভুয়া অতিরিক্ত সচিবের বিরুদ্ধে মামলা করবেন মুসা বিন শমসের


শান্তিতে নোবেল পেলেন দুই সাংবাদিক

শান্তিতে নোবেল পেলেন দুই সাংবাদিক


তিন দিনে ১ লাখ ২৫ হাজার অবৈধ মুঠোফোন শনাক্ত

তিন দিনে ১ লাখ ২৫ হাজার অবৈধ মুঠোফোন শনাক্ত


করোনায় চার মাস পর সর্বনিম্ন ২১ জনের মৃত্যু

করোনায় চার মাস পর সর্বনিম্ন ২১ জনের মৃত্যু


গ্রামীণ ব্যাংকের বিরুদ্ধে ২ মামলা

গ্রামীণ ব্যাংকের বিরুদ্ধে ২ মামলা


করোনায় সারাদেশে আরও ২৪ জনের মৃত্যু

করোনায় সারাদেশে আরও ২৪ জনের মৃত্যু


এ বছরই দেশে ফাইভ জি চালু হবে: জয়

এ বছরই দেশে ফাইভ জি চালু হবে: জয়