Thursday, September 22nd, 2016
শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়’র ৪৬তম মৃত্যুবার্ষিকী
September 22nd, 2016 at 11:53 am
শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়’র ৪৬তম মৃত্যুবার্ষিকী

ডেস্ক: উপমহাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় কাল্পনিক গোয়েন্দা চরিত্র ‘ব্যোমকেশ বক্সী’র সৃষ্টিকর্তা ভারতীয় বাঙালি লেখক শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় এর ৪৬তম মৃত্যুবার্ষিকী বৃহস্পতিবার। ১৯৭০ সালের ২২ সেপ্টেম্বর এই জনপ্রিয় লেখক মৃত্যুবরণ করেন।

১৮৯৯ সালের ৩০ মার্চ উত্তরপ্রদেশের জৌনপুর শহরের নানাবাড়িতে শরদিন্দু’র জন্ম। বাবা তারাভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়, মা বিজলীপ্রভা দেবী। পিতার আদি নিবাস ছিল কলকাতার উত্তরে, বরাহনগরে। বিহারের পূর্ণিয়ায় ওকালতি প্র্যাকটিস করতেন শরদিন্দু’র বাবা। সেখান থেকে সপরিবারে মুঙ্গেরে এসে নিবাস গাড়েন, সেই সুবাদে শরদিন্দুর স্কুলশিক্ষা মুঙ্গেরে। ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করার পর শরদিন্দু কলকাতার বিদ্যাসাগর কলেজে ভর্তি হন।jhinder-bondi

বিদ্যাসাগর কলেজে আইন নিয়ে পড়াশোনার পাশাপাশি নিয়মিত সাহিত্য চর্চা করতেন। ছাত্রাবস্থায় ২০ বছর বয়সে প্রথম সাহিত্য প্রকাশ, কাব্যগ্রন্থ ‘যৌবনের স্মৃতি’। তার সৃষ্ট গোয়েন্দা চরিত্র ব্যোমকেশ বক্সী’র আত্মপ্রকাশ ঘটে তারও বহু পরে, ১৯৩২ সালে। চার বছরে ব্যোমকেশকে নিয়ে ১০টি গল্প লেখার পর শরদিন্দু আর ব্যোমকেশের কথা ভাবেননি। তার ১৫ বছর পর পরিমল গোস্বামীর বাড়ির ছেলেমেয়েদের অভিযোগ কানে তুলে দীর্ঘ বিরতির পর তিনি ‘চিত্রচোর’ (১৩৫৮ বঙ্গাব্দ) লেখেন। সেই থেকে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত ব্যোমকেশ তার সঙ্গী। গল্প-উপন্যাস মিলিয়ে ‘ব্যোমকেশ’ কাহিনি মোট ৩২টি।

book-sharadinduশরদিন্দু ১৯৩৮ সালে বম্বে টকিজ এ চিত্রনাট্যকার হিসেবে কাজ শুরু করেন। তিনি যে ছবিগুলিতে চিত্রনাট্যকারের কাজ করেছেন সেগুলি হচ্ছে- দূর্গা (১৯৩৯), কঙ্গন(১৯৩৯), নবজীবন(১৯৩৯) ও আজাদ(১৯৪০)। ১৯৫২ সালে সিনেমার কাজ ছেড়ে স্থায়ীভাবে পুনায় বসবাস করতে শুরু করেন। পরবর্তী ১৮ বছর তিনি সাহিত্য চর্চায় অতিবাহিত করেন।

লেখকের বিভিন্ন রচনা থেকে তৈরি হয়েছে চলচ্চিত্র। চিড়িয়াখানা (সত্যজিত রায়), ঝিন্দের বন্দী (নির্দেশক তপন সিংঘ), বিষের ধোঁয়া, দাদার কীর্তি (তরুণ মজুমদার) ‘তিশগ্নি’ (লেখকের ঐতিহাসিক ছোটগল্প ‘মরু ও সঙ্ঘ’র চিত্ররুপ)।boamkesh

লেখকের জনপ্রিয় ব্যোমকেশ বক্সী সিরিজ’র অন্তর্গত ডিটেক্টিভ উপন্যাসগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য গুলো হলো- ব্যোমকেশের ডায়েরী (১৯৩৩), ব্যোমকেশের কাহিনী (১৯৩৩), ব্যোমকেশের গল্প (১৯৩৭), দুর্গরহস্য (১৯৫২), চিড়িয়াখানা (১৯৫৩), আদিম রিপু (১৯৫৫), বহ্নি-পতঙ্গ (১৯৫৬), সসেমিরা (১৯৫৯), কহেন কবি কালিদাস (১৯৬১), ব্যোমকেশের ছ’টি (১৯৬২), ব্যোমকেশের ত্রিনয়ন (১৯৬২), মগ্নমৈনাক (১৯৬৩), শজারুর কাঁটা (১৯৬৭), বেণীসংহার (১৯৬৮)।

এছাড়াও শরদিন্দু অমনিবাস (২ খন্ড, ১৯৭১) ও ব্যোমকেশ সমগ্র (১৯৯৫) নামে লেখকের সংকলন গ্রন্থ রয়েছে।

শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় রচিত ঐতিহাসিক উপন্যাসগুলো হচ্ছে- কালের মন্দিরা (১৯৫৩), গৌড়মল্লার (১৯৫৪), তুমি সন্ধ্যার মেঘ (১৯৫৮), কুমারসম্ভবের কবি (১৯৬৩), তুঙ্গভদ্রার তীরে (১৯৬৫)।

এছাড়াও লেখকের গল্প সংকলন’র সংখ্যাও নিতান্ত কম নয়। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- জাতিস্মর (১৯৩২), চুয়াচন্দন (১৯৩৫), বুমের‌্যাং (১৯৩৮), বিষকন্যা (১৯৪০), কাঁচামিঠে (১৯৪২), শাদা পৃথিবী (১৯৪৮), এমন দিনে (১৯৬২), শঙ্খ-কঙ্কণ (১৯৬৩)।

তিনি ‘তুঙ্গভদ্রার তীরে’ উপন্যাসের জন্য রবীন্দ্র পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়াও তিনি শরৎস্মৃতি পুরস্কার, মতিলাল পুরস্কারসহ প্রভৃতি পুরস্কার লাভ করেন।

গ্রন্থনা- এস. কে. সিদ্দিকী


সর্বশেষ

আরও খবর

প্রয়াণের ২১ বছর…

প্রয়াণের ২১ বছর…


মুক্তিযুদ্ধে যোগদান

মুক্তিযুদ্ধে যোগদান


স্বাধীনতার ঘোষণা ও অস্থায়ী সরকার গঠন

স্বাধীনতার ঘোষণা ও অস্থায়ী সরকার গঠন


শিশু ধর্ষণ নিয়ে লেখা উপন্যাস ‘বিষফোঁড়া’ নিষিদ্ধ!

শিশু ধর্ষণ নিয়ে লেখা উপন্যাস ‘বিষফোঁড়া’ নিষিদ্ধ!


বীর উত্তম সি আর দত্ত আর নেই, রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

বীর উত্তম সি আর দত্ত আর নেই, রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক


১৯৭১ ভেতরে বাইরে সত্যের সন্ধানে

১৯৭১ ভেতরে বাইরে সত্যের সন্ধানে


সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণে এলেন বেলারুশের সাংবাদিকেরা!

সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণে এলেন বেলারুশের সাংবাদিকেরা!


লুণ্ঠন ঢাকতে বারো মাসে তেরো পার্বণ

লুণ্ঠন ঢাকতে বারো মাসে তেরো পার্বণ


সংগীতের ভিনসেন্ট নার্গিস পারভীন

সংগীতের ভিনসেন্ট নার্গিস পারভীন


দ্য লাস্ট খন্দকার

দ্য লাস্ট খন্দকার